অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী পদত্যাগ করলেন

রাষ্ট্রের প্রধান আইনজীবী অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী পদত্যাগ করেছেন৷ গতকাল বুধবার একান্ত সচিবের মাধ্যমে তিনি প্রেসিডেন্Uরে কাছে তার পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন বলে অ্যাটর্নি জেনারেল অফিস সূত্রে জানা যায়৷
অ্যাটর্নি জেনারেলের পদত্যাগের কারণ সম্পর্কে তার জুনিয়র আইনজীবী মোঃ সালেহউদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, মি. আলী ব্যক্তিগত কারণে পদত্যাগ করেছেন৷ পদত্যাগপত্রটি প্রেসিডেন্ট গ্রহণ করেছেন কি না সে সম্পর্কে তিনি কিছু বলতে পারেননি৷ এ জে মোহাম্মদ আলী সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানালে তার জুনিয়র তার পক্ষে এসব কথা বলেন৷
জানা যায়, নতুন অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে ব্যারিস্টার আখতার ইমামের নাম আইন মন্ত্রণালয় থেকে প্রস্তাব করা হয়েছে৷ মন্ত্রণালয়ের প্রাথমিক অনুমোদনের পর প্রেসিডেন্ট এতে চূড়ান্ত অনুমোদন দেবেন৷
সংবিধানের ৬৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট সুপৃম কোর্টের বিচারক হওয়ার যোগ্য কোনো ব্যক্তিকে রাষ্ট্রের পক্ষে দেশের যে কোনো আদালতে বক্তব্য রাখার জন্য অ্যাটর্নি জেনারেল নিয়োগ দেন৷ সংবিধানে উল্লিখিত পদ হলেও অ্যাটর্র্নি

জেনারেল পদটি সাংবিধানিক পদ নয়৷ এ পদে দায়িত্ব গ্রহণ করতে শপথ নিতে হয় না৷ এ কারণেই ৬৪(৪) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতির সন্তোষানুযায়ী সময়সীমা পর্যন্ত অ্যাটর্নি জেনারেল স্বীয় পদে বহাল থাকিবেন এবং রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নির্ধারিত পারিশ্রমিক লাভ করিবেন৷
এ প্রসঙ্গে এক আইনজীবী বলেন, রাষ্ট্রের কোনো কর্মচারীর পদত্যাগ তার ব্যক্তিগত অধিকার৷ যে কোনো সময় তিনি পদত্যাগ করতে পারেন৷
সংবিধানের সংশ্লিষ্ট অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট ২০০৫ সালের ৩০ এপৃল এ জে মোহাম্মদ আলীকে অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে নিয়োগ দেন৷ তার আগের অ্যাটর্নি জেনারেল এ এফ হাসান আরিফ ২৮ এপৃল পদত্যাগ করেন৷ এ জে মোহাম্মদ আলী সুপৃম কোর্টের একজন সিনিয়র আইনজীবী৷ তার পিতা এম এইচ খন্দকার বাংলাদেশে প্রথম অ্যাটর্নি জেনারেল ছিলেন৷
অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসে বর্তমানে ১১৭ জন আইন কর্মকর্তা আছেন৷ তারা হলেন- একজন অ্যাটর্নি জেনারেল, দুইজন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল, ৩৮ জন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ও ৭৬ জন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল৷
এ জে মোহাম্মদ আলীর পদত্যাগ প্রসঙ্গে বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক জয়নুল আবেদীন বলেছেন, অ্যাটর্নি জেনারেল দলীয় নিয়োগপ্রাপ্ত লোক৷ এখন ক্ষমতায় তত্ত্বাবধায়ক সরকার৷ তিনি তাই পদত্যাগ করে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷ অন্যায় কিছু করেননি৷ তিনি মনে করেন, বিচার বিভাগ স্বাধীন থাকা বেশি প্রয়োজন৷
সুপৃম কোর্ট বারের সাবেক সভাপতি ব্যারিস্টার সফিক আহমেদ বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠনের পর বিচার বিভাগের নিরপেক্ষতা নিশ্চিত করার জন্য অনেক আগেই অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলীর পদত্যাগ করা উচিত ছিল৷ চারদলীয় জোটের এজেন্ডা মতো কাজ বাস্তবায়নের জন্য তিনি এতোদিন পদটি ধরে রেখেছেন৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=27157&issue=203&nav_id=1

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: