দুই প্রধান দলের মধ্যে আবারও আলোচনার ডাক বিউটেনিসের

চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির সমাধান করতে সমঝোতায় পৌছানোর জন্য দুই প্রধান দলের মধ্যে আবার আলোচনা শুরু করার আহ্বান জানিয়েছেন আমেরিকান অ্যামবাসাডর প্যাটৃসিয়া বিউটেনিস৷
গতকাল রবিবার সিরডাপ মিলনায়তনে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ফর আমেরিকান স্টাডিজ, সংক্ষেপে বিএএএস আয়োজিত ‘ডেমক্রেসি অ্যান্ড বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনারে লিখিত এক প্রবন্ধে তিনি এ কথা বলেন৷ আমেরিকান এমবাসির আমেরিকান সেন্টারের সহায়তায় আয়োজিত এ সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ঢাকা ইউনিভার্সিটির সাবেক প্রক্টর প্রফেসর ড. এ কে এম নুরুন্নবী৷ সেমিনারে আরো বক্তব্য রাখেন অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক তাহমিনা আহমদ৷ বিউটেনিস মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করার পর ছাত্রছাত্রীদের প্রশ্নের উত্তর দেন৷
সেমিনারে তিনি বলেন, এটা দুর্ভাগ্যজনক যে অনড় মনোভাবের কারণে গত সেপ্টেম্বরে দুটি প্রধান দলের মহাসচিব পর্যায়ে সংলাপ ব্যর্থ হয়েছে৷ তবে আলোচনা না হওয়ার চেয়ে দেরিতে হওয়া অনেক ভালো৷ তাদের ছোটখাটো মতপার্থক্য কমাতে প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোকে আবারও নতুন করে আলোচনা শুরু করতে আহ্বান জানাচ্ছি৷ একই সঙ্গে তিনি প্রধান উপদেষ্টাকে নিরপেক্ষ ও সরাসরি কাজ করার আহ্বান জানান৷
তিনি আরো বলেন, নির্বাচন সংক্রান্ত ইসুগুলো মূলত রাজনৈতিক, তার জন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক সমাধান৷ সুষ্ঠু নির্বাচনে সবার অংশগ্রহণের জন্য যে কোনো বাধা দূর করতে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে চুক্তি হতে পারে৷
তিনি হরতালকে সেকেলে, সংঘাতময় ও অগণতান্ত্রিক হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, যে কোনো দলের আহূত হরতালকে আমেরিকার সরকার বিরোধিতা করে৷ ঔপনিবেশিক যুগের সংগ্রাম শেষ হয়ে গেছে৷ তিনি আরো বলেন, আমরা দেশব্যাপী যানবাহন অবরোধ করাকেও বিরোধিতা করি৷ এতে অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হয়, লাখ লাখ মানুষের স্বাধীনভাবে চলাফেরা করার মৌলিক মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়৷ লক্ষ্য অর্জনের জন্য রাস্তায় নয়, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া চর্চা করতে আমরা আবারও রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি৷ তার মতে, গত কয়েক দিনে অবরোধ ও অবরোধের হুমকি স্থগিত রাখার বিষয়টি একটি ইতিবাচক অগ্রগতি৷
তিনি আরো বলেন, কেয়ারটেকার সরকারের চার উপদেষ্টার পদত্যাগ একটি চরম হতাশাজনক ঘটনা৷ তারা ছিলেন আন্তরিক, দক্ষ ও দেশপ্রেমিক ব্যক্তি৷ তিনি আশা প্রকাশ করেন, প্রধান উপদেষ্টা ও নতুন উপদেষ্টারা একটি ইতিবাচক নির্বাচনী ফ্রেমওয়ার্ক তৈরি করে কাজ করে যাবেন৷
তিনি আরো বলেন, কেয়ারটেকার সরকারের চেতনা হচ্ছে নিরপেক্ষভাবে কাজ করা৷ সেনাবাহিনী, রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত মিডিয়া ও পুলিশের দৃশ্যমান কাজ এবং কার্যকর আচরণের ওপর কেয়ারটেকার সরকারের গ্রহণযোগ্যতা নির্ভর করছে৷ তবে দুর্ভাগ্যজনকভাবে কেয়ারটেকার সরকার সব সময় নিরপেক্ষভাবে কাজ করতে পারেনি৷ এর ফলে দুর্ভোগের শিকার হয়েছে জাতি৷ বিউটেনিস বলেন, এর মধ্যেও আশার কথা যে, ইয়াজউদ্দিন তার উপদেষ্টাদের পরামর্শ শুনতে শুরু করেছেন৷
নির্বাচন কমিশনে বিতর্কিত ব্যক্তিদের নিয়োগ দেয়া হচ্ছে এবং কমিশনারের সম্ভাব্য ছুটিতে যাওয়া প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে বিউটেনিস বলেন, এ প্রশ্নের উত্তর দেয়ার মতো তথ্য আমার কাছে নেই৷
বিউটেনিস আরো বলেন, নির্বাচন কমিশনকে ঘিরেই মূল বিতর্ক আবর্তিত হচ্ছে৷ তাই আমার ধারণা, প্রধান দুই দলের কাছে গ্রহণযোগ্য প্রার্থীদেরই নির্বাচন কমিশনের জন্য খুজে দেখা হচ্ছে৷
তিনি বলেন, একটি গ্রহণযোগ্য ও সফল নির্বাচনের জন্য ব্যাপক হুমকি হচ্ছে নির্বাচনের আগের সপ্তাহগুলোতে সংঘাত৷ সংঘাতময় কোনো পরিস্থিতির উদ্ভব হলে তা সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রণের জন্য সব রাজনৈতিক দলের কাছে আহ্বান জানাচ্ছি৷
আমেরিকান অ্যামবাসাডর বলেন, সিভিল সোসাইটি এবং কিছু রাজনৈতিক দল নির্বাচনী ব্যবস্থা উন্নয়নের জন্য প্রস্তাব করেছে৷ এর মধ্যে কিছু আছে দীর্ঘমেয়াদি প্রস্তাব এবং এ নির্বাচনের তুলনায় পরবর্তী নির্বাচনকে আরো সুষ্ঠু করতে প্রস্তাবগুলো গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা যেতে পারে৷
তিনি জানান, ১০ হাজারের বেশি বাংলাদেশি এবং শতাধিক বিদেশি পর্যবেক্ষক আসন্ন নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবেন৷ আমেরিকা থেকে আসা ৯০ জন পর্যবেক্ষকসহ অনেক বিদেশি পর্যবেক্ষক দীর্ঘ সময় ধরে পর্যবেক্ষণে থাকবেন৷ আমেরিকার ন্যাশনাল ডেমক্রেটিক ইন্সটিটিউটের ১৩ জন পর্যবেক্ষক ইতিমধ্যে বাংলাদেশে এসেছেন এবং নির্বাচনের এক সপ্তাহ পর পর্যন্ত তারা অবস্থান করবেন৷
বিউটেনিস বলেন, বাংলাদেশের আগামী নির্বাচনের প্রতি আমেরিকার সরকারের গভীর আগ্রহ আছে৷ কারণ বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি ইসুই নির্ভর করছে একটি সফল নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার ওপর৷ বাংলাদেশে গণতন্ত্রের ভবিষ্যত্, উগ্রতার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের নম্র আচরণ, বাংলাদেশ ও সামগ্রিকভাবে দক্ষিণ এশিয়ার স্থিতিশীলতা, অর্থনীতির দ্রুত উন্নতি ও দারিদ্র্যসীমা কমিয়ে আনা, দুর্নীতিকে আক্রমণ করা, সন্ত্রাস ও সহিংসতা দমন করা এবং সব মিলিয়ে বাংলাদেশের জনগণের জন্য একটি সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা- এসবই নির্ভর করছে একটি সফল ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করার ওপর৷
বিউটেনিস বলেন, কোন দেশপ্রেমিক ব্যক্তি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন সে বিতর্কের বদলে আগামী নির্বাচন ভবিষ্যতের জন্য একটি প্লাটফর্ম তৈরি করবে৷ তিনি বলেন, আমি কোনো ঐতিহাসিক সত্যকে খাটো করতে চাই না৷ তবে এখানে আসার পর আমি অবাক হয়ে লক্ষ্য করেছি, অধিকাংশ বিতর্ক ও আলোচনাই হয় অতীতকে ঘিরে- ভবিষ্যত্ সম্পর্কে নয়৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=23038&issue=168&nav_id=1

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: