দুই সহস্রাধিক গ্রেফতার

রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে সশস্ত্র বাহিনী অভিযান চালিয়ে শুক্রবার ভোর পর্যনত্দ ৪৮ জনকে গ্রেফতার করে। একই সময় পর্যনত্দ পুলিশ ও র্যাব অভিযান চালিয়ে ২ হাজার ৫৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। অস্ত্র ২৩টি ও গুলি ৩৭৬ রাউন্ড উদ্ধার করে। সশস্ত্র বাহিনী, পুলিশ ও র্যাব ২৪ ঘন্টায় সর্বমোট ২ হাজার ১০১ জনকে গ্রেফতার করে। এদের মধ্যে রাজধানীর রয়েছে ২৭৭ জন।

সশস্ত্র বাহিনী সিলেট মহানগরে অভিযান চালিয়ে ওয়ার্ড কমিশনার আজাদুর রহমানকে গ্রেফতার করে। তিনি ঐ মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক। এদিকে বরিশালে সর্বহারার আঞ্চলিক নেতা ইউপি চেয়ারম্যান জাফর মোলস্না গ্রেফতার হয়েছে। বরগুনায় সেনাবাহিনীর হাতে এক সেনা সদস্য গ্রেফতার হয়েছেন। কলারোয়ায় গ্রেফতার হয়েছে শীর্ষ সন্ত্রাসী কেসি আজাদ। পটিয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান ও পাকুন্দিয়ায় ইউপি মেম্বারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রাজবাড়ীতে সর্বহারা গোপাল বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড গ্রেফতার হয়েছে। সেনবাগেও এক মহিলাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সখীপুরে সেনাবাহিনীর এক অবসরপ্রাপ্ত অনারারী ক্যাপ্টেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ভোলার লালমোহন উপজেলায় যৌথবাহিনী অভিযান চালিয়ে বোমা তৈরির সরঞ্জামসহ ১৯ জনকে গ্রেফতার করে। তাদের মধ্যে জয়নব বিবি নামে এক মহিলা রয়েছে। তার স্বামী জসিম পলাতক।

কক্সবাজার সদর উপজেলার ইছাখালী গ্রামে অস্ত্রসহ গৃহবধূ রেনুয়ারা বেগম রেনুকে গ্রেফতার করে।

সশস্ত্র বাহিনীর অভিযানের পাশাপাশি পুলিশ ও র্যাব সক্রিয়ভাবে অভিযান অব্যাহত রাখায় তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী ও তাদের গডফাদাররা গা-ঢাকা দিয়েছে। সশস্ত্র বাহিনী কোন কোন গডফাদারের বাসায় কিংবা সম্ভাব্য অবস্থানে একাধিকবার অভিযান চালায়।

পুরাতন ঢাকার গডফাদার হিসেবে পরিচিত এক প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা চকবাজার এলাকায় টয়লেট গুঁড়িয়ে দিয়ে মার্কেট করার প্রস্তুতি নিয়েছে। এই নিয়ে চকবাজার এলাকার কয়েক হাজার ব্যবসায়ীর মধ্যে ৰোভ দেখা দেয়। এই জায়গা দখলের সঙ্গে কতিপয় ওয়ার্ড কমিশনারও জড়িত। সশস্ত্র বাহিনীর অভিযানের কারণে ঐ রাজনৈতিক নেতা ও ওয়ার্ড কমিশনাররা আত্মগোপনে থাকলেও দখল অভিযান চলছে বলে ব্যবসায়ীদের অভিযোগ। এদিকে অভিযানের ফলে কাঁচাবাজারসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী নিয়ন্ত্রণকারী সিন্ডিকেট লুকিয়েছে। কিন্তু তাদের কার্যক্রম বন্ধ হয়নি।

চট্টগ্রাম অফিস ।। বৃহত্তর চট্টগ্রামে যৌথ বাহিনীর চলমান অভিযানে রাউজান উপজেলার উত্তর গুজরা এলাকার দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী মো. রাশেদ, ফটিকছড়ি উপজেলার জাফতনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নাজিমুদ্দিনসহ ১২ জন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযানকালে রাশেদের কাছে পাওয়া যায় ১টি পাইপগান ও ১টি ধারালো কিরিচ। নাজিমুদ্দিন চেয়ারম্যানের কাছে পাওয়া যায় ১টি অকেজো রিভলবার। গত দু’দিনের অভিযানে চট্টগ্রাম ও খাগড়াছড়ি জেলায় ৫ জন করে, রাঙামাটির পার্বত্য জেলা ১ জন এবং কক্সবাজারে ১ জনকে গ্রেফতার করা হয়। চট্টগ্রাম জেলায় গ্রেফতারকৃত অন্য সন্ত্রাসীরা হলো লোহাগাড়া উপজেলার লোহারদীঘির পশ্চিমপাড় এলাকার আবু সৈয়দ চৌধুরী (৩২), সাতকানিয়া উপজেলার পুরানগড় এলাকার আলমগীর লিটন, রাঙ্গুনিয়া উপজেলার রাজানগর এলাকার মো. ইউসুফ নিয়াজি।

পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ি থেকে গ্রেফতারকৃতরা হলো মানিকছড়ি উপজেলার গুইমারা এলাকার মো. তারিক হোসেন (১৬) ও মো. ইসমাইল হোসেন (২৫), একই উপজেলার গাড়ীটানা এলাকার মো. মনজুর হোসেন (২০), মো. মঞ্জুর হক (২৫) ও মো.আবুল কালাম (২৫)। এছাড়া রাঙামাটি কাঁঠালতলী এলাকার মো. দিদারম্নল আলম ও কক্সবাজার ভারম্নয়াখালী এলাকার মো. আলাউদ্দিন খোকন (৩০) যৌথ বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হয়েছে।

বরিশাল অফিস ।। বরিশাল ও ঝালকাঠির পুলিশ ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামীসহ ২১ জনকে গ্রেফতার করেছে। বৃহস্পতিবার কোতয়ালী পুলিশ নগরীর বগুরা রোডে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করে অপহরণ মামলার আসামী বশিরম্নজ্জামানকে। সম্প্রতি সে ৭ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে অপহরণ করে। ঐ ছাত্রীকে এখন পর্যনত্দ উদ্ধার করা যায়নি। নগরীর পশ্চিম কাউনিয়া থেকে গ্রেফতার করা হয় সজীবকে। এছাড়া সদর উপজেলার টুমচরে অভিযান চালিয়ে খলিল ফরাজী, আইউব, রফিক, রাজ্জাক ও আব্দুল গণি, ভেদুরিয়া থেকে শহিদুল ও নূর আলমকে গ্রেফতার করা হয়। এদিকে ঝালকাঠি পুলিশ উপজেলার রমানাথপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে ১০ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী হারম্নন অর রশিদকে গ্রেফতার করে। ১৯৯০ সালের ৭ মে একটি প্রতারণা মামলায় তার ১০ বছরের সাজা হয়। এছাড়া ঝালকাঠি সদর উপজেলা থেকে ৩ জন, রাজাপুর থেকে ৪ জন ও নলছিটি থেকে ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়। সর্বহারা কামরম্নল গ্রম্নপের আঞ্চলিক নেতা ও উজিরপুরের সাতলার ইউপি চেয়ারম্যান জাফর মোলস্নাকে র্যাব-১ ঢাকা থেকে গ্রেফতার করেছে। র্যাব হাইকোর্ট এলাকায় অভিযান চালিয়ে এডভোকেট আতিকুর রহমানের চেম্বার থেকে তাকে গ্রেফতার করে। ঐ রাতেই জাফর মোলস্নাকে এখানে র্যাব-৮’র কাছে হসত্দানত্দর করা হয়। জাফর মোলস্না সম্প্রতি জিয়া গ্রম্নপের আঞ্চলিক নেতা ও জলস্নার ইউপি চেয়ারম্যান অবনী বাড়ৈ হত্যা মামলা থেকে খালাস পায়। জাফর মোলস্নার পারিবারিক সূত্র জানায়, সে পূর্বে সর্বহারার সাথে জড়িত থাকলেও গত ১৫ বছর পূর্বে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসে। এলাকায় জনপ্রিয়তার কারণে সে তিনবার ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। বিএনপি’র অভ্যনত্দরীণ কোন্দলকে কেন্দ্র করে তাকে গ্রেফতার করানো হয়েছে। স্থানীয় সূত্র জানায়, জাফর মোলস্নার প্রতিপৰ জলস্নার ইউপি চেয়ারম্যান অবনী বাড়ৈ নিহত হওয়ার পর সে সর্বহারার অপর আঞ্চলিক নেতা সুভাষ, হুমাউন ও অপর এক ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে জোটবদ্ধ হয়ে দল পরিচালনা করছিল।

সিলেট অফিস ।। বৃহস্পতিবার রাতে যুবলীগ নেতা ও সিলেট সিটি কপের্ারেশনের ২০ নং ওয়ার্ড কমিশনার আজাদুর রহমান আজাদ সেনাবাহিনীর হাতে আটক হয়েছেন। আজাদের বিরম্নদ্ধে ২০০৪ সালের বিশেষ ৰমতা আইনে একটি মামলা রয়েছে। সেনাবাহিনী তাকে নগরীর টিলাগড়স্থ তাজ ভিলা থেকে আটক করে। আজাদুর রহমান আজাদ সিলেট জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক।

বরগুনা (দৰিণ) সংবাদদাতা ।। বরগুনার পাথরঘাটার কিরনপুর গ্রামে জাহাঙ্গীর ভেন্ডারের বাড়ির মুরগীর খোঁপ থেকে যৌথবাহিনী ৩টি ককটেল আটক করে। যশোর সেনানিবাসে কর্মরত সেনা সদস্য ইউসুফের (৩৫) নির্দেশে মোসত্দফা (৩৮), রিয়াজ (২৬) উক্ত ৩টি ককটেল রেখে সেনা ক্যাম্পে খবর দেয় বলে জানা যায়। প্রকাশ, জাহাঙ্গীর ভেন্ডার ককটেলের ব্যাপারে অজ্ঞতা প্রকাশ করলে যৌথবাহিনীর সন্দেহ হয়। তারা সংবাদদাতা মোসত্দফাকে চাপ সৃষ্টি করলে সে ষড়যন্ত্র ফাঁস করে দেয়। যৌথবাহিনী সেনা সদস্য ইউসুফসহ মোসত্দফা ও রিয়াজুলকে গ্রেফতার করে।

কলারোয়া (সাতৰীরা) থেকে সংবাদদাতা ।। অস্ত্র, চোরাচালান ও মাদক সিন্ডিকেটের গডফাদার হিসেবে পরিচিত যুবদল নেতা আশরাফ ও বাচ্চু বাহিনীর সহযোগী ফেন্সি আজাদ মেম্বারকে (৪০) শুক্রবার কলারোয়া সীমানত্দ থেকে গ্রেফতার করেছে বিডিআর। তার বিরম্নদ্ধে কলারোয়া থানায় বিডিআরের ফাঁড়িতে অস্ত্র লুটসহ একাধিক মামলা রয়েছে। বিডিআর নায়েক সুলতান হোসেন জানান, গতকাল তার দেহ তলস্নাশী করে ১০ বোতল ফেনসিডিল পাওয়া যায়। প্রকাশ আজাদ গত ৫ বছরে অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা করে কোটি টাকার মালিক হয়েছে।

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) থেকে সংবাদদাতা ।। বৃহস্পতিবার সেনাবাহিনী পাকুন্দিয়া উপজেলার বুরম্নদিয়া ইউপি মেম্বার আলিম উদ্দিন ও কাগারচর গ্রামের মাদক সম্রাট শামসুদ্দিন ওরফে শামছুকে গ্রেফতার করে। এদিকে পাকুন্দিয়া থানা পুলিশ শুক্রবার উপজেলার ঝাউগারচর ও পাটুয়া ভাঙ্গা এলাকায় অভিযান চালিয়ে পাঁচ জনকে গ্রেফতার করেছে।

পটিয়া (চট্টগ্রাম) থেকে সংবাদদাতা ।। শুক্রবার সেনাবাহিনী পটিয়া সদর থেকে বিএনপি নেতা ফতুয়াই ইউপি চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান বাবুকে আটক করেছে। অন্যদিকে পটিয়া থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার দীলিপ কুমার দে (৩০), জালাল আহমদ প্রকাশ মধু, লিয়াকত আলী (৪৫), রবিউল হোসেন বাদশাকে (৪০) গ্রেফতার করেছে।

রাজবাড়ী সংবাদদাতা ।। চরমপন্থী সর্বহারা পার্টির নেপাল বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড, ৪টি হত্যাসহ ৬টি মামলার আসামী মজিবর রহমানকে (৫০) রাজবাড়ী থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার ফরিদপুরের কানাইপুর এলাকার একটি আখ কেন্দ্র থেকে গ্রেফতার করেছে। রাজবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, মজিবর ২০০৩ সালের ৪ জুন বেলাগাছি স্টেশন এলাকায় ট্রিপল মার্ডার, পাংশার দুই সহোদর তুরান চৌধুরী ও অসীম চৌধুরী হত্যা মামলার আসামী। এছাড়াও সে গোবিন্দপুরের আসমত মেম্বার এবং পাংশার অপর আরেকটি হত্যা মামলাসহ অস্ত্র মামলার আসামী।

সেনবাগ (নোয়াখালী) সংবাদদাতা ।। এই উপজেলার বীজবাগ ইউনিয়ন থেকে বৃহস্পতিবার যৌথবাহিনী মনোয়ারা বেগম (৪৫), মোঃ ফারম্নক (৩৫), শহীদুল ইসলাম (৪০) ও আহছান উলস্নাকে (৩৮) গ্রেফতার করেছে।

সখীপুর (টাঙ্গাইল) থেকে সংবাদদাতা ।। সখীপুর থানা পুলিশ উপজেলা যুবদলের সভাপতি ফজলুল হক বাচ্চুর পিতা অনারারী ক্যাপ্টেন (অবঃ) শামসুল হককে বৃহস্পতিবার তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করেছে।

রংপুর সংবাদদাতা ।। বৃহস্পতিবার থেকে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যনত্দ রংপুরে যৌথবাহিনী ৭০ জনকে গ্রেফতার করেছে। রংপুরের পুলিশ সুপার হাসিব আজিজের নেতৃত্বে গ্রেফতারকৃত ৭০ জনের মধ্যে কোতয়ালী থানায় ২৩ জন, গঙ্গাচড়ায় ৫ জন, তারাগঞ্জে ৪ জন, বদরগঞ্জে ৭ জন, পীরগঞ্জে ৭ জন, পীরগাছায় ২ জন, মিঠাপুকুরে ২০ জন এবং কাউনিয়া থানায় ২ জন রয়েছে।

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) থেকে সংবাদদাতা ।। বৃহস্পতিবার যৌথ বাহিনী উপজেলার জোড়দীঘি এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজ গোলাম মোসত্দফা ওরফে গোলামকে (৩৮) গ্রেফতার করেছে।

ইসলামপুর (জামালপুর) থেকে সংবাদদাতা ।। গতকাল স্থানীয় বিএনপি নেতা জয়নাল আবেদীন সরকার (৪৭) ও সৈয়দ মামুনুর রশিদ মিন্টুকে (৪৫) সেনা সদস্যরা যমুনার তীর থেকে গ্রেফতার করেছে। এর আগে ইসলামপুর উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ম সম্পাদক মাকসুদুর রহমান আনসারীসহ ১১ সন্ত্রাসীকে যৌথ বাহিনী গ্রেফতার করে জেলে পাঠিয়েছে।

সিরাজগঞ্জ দৰিণ থেকে সংবাদদাতা ।। গত ২৪ ঘন্টায় সিরাজগঞ্জে যৌথ বাহিনী ২৭ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। তারা ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামী।

বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) থেকে সংবাদদাতা ।। বাঞ্ছারামপুর উপজেলা সদর থেকে ২৪ জানুয়ারী যৌথ বাহিনী মোঃ জামাল উদ্দিন (৪৫), নাজির হোসেন (৪০), মোঃ লুৎফুর রহমান (৪৫), আবুল হোসেন (৫০), মতিউর রহমান জালুকে (৪৮) ৫৪ ধারায় গ্রেফতার করে।

জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা) থেকে সংবাদদাতা ।। সেনা সদস্যরা দেহাটি গ্রামের চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী কবীর ওরফে খোড়া কবীরকে এবং পুলিশ যাদবপুর গ্রাম হতে জামালকে আটক করে।

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) থেকে সংবাদদাতা ।। গত বৃহস্পতিবার আইন-শৃঙ্খলা রৰা বাহিনী নাগরপুর উপজেলার সহবতপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে মোঃ মনির মিয়া (২০), মোঃ বাতেন মিয়া (২০) ও মোঃ সুজন মিয়াকে (১৮) জেল হাজতে প্রেরণ করেছে।

ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) থেকে সংবাদদাতা ।। সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজির সময় সেনা সদস্যরা আটক করেছে উপজেলার ঘাটান্দী গ্রামের সাঈদ হোসেন মিয়া বাবনকে (৪০)। সে গণবিপস্নব পত্রিকার স্থানীয় প্রতিনিধি বলে জানিয়েছে। প্রকাশ, বলরামপুর গ্রামের মুদি দোকানদার শুকুর আলীর বিরম্নদ্ধে খবর ছেপে গ্রেফতার করিয়ে দেবার ভয় দেখিয়ে উক্ত বাবন ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করেছিল।

কাপাসিয়া (গাজীপুর) থেকে সংবাদদাতা ।। কাপাসিয়ার বাবুর গ্রাম থেকে সেনা সদস্যরা বৃহস্পতিবার সাদেক খন্দকারের ছেলে দেলোয়ার হোসেনকে (২৭) এবং র্যাব কাপাসিয়া থেকে নাজমুল আহসান বেলালকে গ্রেফতার করেছে।

সূত্রঃ http://www.ittefaq.com/get.php?d=07/01/27/w/n_zzkrvt

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: