মোবাইল কোর্টের অভিযান সাড়ে ৩ লাখ টাকা জরিমানা : গ্রেফতার ২

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে মোবাইল কোর্ট অবৈধ ব্লাড ব্যাংক, হসপিটাল ও ভেজাল খাদ্য বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠানকে প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা করেছে৷  দু’জন বেকারি স্টাফকে দুই মাসের কারাদণ্ড দিয়ে জেলে পাঠানো হয়েছে৷ মোবাইল কোর্টের অভিযানে দেখা গেছে, নোংরা-আবর্জনাময় পরিবেশে চিকিত্সা, রিসিপসনিস্ট দিয়ে ব্লাড সংগ্রহসহ অনিয়মের নানা চিত্র৷ গতকাল রবিবার তিনটি আদালত মাঠে নেমেছিল৷ ম্যাজিস্ট্রেট রোকন উদ দৌলার নেতৃত্বাধীন আদালত ২ লাখ ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে চারটি প্রতিষ্ঠানকে৷ ম্যাজিস্ট্রেট ননীগোপাল বিশ্বাসের কোর্ট ছয়টি প্রতিষ্ঠান থেকে ৪৮ হাজার ও ম্যাজিস্ট্রেট মিজানুর রহমানের আদালত চারটি প্রতিষ্ঠান থেকে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে৷
ম্যাজিস্ট্রেট রোকন উদ দৌলার নেতৃত্বে একটি টিম অভিযান চালায় মোহাম্মদপুর এলাকার কয়েকটি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে৷ মোহাম্মদপুরের ৫/২ বাবর রোডে অবস্থিত ক্রিসেন্ট হসপিটালে পৌছে মোবাইল কোর্টের সদস্যরা দেখতে পান সেখানে কোনো চিকিত্সক নেই৷ একজন কথিত নার্স ঘোরাঘুরি করছে৷ অপারেশন থিয়েটারে কোনো ওষুধ সামগ্রী নেই৷ নার্স জানালেন, হসপিটালের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে প্রায় এক মাস৷ এটি স্থানান্তরের প্রস্তুতি চলছে৷ কিন্তু ওয়ার্ডে দেখা গেল একজন অপারেশনের রোগী রয়েছে৷ যাকে একদিন আগেই অপারেশন করা হয়েছে৷ হসপিটালের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ দেখে বিস্মিত হন মোবাইল কোর্ট সদস্যরা৷ পরে ম্যাজিস্ট্রেট রোকন উদ দৌলা হসপিটালের মালিক শাহ মনির হোসেনকে এক লাখ টাকা জরিমানা করেন এবং অনাদায়ে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের রায় দেন৷ একই এলাকার ২২/১২ বাবর রোডে অবস্থিত সিগমা জেনারেল সার্ভিসেস নামের প্রতিষ্ঠানে ঢুকে দেখা যায় সেখানেও ময়লা-আবর্জনার স্তূপ৷ রিসিপসনিস্ট সৈকত রক্ত সংগ্রহ ও সংরক্ষণের কাজ করছে৷ কোনো ডিগ্রি ছাড়াই সে এ কাজ শিখেছে এক নিকটাত্মীয়ের কাছ থেকে৷ এ প্রতিষ্ঠানটির মালিক সাইফুল ইসলাম স্বপন ও ম্যানেজার জালালউদ্দিনের বিরুদ্ধে আদালত মামলা দায়েরের পাশাপাশি এক লাখ টাকা জরিমানা আনাদায়ে তাদের এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন৷ এরপর মোবাইল কোর্ট পৌছে ২২/১১ বাবর রোডে অবস্থিত মহানগর ব্লাড ব্যাংক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে৷ কিন্তু মোবাইল কোর্টের উপস্থিতি টের পেয়ে প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্টরা দরজায় তালা মেরে পালিয়ে যায়৷ তালা ভেঙে ভেতরে গিয়ে দেখা যায়, অবৈধ ব্লাড ব্যাংকের অস্তিত্ব৷ সংরক্ষিত ব্লাডে কোনো মেয়াদের লেবেল নেই৷ কক্ষটিতে পাওয়া যায় ডা. সাইফুল ইসলাম নামে এক চিকিত্সকের স্বাক্ষর করা বেশ কিছু সাদা সার্টিফিকেট৷ ব্লাড ব্যাংকটি সিলগালা করে দেয়ার পাশাপাশি আদালত প্রতিষ্ঠানটির মালিক এম আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে তাত্ক্ষণিক ওয়ারেন্ট ইসু করেছে৷ একই মোবাইল কোর্ট মনিপুরী পাড়ায় অবস্থিত কুপারস বেকারিতে অভিযান চালিয়ে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে অনুমোদনহীন খাদ্য সামগ্রী সংরক্ষণ ও বিক্রির দায়ে৷ জরিমানা অনাদায়ে ম্যানেজার মাহবুবুর রহমানকে দুই মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে৷
ম্যাজিস্ট্রেট মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে মোবাইল কোর্ট বাড্ডা এলাকায় অভিযান চালায়৷ দক্ষিণ বাড্ডায় অবস্থিত ইভেন করপোরেশন নামে একটি মিনারাল ওয়াটার প্রজেক্টকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় অনুমোদনহীন অবস্থায় কার্যক্রম পরিচালনার জন্য৷ বিষাক্ত রঙ ব্যবহারের দায়ে মধ্য বাড্ডার নিউ মদিনা বেকারিকে জরিমানা করা হয়েছে ৩০ হাজার টাকা৷ সেখান থেকে বিল্লাল ও ফারুক মিয়া নামে দু’জন স্টাফকে গ্রেফতার করে দুই মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে৷ একই এলাকার স্ট্যান্ডার্ড বেকারিতে লেবেলবিহীন ও মেয়াদ উত্তীর্ণ বিস্কিট বিক্রির জন্য ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে৷ মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ রাখার জন্য নিউ লায়ন্স আই হসপিটালকে জরিমানা করা হয়েছে পাচ হাজার টাকা৷
সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/view_news.php?News-ID=27633&issue=207&nav_id=7

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: