বিএসইসি ভবনের আগুন নাশকতামূলক?

রাজধানীর কারওয়ান বাজারের বিএসইসি ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা তদন্ত শুরু করেছে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। ঘটনাটি নিছক দুর্ঘটনা না বড় ধরনের নাশকতামূলক হামলা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা প্রাথমিকভাবে এ ঘটনাকে নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড বলে আশংকা করছে। শিল্প মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটি তাদের প্রাথমিক রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। বিএসইসি ভবনের একটি সূত্রে প্রকাশ, ভবনের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত আবুল খায়ের গ্রুপের যমুনা অয়েলের প্রতিষ্ঠান থেকে পূর্ব-পরিকল্পিতভাবে এ আগুন লাগানো হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এদিকে কারওয়ান বাজারের বিএসইসি ভবন থেকে গতকাল মঙ্গলবার আরও একটি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবারের ওই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো চারে। মৃতের নাম আনোয়ার হোসেন। সে এনটিভির নিরাপত্তা প্রহরী ছিল। গতকাল বেলা সোয়া ১১টার দিকে ভবনের ৮ম তলা থেকে তার পুড়ে যাওয়া মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তার মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

গত সোমবার রাত ৯টার পর থেকে পুরো ভবন র‌্যাব ও পুলিশ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। রাত থেকে গতকাল পর্যনত্ম বহিরাগত এবং ভবনের সংশিস্নষ্ট প্রতিষ্ঠানের কোন মালিককে ভবনে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। তদনেত্মর স্বার্থে কাউকে ভবনের ভেতর প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় গঠিত পৃথক তিনটি তদনত্ম কমিটি গতকাল মঙ্গলবার তাদের তদনত্ম কাজ শুরম্ন করেছে। পৃথক তিনটি তদনত্ম কমিটির সদস্যরা বিএসইসি ভবন থেকে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেন এবং বিভিন্ন ব্যক্তির সাড়্গ্য গ্রহণ করেন। এদিকে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল গতকাল ভবনের ভেতর থেকে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করে নিয়ে গেছে।

প্রত্যড়্গদর্শী ও বিভিন্ন সূত্র জানায়, সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ভবনের দ্বিতীয় তলা থেকে আগুন লাগার পর মুহূর্তের মধ্যে পুরো ভবনে আগুন লাগার ব্যাপারটি রহস্যজনক। আবুল খায়ের গ্রম্নপের যমুনা অয়েলের ক্যান্টিনের চুলা থেকে যে আগুনের সূত্রপাত হয়, তা সহজেই নেভানো যেতো বলে ঐ ভবনের অনেক কর্মচারী অভিযোগ করেন। তারা বলেন, গ্যাসের চুলা থেকে আগুন লাগার পর পর কয়েকজন সঙ্গে সঙ্গে এ্যালার্ম বাজিয়ে দেয়। সেখানে আবুল খায়ের গ্রম্নপের উপস্থিত সিকিউরিটি সুপারভাইজার আবুল হাসান ছুটে আসা লোকদের বলেন, ‘এটা সামান্য আগুন। ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়ার প্রয়োজন নেই।’ এই বলেই ঐ ভবনে কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। আর মুহূর্তের মধ্যেই আগুনের লেলিহান ছড়িয়ে পড়ে পুরো ভবনে। এ সময় ভবনের দ্বিতীয় তলা থেকে আবুল হাসানসহ কয়েকজনকে দৌঁড়ে পালিয়ে যেতে দেখেন ভবনের কর্মরত গার্ডরা।

আবুল খায়ের গ্রম্নপের বিরম্নদ্ধে ওরিয়েন্টাল ব্যাংকের সঙ্গে লেনদেনের ব্যাপারে একটি অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া খাদ্যে ভেজাল ও নিম্নমানের খাদ্যদ্রব্য বিক্রির ব্যাপারটি যৌথবাহিনীর কাছে হাতে-নাতে ধরা পড়ে। এরপর থেকে ঐ ভবনে অবস্থিত যমুনা অয়েলের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা বেশ কিছুদিন ধরে অফিসে আসা বন্ধ করে দেয়। তাদের বিরম্নদ্ধে দায়েরকৃত অভিযোগের প্রমাণাদি ও আলামত নষ্ট করার জন্য এই আগুন পূর্ব-পরিকল্পিতভাবে লাগানো হয়েছে বলে গোয়েন্দা সংস্থা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে।

শিল্প মন্ত্রণালয় গঠিত তদনত্ম কমিটি গতকাল তাদের প্রাথমিক রিপোর্টে বলেছে, অগ্নিকাণ্ডের সম্ভাব্য কারণ হিসেবে শর্ট সার্কিট কিংবা ভবনে রড়্গিত কোন দাহ্য পদার্থকে মনে করা হলেও এখনও তা চূড়ানত্মভাবে নিশ্চিত করা যায়নি। তবে দ্বিতীয় তলা থেকেই অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছিল বলে নিশ্চিত করা হয়।

রিপোর্টে বলা হয়, তদনত্ম কমিটি গত সোমবার বিকেল ৫টা থেকে তদনত্ম কার্যক্রম শুরম্ন করলেও পরিবেশ প্রতিকূল হওয়ায় সাড়ে ৮টার দিকে তদনত্ম কার্যক্রম স্থগিত রাখা হয়। পরবর্তীতে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে পুনরায় তদনত্ম কার্যক্রম শুরম্ন করে এবং পরিকল্পনা মাফিক ভবনের প্রতিটি তলায় পরিদর্শন করে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে। সুষ্ঠু তদনেত্মর স্বার্থে কমিটি বিএসইসি, রাজউক এবং ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বিভাগ থেকে কতিপয় দলিল সংগ্রহ করা প্রয়োজন বলে অভিমত প্রকাশ করেছে। তদনত্ম কমিটি পুরো কাজ সমাপ্ত করতে আরও সময় প্রয়োজন উলেস্নখ করে তদনেত্মর সময়সীমা ন্যূনতম ৪৮ ঘন্টা বৃদ্ধির জন্য আবেদন করেছে। বিএসইসি ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা তদনেত্মর জন্য শিল্প মন্ত্রণালয়ের পড়্গ থেকে মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব মুশতাক হাসান মুহম্মদ ইফতিখার এর নেতৃত্বে গঠিত পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদনত্ম কমিটি তাদের তদনেত্মর কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গঠিত তদনত্ম কমিটিও তাদের তদনেত্মর কার্যক্রম শুরম্ন করেছে এবং ভবনের প্রতিটি তলায় পরিদর্শন করে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তদনত্ম কমিটি আজ বুধবার তাদের রিপোর্ট প্রকাশ করবে। ফায়ার সার্ভিস গঠিত তদনত্ম কমিটি একইভাবে কাজ শুরম্ন করেছে। তারাও আজ বুধবার তাদের রিপোর্ট প্রকাশ করবে।

এদিকে গতকাল ভবনের সামনে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট অবস্থান করছিল। তাদের পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যনত্ম সেখানে অবস্থান করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ভবনের চতুর্দিকে গতকালও উৎসুক জনতার ভিড় লড়্গ্য করা গেছে। তবে কাউকে ভবনের সীমানার ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি।

সোমবার সকালে কারওয়ান বাজারের বিএসইসি ভবনে আগুন লাগে। টানা ৬ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে দমকল বাহিনী, বিমানবাহিনী, সেনাবাহিনী ও স্থানীয় লোকজন আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। ১১ তলা বিশিষ্ট ওই ভবনে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এনটিভি, আরটিভি, ড্যান্ডি ডায়িং, আরব বাংলাদেশ ব্যাংক, আমার দেশ পত্রিকাসহ বহু প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যালয় অবস্থিত। আগুনে এ প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যাপক ড়্গতি হয়। ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, ভবনের ২য়, ৩য়, ৪র্থ, ৭ম ও ৯ম তলা সবচেয়ে বেশি ড়্গতিগ্রসত্ম হয়। সোমবার ইস্পাত কর্পোরেশনের জিএম আফতাবউদ্দিন আহমদ ও পিয়ন মোকসেদা বেগম এবং এনটিভির ক্লিনার জ্যোৎস্না বেগম মারা যান।

বিভিন্ন সংগঠনের শোক

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি মনজুরম্নল আহসান বুলবুল, মহাসচিব আব্দুল জলিল ভুঁইয়া এবং ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সভাপতি আলতাফ মাহমুদ ও ওমর ফারম্নক এক যৌথ বিবৃতিতে কারওয়ান বাজারে বিএসইসি ভবনের অগ্নিকান্ডের ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তারা সাংবাদিক-কর্মচারীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ ও তাদের চাকরির ধারাবাহিকতা বজায় রাখার আহবান জানান।

এছাড়া যেসব সংগঠন গভীর শোক প্রকাশ করেছে সেগুলো হচ্ছেঃ বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্র, দেশ প্রেমিক জনতা দল, ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, ফোরাম ফর দি সাইলেন্ট মেজরিটি, বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন, মহানগরী যুব সমাজ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন ও ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনসহ বিভিন্ন সংগঠন। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-02-28

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: