জাতীয় পার্টির সংবাদ সম্মেলন প্রথম আলো বন্ধ করতে সেনাবাহিনীকে অনুরোধ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও উদ্দেশ্যমূলক রিপোর্ট প্রকাশের কারণে প্রথম আলো পত্রিকাটি বন্ধের দাবি জানিয়েছে জাতীয় পার্টি৷ গতকাল মঙ্গলবার বনানীর দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার এ দাবি জানান৷
উল্লেখ্য, প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান পত্রিকার ১৫ জানুয়ারি সংখ্যায় নিজ নিজ জোটে পেতে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ এরশাদকে কোটি টাকার ঘুষ দেয়ার অভিযোগ তোলেন৷ রিপোর্টে বলা হয়, স্বৈরশাসক এরশাদকে পেতে আওয়ামী লীগ সাড়ে তিন কোটি টাকা দিয়েছে৷ একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার কাছেও এর তথ্য আছে বলে রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়৷
জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, প্রথম আলোর এ রিপোর্টটি মিথ্যা, অতিরঞ্জিত ও উদ্দেশ্যমূলক৷ তিনি এ ধরনের মিথ্যা রিপোর্ট ছাপার জন্য প্রথম আলো বন্ধ করে দিতে সেনাবাহিনীকে অনুরোধ জানান৷ তিনি বলেন, রিপোর্টটি এরশাদ ও জাতীয় পার্টির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার উদ্দেশ্যেই প্রকাশিত হয়েছে৷
জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জিয়াউদ্দিন বাবলুও রুহুল আমিন হাওলাদারের বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়ে বলেন, রিপোর্টটির বিরুদ্ধে জাতীয় পার্টি থেকে প্রতিবাদপত্র পাঠানো হলেও তা প্রকাশ করা হয়নি৷ জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর আরেক সদস্য কাজী জাফর আহমদ প্রথম আলোর এ রিপোর্টকে রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে কূত্সা রটনার অপরাধের সমতুল্য বলে মন্তব্য করেন৷ তিনি বলেন, বিএনপি, আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টিকে জনগণের কাছে হেয় করার জন্যই প্রথম আলো উঠেপড়ে লেগেছে৷ তিনি বলেন, প্রথম আলোর উদ্দেশ্য জনগণের সামনে দেশের রাজনীতিবিদদের ভাবমূর্তি ধ্বংস করা৷
আজ ১৭ জানুয়ারি জাপানিজ নৌযান ক্রয় দুর্নীতি মামলায় এরশাদের আদালতে আত্মসমর্পণের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে কাজী জাফর বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ আইন বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করছেন৷ আশা করি তাকে আদালতে আত্মসমর্পণ করতে হবে না৷
তিনি আরো বলেন, দেশে জরুরি অবস্থা জারির মেয়াদকালের তিন মাসের মধ্যেই নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন চায় জাতীয় পার্টি৷ তবে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টির জন্য আরো কিছু সময় লাগলেও তাতে সম্মতি জানিয়েছে জাতীয় পার্টি৷
সংবাদ সম্মেলনে বিদেশি কূটনীতিক ও জাতিসংঘকে অভিনন্দন জানিয়ে বলা হয়, তাদের হস্তক্ষেপের ফলে দেশে দ্রুত রাজনৈতিক পট পরিবর্তন হয়েছে৷ সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় জানিয়েছে দেশে সব দলের অংশগ্রহণ ছাড়া কোনো নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না৷ এ অবস্থায় প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ দেশে জরুরি অবস্থা জারি করে রাজনৈতিক সঙ্কট উত্তরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন৷ এছাড়া রাজনৈতিক সহিংসতা নিরসনে সেনাবাহিনীর ভূমিকারও প্রশংসা করা হয় সংবাদ সম্মেলনে৷
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আমরা নির্ভুল ভোটার তালিকা, নির্বাচন কমিশনের সংস্কার, ভোটার আইডি কার্ড ও স্বচ্ছ ব্যালট বক্সের দাবি করছি৷ এ দাবি পূরণ করতে যতোই সময় লাগুক তা আমরা দিতে প্রস্তুত৷ তিনি বলেন, ত্রুটিযুক্ত নির্বাচনের চেয়ে দেরিতে হলেও ত্রুটিমুক্ত নির্বাচন অনেক ভালো৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=26265&issue=195&nav_id=7

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: