চরে বসবাসকারীর ৫০ শতাংশই এক বেলার বেশি খেতে পায় না

মূলভূমি থেকে বিচ্ছিন্ন চর এলাকাগুলোর মানুষজন সারা বছর জুড়েই অর্ধাহারে থাকলেও আশ্বিন-কার্তিক মাসে এসব অঞ্চলের শতকরা প্রায় ৫০ শতাংশ লোক দিনে এক বেলার বেশি খেতে পায় না৷ গতকাল সকালে সিরডাপ মিলনায়তনে এক গবেষণা রিপোর্টের মাধ্যমে এসব তথ্য তুলে ধরেন অর্থনীতিবিদ ড. আতিউর রহমান৷ কনসার্ন ওয়ার্ল্ড ওয়াইড বাংলাদেশ এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠান উন্নয়ন সমন্বয়ের যৌথ উদ্যোগে ‘নদী ও জীবন’ শীর্ষক চরাঞ্চলের হতদরিদ্র মানুষের ওপর পরিচালিত বেইজ আইন জরিপ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন এনজিও এবং গণমাধ্যম কর্মীদের সামনে তুলে ধরা হয়৷
চর অ্যালায়েন্সের উদ্বোধনী এবং বেইজ লাইন জরিপ থেকে প্রাপ্ত ফলাফলের অভিজ্ঞতা বিনিময় শীর্ষক ড. আতিউর রহমানের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা এম হাফিজউদ্দিন খান এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কনসার্ন বাংলাদেশের কান্টৃ ডিরেক্টর মি. কিরণ ক্রাউলি৷ মূল আলোচক হিসেবে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর ইব্রাহিম খালেদ৷ অনুষ্ঠানে শিক্ষক, গবেষক ছাড়াও বিভিন্ন
গণমাধ্যমের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন৷
অনুুষ্ঠানে চর অ্যালায়েন্সের পরিচিতিমূলক মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্Uশেন উপস্থাপন করেন উন্নয়ন সমন্বয়ের রিসার্চ ফেলো তাইফুর রহমান এবং মূল গবেষণালব্ধ তথ্যভিত্তিক প্রেজেন্Uশেন উপস্থাপন করেন ‘সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েট’র শ্যামল কান্তি বর্মণ৷
উপস্থিত বক্তারা চরের মানুষের অবর্ণনীয় দুঃখ-দুর্দশার বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে এটি সমাধানে কি কি প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায় সে বিষয়ে আলোকপাত করেন৷ সমকালের উপ-সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন সংবাদপত্রগুলোতে চর বিষয়ক আরো বেশি সংখ্যক সংবাদ প্রকাশের ওপর গুরুত্বারোপ করেন৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃতত্ত্ব বিভাগের প্রফেসর এইচ কে এস আরেফিন চরাঞ্চলের সংস্কৃতি সম্পর্কে আমাদের আরো বেশি সচেতন হওয়ার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরে বলেন, চরের উন্নয়নে চরের মানুষদের নিজেদেরই ঠিক করতে হবে ঠিক কোন ধরনের উন্নয়ন তাদের ভাগ্য পরিবর্তনে ভূমিকা রাখবে৷ আলোচক ইব্রাহিম খালেদ বিভিন্ন চরগুলোর স্থায়িত্বের দিকনির্দেশ করে বলেন, নদীর গতিপথ পরিবর্তন, ভাঙা-গড়া প্রভৃতি নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে চরগুলোকে বিলীন হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করা যায়৷ এর জন্য ফরিদপুরের নদী গবেষণা ইন্সটিটিউটকেও এ প্রচেষ্টার সঙ্গে যুক্ত করা যেতে পারে৷ বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মি. কিরণ ক্রলি সমস্যা উত্তরণে বাস্তবভিত্তিক সম্ভাবনাগুলোকে চিহ্নিত করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন৷ অনুষ্ঠানে এম হাফিজ উদ্দিন খান বলেন, চরের লোকগুলোও যে বাংলাদেশের মানুষ এ বোধটা আমাদের মধ্যে জাগ্রত করতে হবে এবং পিআরএসপিতে চরের সমস্যাগুলো আরো বেশি ফোকাস করার পাশাপাশি জাতীয় বাজেটে চরের জন্য আলাদা বরাদ্দেরও দাবি জানান তিনি৷
সূত্রঃ যাযাদি, 27-02-07

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: