ম্যাজিস্ট্রেট পত্নীর কাণ্ড!

ম্যাজিস্ট্রেটের স্ত্রী হয়েও শেষ রক্ষা হলো না হাসিনা মমতাজের (৩০)। এক মহিলা র‌্যাব সদস্যকে ‘চড়’ মারাকে কেন্দ্র করে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হন। পরে অবশ্য আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনে নরসিংদী থেকে সস্ত্রীক বাংলা একাডেমীর একুশে বইমেলায় ঘুরতে এসে এভাবেই লজ্জিত হলেন নরসিংদী জেলার দ্রুত বিচার আদালতের প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট নীরোদ চন্দ্র মণ্ডল।

প্রত্যড়্গদর্শী সূত্র জানায়, প্রতিবছরের মতো গতকাল সাড়ে ১১টার দিকে একুশে বইমেলায় এসেছিলেন ম্যাজিস্ট্রেট তার স্ত্রীকে নিয়ে। মেলার নিয়ম অনুযায়ী সবাইকে লাইনে দাঁড়িয়ে প্রবেশ করতে হয় ভেতরে। গতকাল ছুটির দিন থাকায় দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে অবশেষে প্রবেশ গেটের সামনে পৌঁছলেন ম্যাজিস্ট্রেট নীরোদ চন্দ্র মণ্ডল ও তার স্ত্রী হাসিনা মমতাজ। র‌্যাব সদস্যরা মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে তাদের দু’জনের দেহ এবং সঙ্গে থাকা ব্যাগ তল্লাশী করতে চায়। ম্যাজিস্ট্রেট র‌্যাব সদস্যদের কিছু না বললেও বাধা দিলেন তার স্ত্রী হাসিনা মমতাজ। এক মহিলা র‌্যাব সদস্যের সঙ্গে বাক-বিতণ্ডায় জড়িয়ে গেলেন তিনি। একপর্যায় ‘আমাকে চিনিস’ বলেই ‘চড়’ বসিয়ে দিলেন মহিলা র‌্যাব সদস্য জান্নাতের গালে। হতভম্ভ হয়ে গেলেন ম্যাজিস্ট্রেট নিজেও। অন্য র‌্যাব সদস্যরা এসে তাকে আটক করে নিয়ে গেল র‌্যাব ক্যাম্পে। তার বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা প্রদান এবং সরকারি কর্মচারীকে আঘাত করার অভিযোগ এনে শাহবাগ থানায় একটি মামলা দায়ের করে শাহবাগ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পুলিশ তাকে বেলা ৩টার দিকে ঢাকা সিএমএম কোর্টে চালান করে দেয়। পরে কোর্টে জামিন চেয়ে আবেদন করলে আদালত জামিন মঞ্জুর করে। এ ঘটনায় ম্যাজিস্ট্রেট নীরোদ চন্দ্র মণ্ডল বলেন, র‌্যাব সদস্যরা অন্যায়ভাবে আমার স্ত্রীকে লাঞ্ছিত করেছে। আমরাও র‌্যাব সদস্যদের বিরম্নদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার চিনত্মা-ভাবনা করছি। এ ঘটনা বইমেলায় আগন্তুকদের মধ্যে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। ম্যাজিস্ট্রেট নীরোদ চন্দ্র মণ্ডলের গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জ জেলায় এবং তার স্ত্রী হাসিনা মমতাজের বাড়ি ভোলায়।

এদিকে বর্ধমান ভবনের সামনে এক মহিলার ব্যাগ থেকে একটি মোবাইল ও বই চুরি করার সময় হাতেনাতে ধরা পড়ে এক চোর। তাকে গণপিটুনি দিয়ে লোকজন র‌্যাব সদস্যদের হাতে তুলে দেয়। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-02-10

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: