সামরিক বাহিনীর ক্ষমতা দখলের অভিপ্রায় নেই

সেনাবাহিনী প্রধান লেঃ জেনারেল মঈন ইউ আহমেদ বলেছেন, সামরিক বাহিনীর ড়্গমতা দখল বা সরকার পরিচালনার কোন অভিপ্রায় নেই। কিন্তু দেশকে সঠিক স্থানে ফিরিয়ে নেয়ার অভিযাত্রায় তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে তারা সহায়তা প্রদান করছেন। বৃহস্পতিবার পার্বত্য জেলার বান্দরবানে সুশীল সমাজের সমাবেশে সেনা প্রধান বলেন, ড়্গমতা গ্রহণ বা রাষ্ট্র পরিচালনায় আমাদের কোন আগ্রহ নেই। কিন্তু আমরা চাই যাতে বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার সফলতার সাথে দেশ পরিচালনা করে দেশকে যথাস্থানে নিয়ে যেতে পারেন। বান্দরবান জেলার বেসামরিক প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক ও সরকারি-বেসরকারি সংস্কার প্রতিনিধিদের উদ্দেশে বক্তব্য দানকালে তিনি রাজনৈতিক প্রক্রিয়া, রাজনীতিবিদদের গতিপ্রকৃতি মন মানসিকতা ও শাসন ব্যবস্থার ব্যাপারে কয়েকটি কঠিন কঠোর সত্য তুলে ধরেন।

সেনাবাহিনী প্রধান বলেন, দেশকে সামনে এগিয়ে নেয়ার জন্য জাতির জন্য প্রয়োজন দড়্গ ও সৎ রাজনীতিবিদ। কিন্তু আমাদের রাজনীতিবিদরা নিজেদের স্বার্থ বাদে আর কিছুই বুঝতে চায় না। তিনি বলেন, দেশে বর্তমানে নতুন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে যেখানে রাজনীতিবিদরা রাজনীতিতে টাকার খেলা খেলতে পারবেন না, যারা এতদিন টাকার অভাবে রাজনীতিতে সক্রিয় হতে পারেননি তারা রাজনীতিতে আসতে পারবেন।

দেশে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক জরম্নরি অবস্থা জারির পটভূমিকা ব্যাখ্যা করে জেনারেল মঈন বলেন, পূর্ববর্তী তত্ত্বাবধায়ক সরকার গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যাপারে দু’টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে মতৈক্য সৃষ্টির যথেষ্ট চেষ্টা চালান। কিন্তু তারা ব্যর্থ হন। কারণ, কোন দলই তাদের অবস্থান থেকে এক চুলও সরে আসতে রাজি হয়নি। যার ফলে পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। এ প্রসঙ্গে সেনা প্রধান বলেন, গেল বছরের ২৮ অক্টোবর ঢাকার রাজপথে মর্মানিত্মক নিষ্ঠুর দৃশ্যের অবতারণা করে বলেন, বিশ্বে এমন দৃশ্য কখনই দেখা যায়নি যে, একটি লোককে হত্যা করে লাশের উপর মানুষ নাচানাচি করে। এ ভয়াবহ দৃশ্য কেবল দেশে নেয়, সারা বিশ্ব দেখেছে এবং প্রত্যেকে চরম ঘৃণা প্রকাশ করেছে।

তিনি বলেন, ২২ জানুয়ারি যে একতরফা নির্বাচনের আয়োজন করা হচ্ছিল তা দেশে কিংবা বিদেশে আদৌ গ্রহণযোগ্যতা পেত না। আর এই নির্বাচনের জন্য যে বিপর্যয় নেমে আসত তার দায়ভার সেনাবাহিনী, বিডিআর, পুলিশ, আনসারসহ সকলকেই বহন করতে হত। এই পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রপতি জরম্নরী অবস্থা ঘোষণা করতে বাধ্য হন। এছাড়া একই দিন তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধানের পদও ছেড়ে দেন। এরপর সততা, দড়্গতা এবং বিশ্বসত্মতার নিরিখে একজন নতুন প্রধান উপদেষ্টা নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

সেনা প্রধান আরো বলেন, এই মুহূর্তে নতুন সরকারের প্রয়োজন জনগণের সমর্থন। এমন সুযোগ বারবার আসেনা। আমরা মনে করি এমনটি বারবার ঘটাও উচিত না। তিনি জনগণের প্রতি উদাত্ত আহবান জানিয়ে বলেন, আসুন আমরা দেশের জন্য একটি নির্মল পরিবেশ সৃষ্টি করি। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-02-09

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: