অবরোধ শুরু তাই রাজধানীমুখী জনস্রোত দীর্ঘ যানজটে মহাসড়কে মহাদুর্ভোগ

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া থেকে ভোরে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন উসমান আলী৷ তার সঙ্গে স্ত্রী ও তিন ছেলেমেয়ে৷ উল্লাপাড়া বাস টার্মিনালে চার থেকে পাচ ঘণ্টা ঘোরাঘুরি করে একটি বাসের একটি টিকেট পেলেও স্ত্রী সন্তানদের দাড়িয়ে নিয়ে আসতে হয় তাকে৷ রাত সাড়ে ৭টার সময় তাদের বাস যানজট পেরিয়ে সাভার পর্যন্ত পৌছে৷ সাভার এসে উসমান আলী ঘণ্টার পর ঘণ্টা বাসে দাড়িয়ে না থেকে পুটলা-পাটলি নিয়ে ঢাকার আগারগাওয়ের দিকে হেটে রওনা দেন৷ আওয়ামী লীগ মহাজোটের ডাকে আজ ও আগামীকাল টানা দু’দিনের অবরোধ থাকায় গতকাল যানবাহন সঙ্কটে ঈদ শেষে কর্মস্থলগামী হাজার হাজার যাত্রীকে পোহাতে হয় এ রকম দুর্ভোগে৷ দেশের সব ক’টি রাস্তায় ঢাকা ফেরা লোকজনের ঢল নামে৷ এদিকে প্রয়োজনীয় পরিবহন সঙ্কটের কারণে টার্মিনালগুলোতে প্রচণ্ড শীতের মধ্যে যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়েছে৷ বিভিন্ন এলাকার স্থানীয় সড়কে চলাচলকারী লক্কর-জক্কর ফিটনেসহীন বাসগুলো মহাসড়ক দিয়ে ঢাকাগামী হওয়ায় সড়কে মহাজামের সৃষ্টি হয়৷ যমুনা বৃজ থেকে সাভার পর্যন্ত, কুমিল্লার চান্দিনা থেকে শনিরআখড়া পর্যন্ত ও মাওনা চৌরাস্তা থেকে মহাখালী পর্যন্ত তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়৷ এ সড়কের কোথাও কোথাও ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়৷

বাস, রেল ও নৌ টার্মিনালগুলোতে ঢাকায় ফেরা লোকজনের ছিল উপচে পড়া ভিড়৷ যে যেভাবে পারছে কর্মস্থলে ফিরে আসছে৷ কোথাও তিল ধারণের ঠাই ছিল না৷ তবে ঢাকায় ফিরতে তাদের পড়তে হয়েছে সীমাহীন বিপাকে৷
গতকাল শীতের তীব্রতা কিছুটা কমলেও ঘন কুয়াশায় ঢাকা ছিল সারা দেশের মাঠ-ঘাট৷ গতকাল দুপুরের আগে সূর্যের দেখা মেলে দেশের অধিকাংশ স্থানে৷ প্রবল শৈত্যপ্রবাহের কারণে নিদারুণ দুর্ভোগে পড়েন খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ৷
ঘন কুয়াশার কারণে কয়েকটি ফেরিঘাটে দুর্ভোগে আটকা পড়ে হাজার হাজার মানুষ৷ এদিকে কুয়াশার কারণে চাদপুরে শতাধিক লঞ্চ আটকা পড়ে৷ পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে প্রায় ১০ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ হয়ে থাকে৷ ফলে ঈদ ফেরত মানুষ চরম দুর্ভোগের শিকার হয়৷ বিআইডাবলিউটিসি জানায়, ঘন কুয়াশার কারণে বেশ কিছু নৌযান মাঝ নদীতে আটকে যায়৷ কুয়াশার কারণে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হয় সকাল সাড়ে ১০টার দিকে৷ এ সময় ফেরি ঘাটের উভয় তীরে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে৷
অবরোধের পর দেশের রাজনীতির প্রেক্ষাপট কি হবে তা নিয়ে উদ্বেগ থাকায় গতকালই বেশিসংখ্যক লোক রাজধানীতে ফিরে আসে৷ প্রচণ্ড শীতের মধ্যে এসব যাত্রীকে যানবাহনের জন্য দাড়িয়ে থাকতে হয় ৮-১০ ঘণ্টা৷ হবিগঞ্জ থেকে আসা যাত্রী সায়দুর রহমান বলেন, আওয়ামী লীগ ঘোষণা দিয়েছিল বঙ্গভবনে অবরোধ কর্মসূচি পালন করবে৷ তাদের দেয়া কথা না রেখে আবার সারা দেশে অবরোধ দিয়ে মানুষকে হয়রানি করছে৷ এ সময় আরো কয়েকজন যাত্রী বলেন, দেশের একজন মানুষ অবরোধ চায় না৷ তারপরও আওয়ামী লীগ অবরোধ করছে৷ হয়তো তারা লাগাতার কর্মসূচিও ঘোষণা করতে পারে তাই অনেক কষ্ট করে ঢাকায় ফিরছি৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=25089&issue=185&nav_id=1

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: