রাজনৈতিক মহলের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

প্রচলিত ধারার বাইরে নতুন রাজনৈতিক দল গঠনে দেশবাসীর মতামত চেয়ে রোববার খোলা চিঠি দিয়ে রাজনীতিতে আলোড়ন তুলেছেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস। বর্তমান সময়কে ‘উপযুক্ত সময়’ বলে বিবেচনায় নিয়ে ড. ইউনূসের রাজনৈতিক দল গঠনের উদ্যোগে রাজনৈতিক মহলে দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত এ সম্পর্কে বলেন, উনার মতো লোক রাজনীতিতে এলে তারা স্বাগত জানাবেন।

তিনি প্রচলিত ধারার বাইরের রাজনীতি করার কথা বলছেন। সেটা কি না দেখা পর্যন্ত এ নিয়ে বলা যাবে না। সুরঞ্জিত বলেন, তারা দেশ ও মানুষের জন্য দীর্ঘ সংগ্রামের পথে রাজনীতিতে রয়েছেন। তারা চান ড. ইউনূসের মতো লোক রাজনীতিতে আসুক। তার বিবেচনায় ইউনূস রাজনীতির একটি দিক দেখেছেন, অন্যদিক দেখেননি। তিনি আগে রাজনীতিতে আসুন এবং অন্যদিকটি দেখুন।

বিএনপির সহ-সভাপতি এমকে আনোয়ার রোববার যুগান্তরকে বলেন, বর্তমানে সব ধরনের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড বন্ধ রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে তিনি কিভাবে রাজনৈতিক দল গঠনের উদ্যোগ নিয়েছেন- এটা তার কাছে পরিষ্কার নয়। যদি তিনি ক্ষমতাসীনদের উৎসাহে এ কাজে উৎসাহিত হয়ে থাকেন তাহলে এ বিষয়ে আরও গভীরভাবে চিন্তা করার প্রয়োজন আছে। দ্বিতীয়ত, যে কোন নাগরিকের রাজনৈতিক দল করার সাংবিধানিক অধিকার রয়েছে। সে ক্ষেত্রে নোবেল বিজয়ী ড. ইউনূস একজন শ্রেষ্ঠ নাগরিক। আর রাজনৈতিক অঙ্গনে আসার প্রস্তাব দেশের জন্য মঙ্গলজনক হবে। আসার পরে মানুষের তুলনামূলক বিচার করার সুযোগ হবে। রাজনৈতিক কর্মী থেকে নেতা হয়ে রাজনীতি করবে? নাকি যে কেউ যখন খুশি রাজনৈতিক অঙ্গনে এসে দেশের জন্য অধিকতর মঙ্গলজনক অবদান রাখতে পারবে।
এলডিপির নির্বাহী প্রেসিডেন্ট কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বলেন, ড. ইউনূস নোবেল পুরস্কার পেয়ে দেশের জন্য বিরাট গৌরব অর্জন করেছেন। তার গ্রামীণ ব্যাংক প্রকল্প গরিবের সেবায় সম্পন্ন করা খুবই প্রয়োজন। এই প্রকল্প অসম্পূর্ণ রেখে নতুন কাজে হাত দিলে দুটোই অর্ধসমাপ্ত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়া রাজনীতিতে এলে বিতর্কে জড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে। পৃথিবীতে যারা নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন তারা নিজের সম্মান ধরে রাখার জন্য তাদের পেশা পরিবর্তনের জন্য অন্য কোন পদক্ষেপ নেননি। ড. ইউনূসকে ভালো-মন্দ চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। নতুন দল করে ইমেজ গড়া এদেশে খুবই কঠিন কাজ। ইতিমধ্যে তিনি অনেক বিষয়ে বিতর্কের সৃষ্টি করেছেন।
ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, দেশে জরুরি অবস্থায় যখন রাজনীতিতে নিয়ন্ত্রণ, সভা-সমাবেশ করা যাচ্ছে না, তখন রাজনৈতিক দল গঠনের উপযুক্ত পরিবেশ মনে করার কারণ কি? অতীতে জিয়া-এরশাদের হাতধরে ওপর থেকে চাপিয়ে দেয়া দল গঠন করতে দেখা গেছে। তাই এবার তার উদ্যোগ ঘিরে বাজারে নানা প্রশ্ন এসেছে। জনগণকে খোলা চিঠি দিয়ে লাভ নেই। জনগণ যা বোঝার তা বুঝতে পারছে। জরুরি অবস্থায় বা নোবেল বিজয়ের কারণে তিনি মাঠ ফাঁকা মনে করছেন। কিন্তু মাঠ ফাঁকা নেই। মেনন বলেন, রাজনীতিতে দুর্র্বৃত্তায়ন, কালো টাকা ও সাম্প্রদায়িকতার আগ্রাসন নিয়ে তার পার্টি ও ১১ দল দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলনই নয়, সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দিয়ে আসছে। ড. ইউনূস চাইলে তার পার্টি বা ১১ দলে যোগ দিতে পারেন। গণফোরাম প্রেসিডিয়াম সদস্য পংকজ ভট্টাচার্য বলেন, জনগণকে সংগঠিত করে রাজনীতিতে আসার উদ্যোগ শুভ ও অভিনন্দনযোগ্য। রাজনীতিতে অবক্ষয় আজ হঠাৎ করে দেখার কিছু নয়। ’৭৫-উত্তর সময় থেকে শুরু হয়েছে। দূষিত রাজনৈতিক সংস্কৃতি, কালো টাকা, সাম্প্রদায়িকতা ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যে লড়াই চলছে তার উল্লেখ বা স্বীকৃতি ড. ইউনূস দেননি। দেয়া উচিত ছিল।
জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, নোবেল বিজয়ী মার্জিত সুশিক্ষিত ড. ইউনূস মাঠ ও ময়দানের সঙ্গে সম্পৃক্ত। যখন সমাজবিরোধী রাজনীতিক ব্যবসায়ীরা গ্রেফতার হচ্ছে, গা-ঢাকা দিয়েছে তখন দল গঠনের জন্য তার কাছে উপযুক্ত সময় মনে হয়েছে। তার এই উদ্যোগ একজন মুক্তিযোদ্ধা রাজনীতিবিদ হিসেবে স্বাগত জানাই। রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন দরকার। সব দলে সংস্কর দরকার। ’৯০ সালে এরশাদ শাসনের পর গণতান্ত্রিক শাসন শুরু হলেও দেশ একচুল অগ্রসর হয়নি। পিছিয়েছে। ড. ইউনূস স্বপ্ন দেখাতে পারলে সফল হবেন। ব্যর্থ হলে অন্য আরও অনেক দলের মতোই হবে।
জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ বলেন, নতুন দল গঠন ড. ইউনূসের নিজস্ব ব্যাপার। জামায়াতে ইসলামী সৎ লোকের শাসন কায়েম করতে চায়। ড. ইউনূস সৎ লোক হয়ে থাকলে তিনি জামায়াতে ইসলামীতে যোগদান করতে পারেন। Source:দৈনিক যুগান্তর
Date:2007-02-12

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: