৭ শীর্ষ সন্ত্রাসীর আত্মস্বীকৃত গুরু নাসির উদ্দিন পিন্টু এখনো হাওয়া

সরকার ঘোষিত ২৩ শীর্ষ সন্ত্রাসীর ১৭ জনকেই যিনি প্রকাশ্যে নিজের  শিষ্য বলে দাবি করতেন, সেই সাবেক সাংসদ নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু এখনো ধরা পড়েননি। তবে আত্মগোপনে থাকা অবস্থায়ও পিন্টুর তথাকথিত ব্যবসা, চাঁদাবাজি এখনো চলছে। এদিকে দুর্ধর্ষ এই সন্ত্রাসী গডফাদার ও তার সহযোগীরা গ্রেপ্তার না হওয়ায় জনমনে আতঙ্ক কাটেনি।
জানা গেছে, গত ৫ বছরে পিন্টুর নানা অপকর্মের বিরুদ্ধে তার দলেরই অনেক নেতাকর্মী নালিশ করেছিলেন বিএনপির ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দের কাছে। প্রতিকার না পেয়ে দল ছেড়েছেন অথবা দলে থেকেও নিষ্ক্রিয় থেকেছেন তারা। আবার যে কোনো উপায়ে পিন্টুর টাকা কামানোর প্রবণতা দেখে অনেক ত্যাগী ও ভদ্র নেতাকর্মীই তার কাছ থেকে দূরে সরে গেছেন।
কামরাঙ্গীরচর থানা বিএনপির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন ২০০৫ সালের ১৫ এপ্রিল ঢাকা মহানগর বিএনপির সভাপতি মেয়র সাদেক হোসেন খোকার কাছে এক দরখাস্তে পিন্টুকে স্বেচ্ছাচারী ও ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী হিসেবে উল্লেখ করে পিন্টুর হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার আবেদন করেন। দরখাস্তে তিনি উল্লেখ করেন, পিন্টু প্রায় তাদের বলে থাকেন ‘আমি কতো খারাপ তা আপনারা কল্পনাও করতে পারবেন না। সরকার ঘোষিত ২৩ শীর্ষ সন্ত্রাসীর ১৭ জনই আমার শিষ্য’। দরখাস্তে তিনি বলেন, ‘আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে থানা বিএনপির সভাপতি হওয়া সত্ত্বেও পিন্টু আমাকে এলাকার কোনো জনসভায় সভাপতিত্ব করতে দেন না। কথায় কথায় অপমান-অপদস্থ করেন। পিন্টুর অন্যায় আবদার না মেনে নেওয়ায় আমাকে ৫/৬ টি কঠিন মামলায় জড়াতে কামরাঙ্গীরচর থানার ওসিকে নির্দেশ দেন সাংসদ। আমাকে না পেয়ে কয়েকদিন আগে পুলিশ আমার বড়ো ভাইকে ধরে থানায় নিয়ে যায়। পিন্টুর কথার বাইরে যাওয়ার সাধ্য স্থানীয় নেতাকর্মীদের নেই। সবাই তার হাতে জিম্মি। এসব কারণে আমরা বাধ্য হয়ে তার কথামতো চলি’।
২০০৫ সালের ২৪ জুন বিএনপি মহাসচিব আব্দুল মান্নান ভুঁইয়ার কাছে ইডেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদল নেত্রী শায়লা সিদ্দিকী জেনি ও র”বিনা এক দরখাসেত্ম পিন্টুর হাত থেকে ইডেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্রীদের রক্ষার আবেদন জানান। বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাধারণ ছাত্রীদের আন্দোলন দমাতে পিন্টু ২২ জুন মেয়েদের হলে প্রবেশ করে সাধারণ ছাত্রীদের অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করেন। পিন্টুর এই আচরণ সমর্থন না করায় দুই ছাত্রদল নেত্রীকে ছাত্রদলের প্রাথমিক পদ থেকে পিন্টু বহিষ্কার করেন বলে দরখাসেত্ম জেনি ও র”বিনা উল্লেখ করেন। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে ইডেনের সাধারণ ছাত্রীরা পিন্টু ও তার ভাইদের হাত থেকে বিশ্ববিদ্যালয়টিকে রক্ষা করার আবেদন করেছেন বহুবার।
২০০৪ সালের ২ ডিসেম্বর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর কাছে এক দরখাসেত্ম কামরাঙ্গীরচর থানার পূর্ব রসুলপুরের সোবহান, খালেক ও মোঃ শুকুর তাদের সম্পত্তি রক্ষার আবেদন জানান। এতে বলা হয়, পিন্টুর ছোট ভাই রিন্টু ও তাদের সাঙ্গপাঙ্গরা জোর করে তাদের সমপত্তি দখল করে নিয়েছে। একই ধরনের অভিযোগ করেন ৫/১ অরফানেজ রোড বকশীবাজারের গৃহিণী মমতাজ বেগম। এরকম অসংখ্য অভিযোগ বিগত জোট সরকারের আমলে পিন্টু সিন্ডিকেটের বির”দ্ধে আনা হলেও তার কিছুই আমলে নেয়নি তৎকালীন ক্ষমতাসীন বিএনপি। ওয়ার্ড কমিশনার আশ্রাফ আলী আযম, ওয়ার্ড কমিশনার শহীদুল ইসলাম বাবুল, সুলতানগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনির হোসেনসহ বিএনপির অনেক নেতাই গত ৫ বছরে নানাভাবে পিন্টুর হাতে নাজেহাল হয়েছেন বলে স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে। গত ২৫ জানুয়ারি কবির হোসেন নামে এক বিএনপি কর্মী পিন্টুর বির”দ্ধে একটি হত্যা প্রচেষ্টার মামলা দায়ের করেন।
জানা গেছে, বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার সন্ত্রাসী ও গডফাদারদের বির”দ্ধে অভিযান শুর” করার পর পিন্টু আত্মগোপন করেন। কিন’ আত্মগোপনে থাকলেও বুড়িগঙ্গার তীরের প্রায় সবগুলো ঘাটই পিন্টুর নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। প্রতিদিন এসব ঘাট থেকে অর্জিত টাকা তার বিশ্বসত্ম লোকজনের মাধ্যমে পৌঁছে যায় তার কাছে। নলগোলার বিসিক মার্কেট, রাজবাড়ি মার্কেটসহ পিন্টু বাহিনীর দখল করা বিভিন্ন স্থাপনার ভাড়াও পৌঁছে যায় তার কাছে।
স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে দেখা গেছে, সাধারণ মানুষের মধ্যে এখনো পিন্টু সম্পর্কে আতঙ্ক বিরাজ করছে। শুধুমাত্র কয়েক দফা বাড়িতে অভিযান চালানোর মধ্যে পিন্টু গ্রেপ্তার অভিযান সীমাবদ্ধ থাকায় আদৌ পিন্টুকে দৃষ্টানত্মমূলক শাসিত্মর আওতায় আনা যাবে কিনা এ নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে তাদের মনে। Source:ভোরের কাগজ
Date:2007-02-14

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: