প্যাকেজ প্রস্তাব বাস্তবায়ন করছে কেয়ারটেকার সরকার সরিয়ে দেয়া হয়েছে ক্যাবিনেট সংস্থাপন ও স্বরাষ্ট্র সচিবকে

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলকে ভোটমুখী করতে একের পর এক উদ্যোগের সর্বশেষ প্যাকেজ প্রস্তাব অনুযায়ী গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি মন্ত্রণালয়ের সচিবকে গতকাল সরিয়ে দিয়েছে কেয়ারটেকার সরকার৷ ১৪ দলের রাজনৈতিক দাবি মেটাতে এমনকি জনপ্রশাসনের শীর্ষতম পদ ক্যাবিনেট সচিব আবু সোলায়মান চৌধুরীকে পাঠানো হয়েছে বাধ্যতামূলক অবসরে৷ ওএসডি করা হয়েছে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের সচিবকে৷ আজকালের মধ্যে আরো একাধিক গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের সচিবকে সরিয়ে দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানা গেছে৷
গতকাল বুধবার দিনের প্রথম ভাগেই সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন নিয়োগ শাখা-১ থেকে জারি করা পৃথক পৃথক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে কেয়ারটেকার সরকারের প্যাকেজ প্রস্তাব বাস্তবায়ন শুরু হয়৷ ক্যাবিনেট সচিব আবু সোলায়মান চৌধুরীকে প্রথমে বাধ্যতামূলক অবসর দেয়া হয়৷ পরে তার অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণের সুযোগ দেয়া হলে তিনি নিজেই চাকরিতে ইস্তফা দেন৷ অবশ্য আজকালের মধ্যেই তাকে প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেয়া হতে পারে বলে জানা গেছে৷ তাকে সরিয়ে দেয়ার পর ক্যাবিনেট সচিব পদে বদলি করা হয়েছে প্রধান উপদেষ্টার পৃন্সিপাল সেক্রেটারি আলী ইমাম মজুমদারকে৷ পৃন্সিপাল সেক্রেটারির শূন্যস্থানে গতকাল নতুন কাউকে দেয়া হয়নি৷
অন্য এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের সচিব এ এফ এম সোলায়মান চৌধুরীকে সরিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান করা হয়েছে৷ সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ে গতকাল পর্যন্ত নতুন কাউকে সচিব করা হয়নি৷ স্বরাষ্ট্র সচিব এস এম জহুরুল ইসলামকে পাঠানো হয়েছে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের সচিব পদে৷ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব করা হয়েছে এনবিআর চেয়ারম্যান আবদুল করিমকে৷ এছাড়া পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের সচিব ব্যারিস্টার হায়দার আলীকে সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ে ওএসডি করা হয়েছে৷
পৃথক একটি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের মেম্বার এ টি এম সারোয়ার হোসেনকে প্রেসিডেন্Uরে ১০ শতাংশ কোটায় সচিব পদে পদোন্নতি দিয়ে পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে৷
ছুটি নিয়েছেন সোলায়মান চৌধুরী
এদিকে সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, বদলির আদেশ হাতে পাওয়ার পরপরই সংস্থাপন সচিব এ এফ এম সোলায়মান চৌধুরী ক্ষুব্ধ হয়ে স্বেচ্ছায় চাকরিতে ইস্তফা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন৷ নিজের ঘনিষ্ঠ অফিসারদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, শতভাগ নিরপেক্ষ ও পেশাদার মনোভাব নিয়ে কাজ করার পরও শেষ পর্যন্ত পক্ষপাতিত্বের ভিত্তিহীন অভিযোগে বদলি হওয়ার চেয়ে মান-সম্মান নিয়ে চাকরিতে ইস্তফা দেয়াই ভালো৷ জানা যায়, জনপ্রশাসনে অত্যন্ত সত্, সাহসী ও পেশাদার অফিসার হিসেবে পরিচিত এই সচিব বদলির আদেশ পাওয়ার পর চাকরি ছাড়ার চিঠিও তৈরি করেছিলেন৷
খবরটি জানাজানি হওয়ার পরপরই সোলায়মান চৌধুরীর শুভাকাঙ্ক্ষী কয়েকজন সচিব তার সঙ্গে যোগাযোগ করে তাকে ধৈর্য ধরার পরামর্শ দেন৷ শেষ পর্যন্ত শুভাকাঙ্ক্ষীদের পরামর্শে তিনি তাত্ক্ষণিক চাকরি ছাড়ার পরিবর্তে পাচ দিনের ছুটি নেন৷ পরে সাংবাদিকদের তিনি বলেছেন, ছুটিতে থাকাকালে পরিবারের সদস্য ও বন্ধুদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে তিনি পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=22189&issue=161&nav_id=1

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: