সেনাবাহিনীর বিশেষ অভিযান শুরু নীলফামারী সৈয়দপুর লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রামে আটক ১১

বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তার অংশ হিসেবে গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে দেশের বিভিন্ন স্থানে সেনাবাহিনীর বিশেষ অভিযান শুরুর খবর পাওয়া গেছে৷  এসব অভিযানে কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, সৈয়দপুর ও লালমনিরহাটে মোট ১১ জনকে আটক করা হয়৷ তাদের মধ্যে বিএনপি, আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির নেতাকর্মী ছাড়াও একাধিক পৌর কমিশনার রয়েছেন৷ এ ছাড়াও সেনাবাহিনী আটকের উদ্দেশ্যে এসব শহরের বিভিন্ন বাড়িতে তল্লাশি চালায়৷ যায়যায়দিনের প্রতিনিধদের পাঠানো খবর :
কুড়িগ্রামে গত বৃহস্পতিবার রাতে সেনা সদস্যরা জেলা জাতীয় পার্টি ও জেলা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্টৃজের সভাপতি চৌধুরী সফিকুল ইসলাম এবং জাতীয় শ্রমিক লীগের জেলা সভাপতি শ্রমিক নেতা আবদুল করিম মধুর বাড়িতে তল্লাশি চালায়৷ এ সময় জেলা বিএনপির ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক সামিউর রহমান হীরা ও পৌর যুবলীগ সদস্য আসাদুজ্জামান জুয়েলকে আটক করা হয়৷ অভিযানে সেনাবাহিনীর সঙ্গে সদর থানার একটি পুলিশ দলও অংশ নেয়৷
বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে কুড়িগ্রামে ৮ম ইঞ্জিনিয়ার ব্যাটালিয়নের সেনা সদস্যরা পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে জেলা জাপা সভাপতির বাড়িতে তল্লাশি শুরু করে৷ ভোর সাড়ে ৪টার দিকে তল্লাশি শেষ হয়৷ এ সময় জাপা সভাপতি বাসায় ছিলেন৷ তিনি কুড়িগ্রাম-২ (সদর, ফুলবাড়ী ও রাজারহাট) আসনের সাবেক এমপি এবং জাপা প্রেসিডিয়ামের সদস্য আলহাজ তাজুল ইসলাম চৌধুরীর ছোট ভাই৷ গত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে অপারেশন ক্লিনহার্টের সময় প্রথম দিনে তার বাসায় সেনা সদস্যরা অভিযান চালিয়েছিল৷ তার বাসা থেকে সেনা সদস্যরা তল্লাশির সময় কিছু জব্দ করেছে কি না সে সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি৷ পাশাপাশি শহরের মোল্লাপাড়ার বাসায় তল্লাশির পর সামিউর রহমান হীরাকে এবং ডাকবাংলো পাড়ার বাসা থেকে আসাদুজ্জামান জুয়েলকে আটক করা হয়৷ এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সার্কিট হাউসের সেনা ক্যাম্পে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছিল৷
নীলফামারীতে গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে উপজেলা সদর সৈয়দপুরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে সেনা সদস্যরা সৈয়দপুর পৌরসভার এক কমিশনারসহ চারজনকে আটক করেছে৷ শহরের দালুম উলুম মাদ্রাসা এলাকার বাসা থেকে কমিশনার মামুন, একই এলাকার জহুরুল ইসলাম খোকন ও তার ভাই রোকন এবং বাবুপাড়া এলাকার বাসা থেকে শাহিন নামে চারজনকে আটক করা হয়৷ এ চারজনের পরিবার থেকে জানানো হয় গভীর রাতে সেনা সদস্যরা তাদের আটক করে সৈয়দপুর থানায় নিয়ে যায়৷ এ ব্যাপারে সৈয়দপুর থানায় যোগাযোগ করা হলে সেকেন্ড অফিসার আবদুল মোমিন কি কারণে তাদের সেনাবাহিনী আটক করেছে তা জানাতে পারেননি৷ তবে তাদের বিরুদ্ধে থানায় কোনো মামলা নেই বলে জানান৷
এদিকে সৈয়দপুরে গতকাল শুক্রবার সেনাবাহিনী যুবদল নেতা ও পৌর কমিশনারসহ চারজনকে আটক করে থানায় সোপর্দ করেছে৷ মহাজোটের হরতাল শেষে গভীর রাতে তাদের বাড়ি থেকে তুলে নেয়া হয়৷ এছাড়া কয়েকজনের বাড়িতে গেলেও তাদের ধরতে পারেনি৷ ওই সময় তারা কেউ বাড়িতে ছিলেন না৷
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে শহরে টহলরত সেনাবাহিনীর একটি পিকআপ দারুল উলুম এলাকা থেকে খোকন (২৭), তার ছোট ভাই রোকন (২৪), গার্ডপাড়া থেকে বিএনপি নেতা শাহীন (৩০) ও যুবদল নেতা পৌর কমিশনার মামুনকে (৩২) বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে আসে৷ এছাড়া সেনা সদস্যরা বাশবাড়ী এলাকায় পৌর কমিশনার ও আওয়ামী লীগ নেতা সরকার মুহাম্মদ কবিরউদ্দিন ইউনুছ ও মিস্ত্রিপাড়া এলাকায় পৌর কমিশনার আবুল কাশেম সরকার দুলু ও জামিল নামে তিনজনের বাড়িতে অভিযান চালায়৷ কিন্তু তারা বাড়িতে ছিলেন না৷
বৃহস্পতিবার রাতে সেনাবাহিনী লালমনিরহাট জেলা শহরের সাহেবপাড়া বড় মসজিদ এলাকায় অভিযান চালিয়ে যুবদল কর্মী আশরাফুল আলম শাম্পানকে (৩৩) আটক করেছে৷ অবৈধ অস্ত্রধারী সন্দেহে তাকে আটকের পর সেনা সদস্যরা শহরের বেশ কয়েকটি এলাকায় অভিযান চালায়৷ উল্লেখ্য, অপারেশন ক্লিনহার্টের সময় তিনি বেশ কিছুদিন আটক ছিলেন৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=23586&issue=173&nav_id=1

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: