ভোটার পরিচয়পত্র বা ন্যাশনাল আইডির অজুহাতে নির্বাচন পেছানো যাবে নাঃ শেখ হাসিনা

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ভোটার আইডি বা ন্যাশনাল আইডি কার্ডের অজুহাতে নির্বাচন পেছানোর কোন যুক্তি নেই। এগুলো করতে অনেক সময় লাগবে। আমরা চাই সংবিধান অনুযায়ী সরকারের ধারাবাহিকতা চলুক। ভোটার বা ন্যাশনাল আইডি পরেও করা যাবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষ সংবিধান বহির্ভূত কোন সরকার মেনে নেবে না। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব গণতন্ত্র সমুন্নত রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে। তবে ছয়টি বিভাগীয় শহরে পরীড়্গামূলক ভোটার আইডি করা যেতে পারে বলে তিনি মত প্রকাশ করেন। গতকাল মঙ্গলবার আনত্মর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলড়্গে নগরীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, ভবিষ্যতে আন্দোলন হবে এই ভয়ে কিংবা দুর্নীতির তালিকায় ব্যালান্স করতে যদি আওয়ামী লীগের ত্যাগী ও নিরীহ নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করা হয় তবে জনগণ তা মেনে নেবে না। তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, মনে রাখতে হবে আওয়ামী লীগ আন্দোলনের দল। অতীতে আইয়ুব-ইয়াহিয়া আমাদের দমাতে পারেনি। কোন সরকার পারেনি, ভবিষ্যতেও পারবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, ভোটার তালিকা সংশোধন ও ছবিসহ ভোটার তালিকা করে সামনে এগুতে হবে। নির্বাচন হবে, নির্বাচিত সরকার আসবে। একুশের চেতনায় স্বনির্ভর বাংলাদেশ গঠনের অঙ্গীকার করতে হবে।

শেখ হাসিনা দুর্নীতিবাজদের তালিকায় শুধু ভারসাম্য আনার জন্য আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের নাম না দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সাদাকে সাদা আর কালোকে কালো বলুন। ব্যালান্স করতে নিরপরাধ কাউকে ধরা হলে জনগণ মেনে নেবে না।

দেশের বর্তমান অবস্থার জন্য শেখ হাসিনা বিএনপি-জামায়াতের সীমাহীন দুর্নীতি ও সম্পদের লোভকে দায়ি করে বলেন, তারা মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছে। শুধু খাবো-খাবো করার কারণে এখন আমও গেছে-ছালাও গেছে। দুর্নীতির তালিকায় জামায়াতের মাত্র একজনের নাম থাকায় বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি বলেন, ৫ বছরে তারাও ব্যাপক দুর্নীতি করেছে।

তিনি উচ্ছেদ হওয়া স্বল্প আয়ের মানুষদের জন্য পুনর্বাসন ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়ে বলেন, অন্যথায় দেশে চুরি ছিনতাইসহ অপরাধ বেড়ে যাবে।

শেখ হাসিনা বলেন, রাজপথে আমাদের আন্দোলন সংগ্রামের ফসল হচ্ছে বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার। দুঃখ লাগে যখন দেখি রাজপথের ত্যাগী নেতাদের দুর্নীতির তালিকায় অনত্মর্ভুক্ত করা হচ্ছে। অথচ এরা কেউ ড়্গমতায় ছিল না। ড়্গমতায় না থেকে কিভাবে আওয়ামী লীগ নেতারা দুর্নীতি করল সেটাই আমার জিজ্ঞাসা, দুর্নীতি করলে বিএনপি কি তাদের ছেড়ে দিতো?

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার চোর দুর্নীতিবাজদের ধরছে। কিন্তু তালিকায় মহাচোর ও মহাদুর্নীতিবাজের নাম নেই। তার নাম বাদ দিয়ে কিভাবে দুর্নীতির তালিকা হয়। শেখ হাসিনা চোর দুর্নীতিবাজদের আটকের প্রশংসা করে বলেন, আমরা ড়্গমতায় আসলেও হয়ত এদের ধরতে পারতাম না, কেননা ফালু কিংবা মামুনকে ধরলে হয়ত খালেদা জিয়া ও তারেক হরতাল দিয়ে বসতেন, বলতো রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় তাদের নেতাদের ধরা হচ্ছে।

তিনি বলেন, শুধু ৫ বছরের দুর্নীতিবাজদের নয় স্বাধীনতার পর থেকে যারাই দুর্নীতি করেছে সবাইকে ধরতে হবে। কার বাড়িতে কত অর্থ-সম্পদ-শাড়ি হীরা জহরত আছে তা বের করতে আরো ভালভাবে তলস্নাশী করতে হবে। প্রয়োজনে আমার ঘর থেকেই শুরম্ন করম্নন। শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগের ৫ বছরে আমরা এক পয়সার দুর্নীতিও করিনি। আমরা জনগণের কল্যাণে রাজনীতি করি। শেখ হাসিনা ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, তাদের আত্মত্যাগের কারণে আজ বাঙ্গালীর-বাংলা ভাষা বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি। বিশ্বের বিলুপ্তপ্রায় ভাষাগুলো রড়্গায় ও গবেষণায়ও তাই আমাদের গুরম্নদায়িত্ব রয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা আনত্মর্জাতিক মাতৃভাষা ইন্সটিটিউট স্থাপনের কাজ শুরম্ন করেছিলাম। কিন্তু বিএনপি সরকার সে কাজ আর এগিয়ে নেয়নি। মনে হয় যে পাকিসত্মানীরা আমাদের ভাষার প্রতি বৈরিতা দেখিয়েছিল তাদের প্রেতাত্মা এদের উপর ভর করেছে।

আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুজ্জামান নূরের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিল, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিলস্নুর রহমান, সাজেদা চৌধুরী, আব্দুর রাজ্জাক, তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, কবি সৈয়দ শামসুল হক, অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনার লেখা ও বই মেলায় প্রকাশিত বই ‘সাদা কালো’ সবার সামনে উপস্থাপন করা হয়। আগামী প্রকাশনী বইটি মেলায় এনেছে। আলোচনা সভা শেষে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-02-21

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: