রাজনীতি করার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত ।। নয়া পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে

নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস বলেছেন, সুশীল সমাজসহ জনগণ চাইলে পরিস্থিতির প্রয়োজনে রাজনীতি করবো। এজন্য রাজনৈতিক দল গঠন করবো। রাজনীতি করার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তত রয়েছেন বলেও জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, যে কোন কাজের জন্য আমি সব সময়ে প্রস্তত রয়েছি। গতকাল বুধবার সকালে ভারত ও বাহরাইন সফর শেষে তিনি বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের একথা বলেছেন।

তিনি আরো বলেন, নতুন ভঙ্গিতে রাজনীতি করার সুযোগ তৈরি হয়েছে। বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার ড়্গমতা গ্রহণের পর বিভিন্ন ধরনের পদড়্গেপ গ্রহণ করেছে। এতে রাজনীতিতে পরিবর্তন আসছে- এটা শুভলড়্গণ। অতীতের রাজনৈতিক ব্যবস্থা থেকে খুব একটা সফলতা আসেনি। এতে যেটুকু পিছিয়ে পড়েছি তা কাভার করে এগিয়ে যেতে পারি সেই চেষ্টাই সকলকে চালাতে হবে। তিনি বলেন, দেশের পরিস্থিতির প্রয়োজনে রাজনীতি করবো, দল গঠন করবো। রাজনীতি করার মতো পরিস্থিতি হয়েছে কিনা তা জনগণই বলবে। জনগণ বলুক এটাই সেই পরিস্থিতি কিনা। যখন রাজনীতি করার মনস্থির করবো তাৎড়্গণিকভাবে তা ঘোষণা দিবো। পরবর্তীতে দলগঠনসহ অন্য বিষয়গুলো নির্ধারণ করবো। এ বি সি ডি বা ব্যাকরণ মেনে রাজনৈতিক দলগঠন করতে হবে তা নয়। এখনই সবকিছুর ছক কাটতে হবে এমন নয়। তিনি বলেন, একটা পরিবর্তনের জন্য দেশে নতুন পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। দুর্নীতিমুক্ত নির্বাচন করতে হবে। বর্তমান সরকার জনগণকে আশার আলো দেখিয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকারকে একদিকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান চালাতে হবে, অন্যদিকে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় সংস্কার আনতে হবে। নির্বাচনী আইনে সংস্কার আনতে হবে। যারা দুর্নীতি করেছে তারা যাতে নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে সেই ব্যবস্থা করতে হবে। কালো টাকার মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। এজন্য প্রার্থীদের সম্পদের হিসাব নির্বাচনের অনেক আগেই জনগণের নিকট প্রকাশ করতে হবে। এতে জনগণের নিকট থেকে অনেকটা সার্টিফিকেট নেয়ার মতো বিষয় হবে। আমরা চাই প্রার্থীরা স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে নির্বাচনে আসুক। এমন প্রক্রিয়ায় নির্বাচন সম্পন্ন হোক যাতে নির্বাচনী ফলাফল দুর্নীতিবাজদের অনুকূলে না যায় এবং ভালো লোক যাতে নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন। আমি তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে বলেছি, আপনারা এমন ব্যবস্থা করম্নন যেন দুর্নীতিবাজ কেউ যাতে রাজনীতিতে ঢুকতে না পারেন।

বর্তমান সরকারকে নির্বাচন অনুষ্ঠানে কতদিন সময় দেয়া যেতে পারে এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, যতদিন সবকিছু পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন না হবে ততদিন সময় দেয়া যেতে পারে। আমরা চাই দুর্নীতিমুক্তদের নিয়ে নতুন রাজনীতি শুরম্ন হোক। তিনি বলেন, জরম্নরি অবস্থায় সাধারণ মানুষ খুশি হয়েছে। এটি আমাদের জন্য স্বসিত্মদায়ক। বর্তমান সরকারকে সবকিছু গুছিয়ে নিয়ে নির্বাচনে যাওয়া উচিত বলে তিনি মনত্মব্য করেন। তিনি বলেন, দেশের মানুষ চায় দুর্নীতিমুক্ত ও কালো টাকামুক্ত বাংলাদেশ হোক।

বড় দুই দলের নেতাদের আটক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এতে প্রচলিত রাজনীতিতে বড় ধাক্কা লেগেছে। তবে দলের নেতাদের আটক করা হয়েছে- এই ধরনের মনোভাবের পরিবর্তে দুর্নীদিবাজদের আটক করা হয়েছে মনোভাবই পোষণ করা উচিত। বর্তমানে সব দুর্নীতিবাজকে ধরা হচ্ছে। তিনি জানান, দুর্নীতিবাজদের আটক করায় বাহরানের প্রবাসী বাংলাদেশীরা বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। দেশের দুর্নীতি-বিরোধী অভিযান বিদেশে ভূয়সী প্রশংসা পেয়েছে বলে তিনি জানান।

উলেস্নখ্য, নোবেল শানিত্ম পুরস্কার বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস ১০ দিনের ভারত ও বাহরাইন সফর শেষে গতকাল সকালে দেশে ফিরেছেন। তিনি বাহরাইনে একটি ব্যাংক স্থাপনের ব্যাপারে বাহরাইন সরকারের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাড়্গর করেছেন। এছাড়া সফরকালে তিনি বাহরাইনের আমীর, যুবরাজসহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সাথে সাড়্গাৎ করেন।

এদিকে তিনি ভারতের দিলস্নী ও মুম্বাইয়ে বিভিন্ন সেমিনারে যোগ দেন। মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত ‘ভারতে ড়্গুদ্রঋণ’ শীর্ষক সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন। সফরকালে তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং, কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সাথে সাড়্গাৎ করেন। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-02-08

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: