মূল্য বৃদ্ধি রোধে পণ্যের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখুন : প্রধান উপদেষ্টা

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ড. ফখরুদ্দীন আহমদ বলেছেন মূল্যবৃদ্ধি রোধে স্বাভাবিক বাণিজ্য প্রবাহ বজায় রাখতে হবে। তিনি বলেন, দ্রব্যমূল্য সাধারণ মানুষের ক্রয়সীমার মধ্যে রাখতে ব্যবসায়ী সম্প্রদায়কে যথাযথ ভূমিকা পালন করতে হবে।

ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল ও সিলেটের বিভাগীয় বণিক সমিতি নেতৃবৃন্দের এক প্রতিনিধিদল বুধবার প্রধান উপদেষ্টার কার্যালয়ে সৌজন্য সাড়্গাৎকালে ড. ফখরম্নদ্দীন আহমদ এ কথা বলেন। অর্থ ও বাণিজ্য উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জা আজিজুল ইসলাম, আইন ও তথ্য উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এবং শিল্প ও সমাজকল্যাণ উপদেষ্টা গীতিআরা সাফিয়া চৌধুরী এ সময় উপস্থিত ছিলেন। দেশের অর্থনীতিকে সঠিক ধারায় আনতে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদড়্গেপের বর্ণনা দিয়ে ড. ফখরম্নদ্দীন আহমদ বলেন, সরকার ও ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের লড়্গ্য এক এবং তা হচ্ছে সুষ্ঠু অর্থনৈতিক উন্নয়ন।

তত্ত্বাবধায়ক সরকার একটি নিরপেড়্গ, সুষ্ঠু ও বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টিতে যেমন কাজ করছে, তেমনি জাতীয় অর্থনীতিতে নতুন গতি সঞ্চারেও সচেষ্ট।

চেম্বার নেতৃবৃন্দের উত্থাপিত ব্যবসা সংক্রানত্ম বিভিন্ন ইস্যুর জবাবে প্রধান উপদেষ্টা বলেন, এলসি খোলা সংক্রানত্ম সমস্যা শিগগিরই সমাধান করা হবে এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসমূহকে ইতোমধ্যে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, যাতে মজুদদারি ও সিন্ডিকেট বাণিজ্য বিরোধী অভিযান চলাকালে কোন প্রকৃত ব্যবসায়ী হয়রানির শিকার না হয়।

এ ধরনের অভিযান চালানোর আগে চট্টগ্রামে ব্যবসায়ী মহল, যৌথবাহিনী ও স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে সভার উলেস্নখ করে তিনি বলেন, মাঠপর্যায়ে এটিকে অন্যড়্গেত্রেও মডেল হিসেবে নেয়া যেতে পারে যাতে অভিযানের লড়্গ্য অর্জন করা যায়। ড. ফখরম্নদ্দীন আহমদ বলেন, তার সরকারের নীতি হচ্ছে অসৎ ব্যক্তিদের বিরম্নদ্ধে পদড়্গেপ গ্রহণ করে সৎ ব্যবসায়ীদের উৎসাহ দেয়া।

মির্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, বাণিজ্য সচিব ১৮ ফেব্রম্নয়ারি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠক করবেন এবং ২০ ফেব্রম্নয়ারি অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় টাস্কফোর্সের বৈঠকে প্রয়োজনীয় বিষয়গুলোর সমাধান করা হবে। ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন বলেন, সুস্থ অর্থনীতি বিকাশের লড়্গ্যে সরকার ব্যবসায়ী মহলকে প্রয়োজনীয় আইনগত সহায়তা দেবে।

মজুদদারি ও ভেজালের বিরম্নদ্ধে সরকারের অভিযানকে ‘শক থেরাপি’ হিসেবে বর্ণনা করে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ব্যবসার ড়্গেত্রে শৃংখলা প্রতিষ্ঠা করতে সরকারের দৃঢ় অবস্থানের প্রশংসা করেন।

ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ হরতাল ও অবরোধের বিরম্নদ্ধে আইন প্রণয়ন, মজুদদারির বিরুদ্ধে অভিযান, বিভিন্ন গুদামে বিদ্যমান মালের পরিমাণ যাচাই এবং বাণিজ্যিক ভূমি নীতি প্রণয়ন, মংলা বন্দর খনন, খুলনায় মিল-কারখানা পুনরায় খোলা, বরিশাল ও চট্টগ্রামের মধ্যে যোগাযোগ সহজকরণ, ভোলায় গ্যাস আহরণসহ বিভিন্ন ইস্যু তুলে ধরেন। তারা একদিন সাপ্তাহিক ছুটি রবিবার করারও প্রসত্মাব দেন। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-02-15

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: