সংস্কার হবে ৩ ধাপে, ২০০৯-এর আগে নির্বাচনের সম্ভাবনা কম সরকার চালাতে জনা বিশেক উপউপদেষ্টা লাগতে পারে

সংস্কারের তিনটি ধাপ মাথায় নিয়ে কাজ করছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার। জরুরি, মধ্যমেয়াদি ও সর্বশেষ সংস্কারের পর ২০০৮ সালের শেষে অথবা ২০০৯ সালের শুরুতে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে।
জানা গেছে, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, অবাধ লুণ্ঠন, অনিয়ম, দলীয়করণ, রাষ্ট্র, সমাজ ও রাজনীতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে যে জঞ্জাল তৈরি করা হয়েছে, জনগণের প্রত্যাশায় সরকার তা অপসারণের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী, কালোটাকার মালিক, দুর্নীতিবাজদের গড ফাদার ও ঋণখেলাপিদের নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হবে না। এ লক্ষ্যে আইন করা হচ্ছে। সূত্র জানায়, এ সপ্তাহের প্রথমদিকে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে জর”রি সংস্কারের বিষয় উল্লেখ করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার কিছু কাজ করার উদ্যোগ নিয়েছে। জরুরি সংস্কারের মধ্যে রয়েছে নির্বাচন কমিশন ও দুর্নীতি দমন
কমিশন সংস্কার, দুর্নীতি রোধে কার্যকর পদক্ষেপ, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও অর্থনৈতিক সংস্কার দ্রুততর করা। ইতিমধ্যে সরকার নির্বাচন কমিশন সংস্কারের কাজে হাত দিয়েছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ একজন কমিশনার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। পুনর্গঠন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে দুর্নীতি দমন কমিশনের বিতর্কিত চেয়ারম্যান ও দুই কমিশনারের মধ্যে চেয়ারম্যান ও এক কমিশনার ইতিমধ্যেই পদত্যাগ করেছেন।
পাশাপাশি দুর্নীতি রোধ ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকার সর্বশক্তি নিয়োগ করাসহ অর্থনৈতিক সংস্কারে তৎপর থাকবে। দেশী-বিদেশী বিনিয়োগ বৃদ্ধির পরিবেশ সৃষ্টি করা, রপ্তানি বৃদ্ধি করাসহ দেশে বিশ্বমানের পণ্য উৎপাদনে উদ্যোক্তাদের সার্বিক সহযোগিতা করার বিষয়ে সরকার তৎপর থাকবে।
মধ্যমেয়াদি সংস্কারের মধ্যে রয়েছে মাদ্রাসা শিক্ষাসহ শিক্ষাব্যবস্থার আমূল সংস্কার করা, প্রশাসন কার্যকর করা ও বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণমুক্ত করা, পররাষ্ট্রনীতি তথা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন করা, বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি, দুর্নীতি রোধ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর), মিডিয়া পলিসি ও কাস্টমস সংস্কার করাসহ প্রাকৃতিক সম্পদের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা। সর্বশেষ সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে ভোটার আইডি কার্ডের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন করা এবং এ দুটি নির্বাচনের ফলাফলের ওপর নির্ভর করে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা।
এদিকে, ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়সাপেক্ষ ভোটার আইডি কার্ড করাসহ জাতীয় আইডি কার্ড তৈরি করা হচ্ছে। পুনর্গঠিত নির্বাচন কমিশন সশস্ত্র বাহিনীর সহায়তায় ভোটার আইডি কার্ড তৈরি করবে এবং নির্বাচনী বিধি সংস্কার করবে বলে জানা গেছে। স্থানীয় সরকার শক্তিশালী করার মাধ্যমে ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণের পাশাপাশি জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আইডি কার্ডের মাধ্যমে ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন করার উদ্যোগ তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিতে যাচ্ছে। জাতীয় নির্বাচনের আগে এ দুটি নির্বাচন করা হবে, যাকে জাতীয় নির্বাচনের স্টেজ রিহার্সেল বলেও গণ্য করা হবে। এই নির্বাচন দুটি ২০০৮ সালের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে পারে। এর মধ্য দিয়েই প্রমাণ হবে সবার জন্য সমান গ্রহণযোগ্য জাতীয় নির্বাচন সম্পন্ন করা সম্ভব কিনা? ভোটার আইডি কার্ড সেনাবাহিনীর সহায়তায় করতেও এক বছরের বেশি সময় লাগতে পারে বলে সূত্রটি দাবি করে। ফলে জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০০৮ সালের নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে অথবা ২০০৯ সালের জানুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র ধারণা করেন।
সূত্র মতে, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাজের গতি বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে আরো ১৫ থেকে ২০ জন উপ-উপদেষ্টা নিয়োগের প্রস’তি নেওয়া হয়েছে। উপউপদেষ্টা নিয়োগের ক্ষেত্রে সুশীল সমাজকে সর্বাধিক প্রাধান্য দেওয়া হবে। বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার ১০ জন উপদেষ্টা নিয়ে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে কাজ করতে পারছে না। ৪৯ টি মন্ত্রণালয়ে ১০ জন উপদেষ্টা দিয়ে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না। কোনো কোনো মন্ত্রণালয়ে কাজই হয় না। তাই প্রতিটি মন্ত্রণালয়ে কাজের গতি ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে উপউপদেষ্টা নিয়োগ দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।
শিক্ষাব্যবস্থা ঢেলে সাজানোর লক্ষ্যে ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করা হচ্ছে। সরকারের নীতি নির্ধারকদের মতে, দেশে এখন অস্থিতিশীল পরিস্থিতি নেই যে ছাত্র আন্দোলন করতে হবে। তাই ছাত্ররাজনীতির প্রয়োজন নেই। ছাত্ররাজনীতি শিক্ষাঙ্গনের পরিবেশ নষ্ট করে। মাদ্রাসা শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। যাতে মাদ্রাসাগুলোতে ইসলামি শিক্ষার পাশাপাশি গুর”ত্বের সঙ্গে সাধারণ শিক্ষাও দেওয়া হয়। ইসলামি শিক্ষার নামে সমাজ ও বাসত্মবতাবর্হিভূত শিক্ষা প্রদান যাতে করা না হয় তার ব্যবস্থাও করা হবে। Source:ভোরের কাগজ
Date:2007-02-09

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: