পঞ্চগড় ও দিনাজপুরে আর্মি চিফ সন্ত্রাসী দুর্নীতিবাজদের ছাড় দেয়া হবে না

সেনাবাহিনী প্রধান লে. জেনারেল মইন উ আহমেদ বলেছেন, সন্ত্রাসী, দুর্নীতিবাজ ও গরিবের ত্রাণসামগ্রী আত্মসাত্কারীদের বিরুদ্ধে যৌথ বাহিনীর চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে৷ এদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না৷ তিনি দেশকে শীর্ষ দুর্নীতির অপবাদ থেকে মুক্ত করতে প্রশাসনের সবাইকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন৷ গতকাল মঙ্গলবার পঞ্চগড় ও দিনাজপুরে নিরাপত্তা বাহিনী ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে পৃথক বৈঠকে তিনি এ আহ্বান জানান৷
সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাত দিয়ে পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানান, সেনাপ্রধান গতকাল দুপুরে পঞ্চগড় নার্সিং ইন্সটিটিউটে পদস্থ সেনা কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসন, পুলিশ ও বিডিআরসহ সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন৷ এ সময় তিনি সন্ত্রাসী, দুর্নীতিবাজ ও গরিবের ত্রাণ-সামগ্রী আত্মসাত্কারীদের বিরুদ্ধে যৌথ বাহিনীর অভিযান অব্যা-হত রাখার ঘোষণা দেন৷ তিনি পঞ্চগড়সহ সীমান্তবর্তী জেলাগুলো দিয়ে যাতে কোনোভাবেই সার-ডিজেল পাচার না হয় সে ব্যাপারে এবং চোরাচালান প্রতিরোধে সবাইকে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানান৷
সেনাপ্রধান স্থানীয় প্রশাসনকে জনগণের সেবায় একযোগে আন্তরিক হয়ে কাজ করারও পরামর্শ দেন৷ এছাড়া তিনি টেলিফোন, বিদ্যুত্সহ সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিল খেলাপিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশ দেন৷
বৈঠকে রংপুর ক্যান্টনমেন্টের জিওসি মেজর জেনারেল ফাতেমী আহমেদ রুমী, জেলা প্রশাসক মোঃ হাফিজ উদ্দিন, পুলিশ সুপার হারুন-অর রশীদ, ২৫ রাইফেলস ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল শাহেদুল হক শাহেদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন৷
বৈঠক শেষে দুপুর ২টায় সেনাপ্রধান দিনাজপুরের উদ্দেশে পঞ্চগড় ত্যাগ করেন৷
দিনাজপুর প্রতিনিধি জানান, সেনাপ্রধান বিকাল ৩টায় দিনাজপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের হলরুমে স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় কথা বলেন৷ এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশ পরপর কয়েক বছর দুর্নীতির শীর্ষে অপবাদ নিয়ে বহির্বিশ্বে চিহ্নিত হয়ে আসছে৷ এ অপবাদ থেকে বের হয়ে আসতে প্রশাসনের সবাইকে একযোগে কাজ করে যেতে হবে৷ দেশকে শতভাগ দুর্নীতিমুক্ত করতে না পারলেও দেশের মর্যাদা রক্ষায় দুর্নীতির পরিমাণ যেন অনেকাংশে কমিয়ে আনা যায় সে লক্ষ্যে প্রশাসনকে কাজ করে যেতে হবে৷ তিনি আরো বলেন, কৃষি উত্পাদন বাড়াতে প্রতি বস্তা সার ৭০০ টাকায় ক্রয় করে কৃষকের কাছে ৩০০ টাকায় সরবরাহ করা হচ্ছে৷ কৃষকদের উত্পাদন অব্যাহত রাখতে ন্যায্য মূল্যে সার, তেল এবং কীটনাশকসহ কৃষি সরঞ্জাম সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে৷ তারা যাতে প্রয়োজনীয় বিদ্যুত্ পায় সেদিকে নজর রাখতে হবে৷
সেনাপ্রধান বলেন, আইন-শৃৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রশাসনকে সব ধরনের ব্যবস্থা নিতে হবে, যাতে দেশের মানুষ তাদের জানমাল নিয়ে নিরাপদে চলাফেরা করতে পারে৷ তিনি বলেন, সেনাবাহিনীকে পাঠানো হয়েছে সিভিল প্রশাসনকে সহযোগিতা করার জন্য৷ তাদের কোনো খবরদারি করার জন্য বলা হয়নি৷
সভায় রংপুর সেনাবাহিনী ক্যাম্পের জিওসি মেজর জেনারেল ফাতেমী রুমী, দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক এ এম সাইফুল ইসলাম, বিডিআরের ভারপ্রাপ্ত সেক্টর কমান্ডার লে. কর্নেল নূরুল আলম, স্থানীয় সেনা ক্যাম্পের অধিনায়ক লে. কর্নেল বেলায়েত হোসেন, পুলিশ সুপার মোস্তফা কামাল, কৃষি বিভাগের উপপরিচালক, বিদ্যুত্, পানি উন্নয়ন বোর্ড, সড়ক ও জনপথ, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন৷
বৈঠক শেষে বিকাল সাড়ে ৪টায় সেনাপ্রধান হেলিকপ্টারযোগে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন৷ Source:দৈনিক যায়যায়দিন
Date:2007-02-28

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: