দাবি পূরণের আন্দোলনে সেই পুরনো ইদুর-বেড়াল খেলা আবারও আচমকা অবরোধ স্থগিত

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দল গতকাল সোমবার রাত ১০টায় আচমকা দেশব্যাপী অবরোধ স্থগিত করেছে৷ এ নিয়ে তারা লাগাতার অবরোধ চতুর্থ দফা স্থগিত করলো৷  বারবার তারা অবরোধ দিয়ে কেয়ারটেকার সরকারের কাছ থেকে তাদের দাবি পর্যায়ক্রমে আদায় করে নিচ্ছে৷ এবার চতুর্থ দফায় ১৪ দল তাদের বেশির ভাগ দাবি পূরণের অঙ্গীকার সরকারের কাছ থেকে পাওয়া সত্ত্বেও অবরোধ পুরোপুরি প্রত্যাহার না করে আগের মতোই স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে৷
গতকাল সরকার ১৪ দলের দাবি পূরণের প্যাকেজ প্রস্তাব অনুমোদন করে৷ একইসঙ্গে সিদ্ধান্ত হয়, প্রস্তাবগুলো বাস্তবায়নের পরও ১৪ দল অবরোধ তুলে না নিলে সরকার শক্তি প্রয়োগের পথে হাটবে৷ সে অনুযায়ী ১৪ দলের দাবি পূরণের প্রক্রিয়া শুরুর পাশাপাশি সরকারের নির্দেশে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা এবং জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার স্বার্থে সহিংস রাজনৈতিক কর্মসূচি বন্ধ করার প্রস্তুতি শুরু হয় সন্ধ্যা থেকেই৷ ভেতরকার সূত্র থেকে এ সংবাদ ১৪ দলের শীর্ষ মহলে পৌছে গেলে তারা পুরনো কৌশল অনুযায়ী আচমকা অবরোধ স্থগিতের ঘোষণা দেয়৷
গত কয়েক দিনের অবরোধে অর্থনৈতিকভাবে বিপুল লোকসান ও জনজীবনের সীমাহীন দুর্ভোগ ছাড়াও ছাত্রছাত্রীদের লেখাপড়ার অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে৷ সহিংসতায় প্রাণহানি, বহু মানুষ আহত এবং প্রাইভেট ও পাবলিক সেক্টরে সম্পদের বিপুল ক্ষতি হয়েছে৷ এ পটভূমিতে শেষ ব্যবস্থা হিসেবে সরকার ১৪ দলের দাবি পূরণ এবং শান্তি রক্ষার যুগপত্ প্রক্রিয়া এগিয়ে নেয়৷ ১৪ দলও ইদুর-বেড়াল খেলার পুরনো কৌশলে আন্দোলন আপাতত স্থগিত করেছে৷ সরকারের প্যাকেজ প্রস্তাব বাস্তবায়নের পর তারা কোনো দাবি তুলে আবার আন্দোলন করবে কি না সে ব্যাপারেও সুস্পষ্ট কোনো অঙ্গীকার বা বক্তব্য দেয়নি৷
আগের ঘোষণা অনুযায়ী গতকাল সোমবার উপদেষ্টা পরিষদের দীর্ঘ বৈঠক হয়৷ সে বৈঠকে ২১ জানুয়ারি ভোট গ্রহণের তারিখ ঠিক রেখে নির্বাচনের শেডিউল পরিবর্তন এবং ইলেকশন কমিশনার স ম জাকারিয়া ও মোদাব্বির হোসেন চৌধুরীকে ছুটিতে যাওয়ার অনুরোধ জানানোর পাশাপাশি আওয়ামী লীগের ইচ্ছা অনুযায়ী বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের সচিবদের সরিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়৷ দিনভর বঙ্গভবনে উপদেষ্টা পরিষদের মিটিং শেষে সরকারের স্পোকসম্যান ও তথ্য উপদেষ্টা মাহবুবুল আলম সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান৷
অবশ্য স ম জাকারিয়া ও মোদাব্বির হোসেন চৌধুরীর নাম না নিয়েই তিনি বলেন, একজন বা দুইজন নির্বাচন কমিশনারকে ছুটিতে যাওয়ার অনুরোধ জানানো এবং আরো একজন বা দুইজন নতুন নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে উপদেষ্টা পরিষদ৷ প্রায় সব দাবি এভাবে মেনে নিলেও আওয়ামী লীগের চাপের কাছে নতি স্বীকারের বিষয়টি উপদেষ্টারা মুখে স্বীকার করছেন না৷ মাহবুবুল আলমের হাত থেকে মাইক্রোফোন টেনে নিয়ে উপদেষ্টা হাসান মশহুদ চৌধুরী বলেন, কোনো দলের চাপের কারণে নয়, নিজেদের বিবেচনা অনুযায়ীই আমরা এসব সিদ্ধান্ত নিয়েছি৷
কেয়ারটেকার সরকারের এসব সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর ১৪ দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের এক সমন্বয় সভা শেষে গতকাল রাত ১০টায় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা অবরোধ স্থগিতের ঘোষণা দেন৷ এক সংক্ষিপ্ত প্রেস বৃফিংয়ে তিনি বলেন, সরকারের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা অবরোধ আবারও স্থগিত করেছি৷ তবে আন্দোলন চলবে৷ মঙ্গলবার ঘেরাও করা হবে নির্বাচন কমিশন৷ ভোটার তালিকা হালনাগাদ না হওয়া পর্যন্ত কোনোমতেই শেডিউল ঘোষণা করা যাবে না৷ ভোটের তারিখ পেছানোর ক্ষেত্রে সাংবিধানিক কোনো বাধা নেই৷ তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন হচ্ছে কি না সেটা আমরা দেখবো৷
গত রবিবারের ছয় ঘণ্টার বৈঠকের পর গতকাল সোমবারও বঙ্গভবনে উপদেষ্টা পরিষদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রায় সাড়ে পাচ ঘণ্টা৷ দুপুর সাড়ে ১২টায় শুরু হয়ে এ বৈঠক শেষ হয় সন্ধ্যা ৬টার কয়েক মিনিট আগে৷ প্রেসিডেন্ট ও চিফ অ্যাডভাইজর প্রফেসর ড. ইয়াজউদ্দিনের সভাপতিত্বে বৈঠকে ১০ উপদেষ্টা ছাড়াও অংশ নেন ভারপ্রাপ্ত চিফ ইলেকশন কমিশনার (সিইসি) জাস্টিস মাহফুজুর রহমান, নির্বাচন কমিশনের সচিব আবদুর রশিদ সরকার, ক্যাবিনেট সচিব আবু সোলায়মান চৌধুরী, সংস্থাপন সচিব এ এফ এম সোলায়মান চৌধুরী এবং স্বরাষ্ট্র সচিব এস এম জহুরুল ইসলাম৷
বৈঠকে অংশ নেয়ার জন্য নির্বাচন কমিশন সচিব আবদুর রশিদ সরকার বঙ্গভবনে আসেন দুপুর ১২টায়৷ ভারপ্রাপ্ত সিইসি জাস্টিস মাহফুজ আসেন বৈঠক শুরুর পর দুপুর ২টায়৷ সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, বৈঠকে নির্বাচনের শেডিউল পরিবর্তন ও নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন নিয়ে আলোচনার এক পর্যায়ে জাস্টিস মাহফুজকে বঙ্গভবনে আসার জন্য খবর দেয়া হয়৷ সে অনুযায়ীই তিনি ছুটে আসেন প্রেসিডেন্ট হাউসে৷
বৈঠক শেষে বঙ্গভবন থেকে বেরোনোর সময় কেয়ারটেকার সরকারের স্পোকসম্যান ও তথ্য উপদেষ্টা মাহবু্‌বুল আলম এবং জ্বালানি উপদেষ্টা হাসান মশহুদ চৌধুরী কথা বলেন সাংবাদিকদের সঙ্গে৷ মাহবুবুল আলম বলেন, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ এবং সবার কাছে গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য আমরা আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি৷ সচিব পর্যায়ের সাত থেকে আটজন অফিসারকে বদলি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা৷ ভোটার লিস্ট হালনাগাদ করে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য একটি ভোটার লিস্ট চূড়ান্তকরণ ও নির্বাচনের শেডিউল পরিবর্তনের অনুরোধ জানিয়েছি৷ মঙ্গলবারের মধ্যে ইলেকশন কমিশন এ ব্যাপারে তাদের সিদ্ধান্ত জানাবে৷
এছাড়া দুইজন নির্বাচন কমিশনারকে ছুটিতে যাওয়ার অনুরোধ জানাবে সরকার৷ একই সঙ্গে নতুন করে আরো একজন বা দুইজন নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ করা হবে৷ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা বসে নেই, একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে সব সময়ই কাজ চালিয়ে যাচ্ছি৷ বিগত যে কোনো সময়ের চেয়ে বর্তমান পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন৷ একই দিনে এতো দুরূহ কাজ আমরা সম্পন্ন করেছি৷ এখন রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনমুখী হলেই আমাদের এসব উদ্যোগ সফল হবে৷
হাসান মশহুদ চৌধুরী বলেন, কোনো রাজনৈতিক দলের দাবি বা চাপের মুখে আমরা এসব সিদ্ধান্ত নিইনি৷ প্রধান উপদেষ্টাসহ সব উপদেষ্টার সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত এগুলো৷ এসব পদক্ষেপ আমাদের পূর্বঘোষিত প্যাকেজেরই অংশ৷ আমাদের এ উদ্যোগ প্রতিটি রাজনৈতিক দল ইতিবাচকভাবে নেবে বলেই আশা করি৷ জনগণের দুর্ভোগ সৃষ্টিকারী যে কোনো কর্মসূচি তারা প্রত্যাহার করে নেবে৷ প্রয়োজনে আমরা তাদের কাছে অবরোধ প্রত্যাহারের আবেদন জানাবো৷ তিনি বলেন, প্রধান দুই রাজনৈতিক নেত্রীকে প্রেসিডেন্ট যে চায়ের নিমন্ত্রণ করেছিলেন, তার ফলোআপ হিসেবেই আমরা পরে দুই নেত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি৷ আমাদের আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে এবং সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি করেছে৷
এদিকে ভারপ্রাপ্ত সিইসি জাস্টিস মাহফুজুর রহমান ও নির্বাচন কমিশনের সচিব আবদুর রশিদ সরকার বঙ্গভবনে থেকে বেরিয়ে সোজা চলে যান ইলেকশন কমিশনে৷ সেখানে পৌছেই তারা ফুল কমিশনের বৈঠকে বসেন৷ এ জন্য অন্য কমিশনারদের আগেই খবর পাঠানো হয় তারা যেন অফিস ত্যাগ না করেন৷ নির্বাচন কমিশনার মাহমুদ হাসান মনসুর বিকাল সাড়ে ৫টায় বাসার উদ্দেশে রওনা দিয়ে কিছুক্ষণ পরই আবার ফিরে আসেন৷ এরপর সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় শুরু হয় কমিশনের বৈঠক৷
রাত ৯টায় বৈঠক শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময় ভারপ্রাপ্ত সিইসি জাস্টিস মাহফুজ অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে ভোটার লিস্ট সংশোধনসহ অন্য যেসব দিকনির্দেশনা বঙ্গভবন থেকে পাওয়া গেছে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি আমরা৷ কাল আবার আলোচনায় বসবো৷
বৈঠকের বরাত দিয়ে কমিশনের অন্য একটি উচ্চ পর্যায়ের সূত্র জানিয়েছে, ১৪ দলের দাবি অনুযায়ী ভোটার লিস্ট সংশোধন ও হালনাগাদ করার জন্য একটি স্বল্প মেয়াদি ক্র্যাশ প্রোগ্রাম বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন৷ তবে প্রস্তাবিত সে ক্র্যাশ প্রোগ্রামের আওতায় কি কি বিষয় অন্তর্ভুক্ত থাকবে তা বৈঠকে চূড়ান্ত হয়নি৷ একই সূত্র জানিয়েছে, ছুটিতে যাওয়ার জন্য প্রেসিডেন্ট বা কেয়ারটেকার সরকারের তরফ থেকে এখনো ফরমাল বা ইনফরমাল কোনো অনুরোধ না জানানো সত্ত্বেও ইলেকশন কমিশনার স ম জাকারিয়া ছুটিতে যাওয়ার জন্য নিজ থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন৷ আজকালের মধ্যেই তিনি ছুটিতে যেতে পারেন৷
এদিকে কেয়ারটেকার সরকারের প্যাকেজ প্রস্তাব ঘোষণার পর সন্ধ্যা ৭টার দিকে ১৪ দলের সমন্বয় কমিটির বৈঠক শুরু হয় ধানমন্ডির সুধা সদনে৷ রাত ১০টায় বৈঠক শেষে বৃফিং করেন ১৪ দলের নেত্রী শেখ হাসিনা৷ এলডিপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহী বি চৌধুরী রাত পৌনে ৯টার দিকে এসে ১৪ দলের সমন্বয় কমিটির বৈঠকে যোগ দেন৷ ১৫ মিনিট পর বেরিয়ে চলে যাওয়ার সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বারিধারায় আমাদের পার্টিরও বৈঠক চলছে৷ আন্দোলনের সমন্বয় সাধনের জন্য ডাকপিয়নের ভূমিকা নিয়ে আমি এখানে এসেছি৷
বৈঠক শেষে শেখ হাসিনা বলেন, কেয়ারটেকার সরকারের প্যাকেজ সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা আবারও অবরোধ স্থগিত করছি৷ তবে আন্দোলন চলবে৷ মঙ্গলবার ইসি ঘেরাও কর্মসূচি পালন করা হবে৷ সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়া পর্যন্ত দেশের জনগণ শেডিউল মেনে নেবে না৷ তিনি বলেন, তারা কালক্ষেপণের মাধ্যমে যে ৩৬ দিন সময় নষ্ট করেছে তা ফিরিয়ে দিতে হবে৷ এতো দিনে আমরা নির্বাচনের মাঠে থাকতাম৷ তিনি নির্বাচনে কালো টাকার ব্যবহার বন্ধের নিশ্চয়তা দাবি করেন৷
বৈঠকে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আবদুল জলিল, আবদুর রাজ্জাক, তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, রাশেদ খান মেনন, হাসানুল হক ইনু, পঙ্কজ ভট্টাচার্য, ওবায়দুল কাদের প্রমুখ৷
সরকারের প্যাকেজ প্রস্তাব সম্পর্কে বিএনপি তথা চারদলীয় জোটের আনুষ্ঠানিক কোনো প্রতিক্রিয়া এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত জানা যায়নি৷ তবে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন সাংবাদিকদের জিজ্ঞাসার জবাবে বলেন, কেয়ারটেকার সরকারের উপদেষ্টারা যদি ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার প্রক্রিয়ায় সহায়তা করতে পারেন তাহলে সেটা ভালো উদ্যোগ৷ আর নির্বাচনের শেডিউলও কিছুটা পরিবর্তন হতে পারে৷ তবে ভোট গ্রহণের তারিখ অবশ্যই ২১ জানুয়ারি ঠিক থাকতে হবে৷
বিএনপি স্থায়ী কমিটির অন্য সদস্য কে এম ওবায়দুর রহমানও সাংবাদিকদের প্রায় একই কথা বলেন৷ তিনি বলেন, ভোটার তালিকা ত্রুটিমুক্ত করার ক্ষেত্রে উপদেষ্টারা যদি কোনো ভূমিকা রাখেন সেটা ভালো৷ আমরা চাই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন৷ কারণ সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপিরই লাভ৷ তবে এ জন্য যা কিছুই করা হোক না কেন তা অবশ্যই সংবিধানের মধ্যে হতে হবে৷

প্যাকেজ প্রস্তাবে যা আছে
০ ২১ জানুয়ারি ভোট গ্রহণের দিন ঠিক রেখে ইলেকশন শেডিউলে রদবদল
০ দুজন নির্বাচন কমিশনার- স ম জাকারিয়া এবং মোদাব্বির হোসেন চৌধুরীকে নির্বাচনকালীন ছুটি
০ ১৪ দলের সম্মতি নিয়ে এক বা একাধিক নতুন নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ
০ ভোটার লিস্টের ভুলত্রুটি সংশোধন
০ গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়গুলোর সচিব বদল

সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=21996&issue=159&nav_id=1

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: