দুই নেত্রীর মধ্যে সমঝোতা প্রচেষ্টা শুরু

দ্রুত নির্বাচন ইসুতে দুই নেত্রীর মধ্যে সমঝোতার লক্ষ্যে তৎপরতা চলছে। অবসরপ্রাপ্ত একাধিক মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তা এই তৎপরতা শুরু করেছেন। জরুরি অবস্থার মধ্যে ড. ইউনূসের রাজনৈতিক দল গঠনের তৎপরতা, ঢালাওভাবে দুর্নীতির অভিযোগ করে সাধারণ মানুষের কাছে রাজনীতিবিদদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করা, বিদেশি কূটনীতিকদের তৎপরতা এবং এক মাস অতিবাহিত হওয়ার পরও সরকার নির্বাচনের টাইমফ্রেইম ঘোষণা না দেয়াসহ দেশের সাম্প্রতিক অবস্থা পর্যালোচনা করতে অবসরপ্রাপ্ত এসব সেনা কর্মকর্তারা নিজেদের মধ্যে একাধিক বৈঠকও করেছেন। চলতি মাসের শুরুতেই তারা এই তৎপরতা শুরু করেন। তারা ধারণা করছেন, দ্রুত নির্বাচনের দাবিতে বড় দুই দলের সমঝোতার ভিত্তিতে দুই নেত্রী একসঙ্গে বিবৃতি দিলে তত্ত্বাবধায়ক সরকার চাপের মধ্যে পড়বে।
অতি সম্প্রতি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে পৃথক পৃথক বৈঠক করেছেন মুক্তিযুদ্ধের দুজন সেক্টর কমান্ডার। চলমান পরিস্থিতিতে দুই নেত্রী কী ভাবছেন তা জানতে চেয়েছেন তারা। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কর্মকাণ্ড ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়েও কথা হয়েছে তাদের মধ্যে। দেশে গণতান্ত্রিক ধারা ফিরিয়ে আনতে এ বৈঠকে দুই নেত্রীর মধ্যে সমঝোতার প্রস্তাবও দিয়েছেন তারা। প্রয়োজনে দুজনের মধ্যে টেলিসংলাপ এবং যৌথ বিবৃতির কথাও বলেছেন তারা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সমঝোতা প্রস্তাবে সম্মতি দিয়ে বলেছেন সংলাপ কিংবা যৌথ বিবৃতি দিতে তার কোনো আপত্তি নেই। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী রাজি কিনা তা আগে দেখেন।
আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা অবশ্য বলেছেন, এ মুহূর্তে এসব চিন্তা করছি না। সরকারের কার্যক্রম আরো পর্যবেক্ষণের প্রয়োজন আছে। বিগত দিনে যারা দুর্নীতি লুটপাট করেছে তাদেরকে প্রশ্রয় দেয়া ঠিক হবে না। বিএনপির দুর্নীতিবাজ মন্ত্রী, এমপি ও লুটপাটকারীরা পার পায় এমন কোনো কাজ করতে তিনি নারাজ।
আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কাছ থেকে আশানুরূপ সাড়া না পেলেও হাল ছাড়ছেন না সমঝোতা প্রচেষ্টাকারীরা। একজন শীর্ষ উদ্যোক্তা জানিয়েছেন, দুই নেত্রীর জবাব নিয়ে তারা আবার বসবেন, পরবর্তী করণীয় নিয়ে আলোচনা করবেন। তার মতে, বর্তমান সরকারের যে সফলতা ও জনপ্রিয়তা আমরা দেখতে পাচ্ছি তা আগামী দুমাস পর থাকবে না। রাজধানীসহ শহরগুলো থেকে উচ্ছেদ হওয়া এবং ক্ষতিগ্রস্ত লোকজন বেকার থাকতে থাকতে ক্রমেই ক্ষুব্ধ হয়ে উঠছে। দুই নেত্রী এক হয়ে ডাক দিলে এখনো জরুরি অবস্থা সত্ত্বেও জনগণের বিক্ষোভ দিয়ে জনগণকে সামাল দেয়া কঠিন হবে। তিনি জানান, আমরা যারা সমঝোতার উদ্যোগ নিয়েছি তাদের মধ্য থেকে দুজন দায়িত্ব নিয়ে দুই নেত্রীর সঙ্গে কথা বলছি। Source:দৈনিক আমাদের সময়
Date:2007-02-13

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: