বর্তমান পরিস্থিতিতে রাজনৈতিক দল গঠন সম্ভব না হলে স্বতন্ত্র প্রার্থীঃ কলকাতায় ডঃ ইউনূস

বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে নতুন দল গড়া সম্ভব না হলে  আসন্ন সংসদ নির্বাচনে তিনি নির্দলীয় প্রার্থী হবেন। প্রয়োজনে প্রতিটি আসনে প্রার্থী হবে তার রাজনৈতিক চিন্তাধারার সমর্থকরা। নির্বাচনের পর গড়া হতে পারে নতুন রাজনৈতিক দল। তবে তার আগে মুহাম্মদ ইউনূস নিজে রাজনীতিতে আসবেন কী না সেজন্য জানতে চান সাধারণ মানুষের মনোভাব। সোমবার কলকাতায় সাংবাদিক সম্মেলনে একথা জানালেন নোবেলজয়ী মুহাম্মদ ইউনূস। তিনি বলেন, সাধারণ মানুষের চাওয়া না চাওয়ার ওপর নির্ভর করেই তিনি সক্রিয় রাজনীতিতে আসতে চান। তাঁর রাজনীতিতে আসার পেছনে নোবেল জয় কোনও কারণ নয়। আগে পরিস্থিতি বা চিন্তার সুযোগ ছিল না। এখন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। তবে সেটা তাঁর চেনা-পরিচিতদের ভাবনা না আমজনতার চাহিদা সেটা বুঝতে চান। কারণ ভোটে দাঁড়ালেই জিতবো, এটা সহজ কথা নয়।

ড. ইউনূস বলেন, বাংলাদেশ বর্তমানে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ভাল অবস্থায় রয়েছে। তবে রাজনৈতিক অচলাবস্থা মেটাতে তিনি শান্তি প্রস্তাব দিয়েছিলেন। বলেছিলেন, দুই প্রধান রাজনৈতিক দল এক হয়ে অচলাবস্থা কাটাবে। দুই প্রধান রাজনৈতিক দল সেটা মানেনি। এখন সাধারণ মানুষ চাইছে বিকল্প চিন্তা-ভাবনা। সেজন্য তিনি খোলা চিঠি দিয়ে তাঁর রাজনীতিতে আসা না আসা নিয়ে সাধারণ মানুষের চিন্তাধারা জানতে চেয়েছেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জনমত নিয়েই তিনি রাজনীতিতে আসতে চান। সেজন্যই দু-দু’বার তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টার পদ প্রত্যাখ্যান করেছেন। সেই কারণে নির্বাচনে না গিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর সমর্থনে রাষ্ট্রপতি হওয়াও তাঁর পছন্দ নয়।

আজকাল প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত সাংবাদিক অরুন্ধতী মুখোপাধ্যায়ের মুহাম্মদ ইউনূসকে নিয়ে লেখা ‘বাঙালির মুকুট’ বইটি প্রকাশ করেন মুহাম্মদ ইউনূস। রাশিদুল বারির লেখা ‘নোবেল জয়ী বিশ্বপথিক ইউনূস’ বইটিরও মোড়ক উন্মোচন করেন। রাতে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধীর নৈশভোজে মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের সঙ্গে দেখা হবে।

সাংবাদিক সম্মেলনে মুহাম্মদ ইউনূস বলেন, তিনি রাজনীতিতে এলে গ্রামীণ ব্যাংকের অবকাঠামোগত কোন পরিবর্তন হবে না। বাংলাদেশের টিভি চ্যানেল ভারতে দেখা যায় না। এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে মুহাম্মদ ইউনূস বলেন, বাংলাদেশের টিভি এ দেশে দেখা গেলে বাংলাদেশ নিয়ে ভুল মনোভাবের অবসান হবে।

রাজনীতিতে অংশগ্রহণের

পক্ষেই বেশী মত পাচ্ছেন

আমাদের রিপোর্টার জানান, রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহণের বিষয়ে সাড়া পাচ্ছেন নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস। গত রবিবার জনগণের মতামত চেয়ে তিনি খোলা চিঠি লিখেন।

জানা গেছে মগবাজারস্থ ‘হাল মারস্‌’-এ মতামত পাঠানোর ঠিকানা পাঁচটি কম্পিউটার ও চিঠি রাখার বেশ কয়েকটি বাক্স স্থাপন করা হয়েছে। গত রবিবার বিকাল থেকেই জনগণ ই-মেইল, চিঠি, ফ্যাক্স পাঠাতে শুরু করে। অনেকে মোবাইল ফোনে নিজেদের মতামত জানাচ্ছেন। চিঠি, ই-মেইল, ফ্যাক্স গ্রহণকারীরা জানান, নাগরিকদের অধিকাংশই ড. মুহাম্মদ ইউনূসের সক্রিয় রাজনীতিতে নামার পক্ষে মত প্রকাশ করেছেন। অনেকে অবশ্য বিতর্কিত হওয়ার আশংকায় তাঁকে রাজনীতিতে না নামার পরামর্শ দিয়েছেন। জানা গেছে, গতকাল কয়েক হাজার ব্যক্তি মতামত জানিয়েছেন। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-02-13

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: