রাজধানীতে আ’লীগ নেতা টিংকু ও কমিশনার সাঈদ বেপারী আটক গিয়াসউদ্দিন মামুন ও ডিপজলের খোজে পঞ্চগড়ে অভিযান

ঢাকা সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কমিশনার আবু সাঈদ বেপারীকে যৌথ বাহিনী আটক করেছে৷ দিলু রোডের বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর সাত্তার টিংকুকে৷ আরেক ওয়ার্ড কমিশনার ডিপজল এবং ব্যবসায়ী গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের খোজে পঞ্চগড়ের এক কারখানায় অভিযান চালানো হয়েছে৷
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, যৌথ বাহিনী গতকাল ভোরে অভিযান চালায় মগবাজার দিলু রোডে অবস্থিত আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর সাত্তার টিংকুর বাসায়৷ তাকে গ্রেফতারের পর যৌথ বাহিনী ধানমন্ডি ৫ নাম্বার রোড থেকে গ্রেফতার করে টিংকুর ব্যবসায়িক পার্টনার মশিউর ও আবদুর রাজ্জাককে৷ রাত ২টা থেকে ভোর সাড়ে ৩টা পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালনা করে৷ টিংকুসহ গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে টেন্ডার বাণিজ্যসহ নানা অপরাধের৷
একই রাতে যৌথ বাহিনী মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা সিটি করপোরেশনের ৪৬ নাম্বার ওয়ার্ড কমিশনার আবু সাঈদ বেপারীকে৷ কমিশনার সাঈদ বেপারীর ছেলে শামীমকেও খুজছে যৌথ বাহিনী৷ তাদের বিরুদ্ধে দুটি হত্যা মামলা, চাদাবাজি, ভূমি দখলসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে৷
সাঈদ বেপারীর আটক প্রসঙ্গে মোহাম্মদপুর থানা গত রাত পর্যন্ত কিছুই অবগত নয় বলে ডিউটি অফিসার জানিয়েছেন৷ অন্যদিকে সাঈদ বেপারীর কন্যা গত রাত ৮টায় জানান, আব্বুর কোনো সংবাদ জানি না৷ তার মোবাইল বন্ধ পাচ্ছি৷ পরিবার সদস্যদের সঙ্গে তার কোনো যোগাযোগ হয়নি৷
ইউএনবি জানায়, আর্মি ও র‌্যাবের যৌথ একটি দল পঞ্চগড়ের ধাক্কামারায় মার্শাল ডিস্টিলারিজে অভিযান চালায় ডিপজল ও গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের খোজে৷ বিকাল ৫টা থেকে দুই ঘণ্টা ঘিরে রাখে ওই কারখানা এবং আশপাশের এলাকা৷ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় কারখানার লোকজনকে৷ তবে শেষ পর্যন্ত অভিযান সফল হয়নি৷
জানা যায়, মামুনের মালিকানাধীন ওই কারখানায় গত ১২ জানুয়ারি কয়েকটি দামি গাড়ি আসতে দেখে সৃষ্ট সন্দেহ থেকে এ অভিযান চালানো হয়৷
চলমান অভিযানের অংশ হিসেবে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে পুলিশ গ্রেফতার করেছে চার তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসীসহ ২৮৯ জনকে৷ পুরনো ঢাকা থেকে গোয়েন্দা পুলিশ দুটি অস্ত্রসহ এক মহিলা সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে৷
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম মঙ্গলবার অভিযান চালায় লালবাগ থানাধীন আজিমপুর এলাকায়৷ সেখানে ১/২/বি নাম্বার বাড়ির নিচতলা থেকে গ্রেফতার করা হয় রুকসানা বেগম (৩৬) নামে এক মহিলাকে৷ সে একটি সন্ত্রাসী গ্রুপের সদস্য বলে পুলিশ জানিয়েছে৷ তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী বাসার আলমারি তল্লাশি করে পাওয়া গেছে ছয় চেম্বারের একটি বিদেশি রিভলভার ও একটি ওয়ান শুটারগান এবং চারটি বিভিন্ন অস্ত্রের ম্যাগাজিন ও ১৪ রাউন্ড গুলি৷ এ গ্রুপটির কাছে আরো অস্ত্র রয়েছে বলে পুলিশ ধারণা করছে৷ রুকসানাকে জিজ্ঞাসাবাদের পাশাপাশি পুলিশ অন্য অস্ত্রধারীদের গ্রেফতারে অভিযান চালাচ্ছে৷ গ্রেফতারকৃত রুকসানার স্বামীর নাম বাবুল মিয়া৷ তাদের বাসা লালবাগের গোরাশহীদ মাজার গলিতে৷
এদিকে উত্তরা থানা পুলিশ অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে মোহাম্মদ হালিম নামে এক ছিনতাইকারীকে৷ সোমবার বিকালে হালিম সহযোগীদের নিয়ে উত্তরা ৬ নাম্বার সেক্টর এলাকার বাসিন্দা জহির উদ্দিন খান মিন্টুর ২ লাখ ২০ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে৷ তারা মিন্টুকে গুলি করে টাকার ব্যাগ নিয়ে পালানোর সময় হালিম ধরা পড়ে যায়৷ তার সহযোগী মোটরসাইকেলে পালিয়ে গেছে৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=27149&issue=203&nav_id=1

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: