চট্টগ্রাম চেম্বারের সঙ্গে আমদানিকারকদের বৈঠক আবার নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির সিদ্ধান্ত

বেশ কিছুদিন বিরতির পর আবার পুরোদমে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির জন্য এলসি খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চট্টগ্রামের আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীরা৷ গতকাল বুধবার চট্টগ্রাম চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্টৃর নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকে ব্যবসায়ীরা এ আশ্বাস দেন৷ সম্প্রতি চট্টগ্রামের বিভিন্ন গুদামে মজুদ বিপুল পরিমাণ নষ্ট ও পচা খাদ্য পণ্যসহ বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী যৌথ বাহিনীর হাতে আটক হওয়ার পর সাধারণ ব্যবসায়ীরা এলসি খোলা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন৷ এর ফলে আগামী কিছু দিনের মধ্যে দেশে তীব্র খাদ্য সঙ্কটের আশঙ্কা করা হচ্ছিল৷
চেম্বার প্রেসিডেন্ট সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় ব্যবসায়ীরা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে তাদের বেশ কিছু সমস্যার কথা তুলে ধরেন৷ এর মধ্যে রয়েছে আটক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে নগরীর বিভিন্ন থানায় দায়ের করা ছয়টি মামলা তুলে নেয়া, পণ্যের আমদানি শুল্ক কমানো, ডলারের রেট ওপেন রাখার পরিবর্তে ফিক্সড করে দেয়া, পণ্যের পিএসআই সংক্রান্ত জটিলতা লাঘব করা, গুদামে অভিযান চালানোর সময় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে রাখা৷ এছাড়া ব্যবসায়ীরা দেশের বিভিন্ন স্থল বন্দর দিয়ে পণ্য আমদানির পারমিট চট্টগ্রাম থেকে ইসু করা এবং ট্রাকে পণ্য লোড করার সময় গুদাম মালিকদের চাদাবাজি বন্ধ করারও দাবি জানান৷ বৈঠকে ব্যবসায়ীরা কি পরিমাণ পণ্য কতোদিন পর্যন্ত গুদামে রাখতে পারবেন সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইন প্রণয়নের জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ জানান৷ এ সময় এম এস আলম নামে এক ব্যবসায়ী জানান, আমার পণ্য গুদামে রেখেছি মঙ্গলবার৷ অথচ বুধবারই এসব পণ্য মজুদদারির অভিযোগে সিজ করা হয়৷
এলসি করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ব্যবসায়ীরা বলেন, লোকসানের ঝুকি আছে জেনেও দেশের প্রতি ভালোবাসার কারণে আমরা আবার পণ্য আমদানি করতে চাই৷ আমরা জানি, এখনই এলসি না খুললে দেশে আবার ৭৪ সালের মতো দুর্ভিক্ষ হবে৷
চেম্বার প্রেসিডেন্ট সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলেন, কিছু অসাধু ব্যবসায়ীর সীমাহীন লোভের কারণে পুরো ব্যবসায়ী সমাজকে দুর্নামের ভাগীদার হতে হয়েছে৷ অতীতের কাজের জন্য ক্ষমা পেলেও ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধের পুনরাবৃত্তি করলে তারা আর ক্ষমা পাবেন না৷ তিনি অযথা আতঙ্কিত না হয়ে নির্ভয়ে ব্যবসা করার জন্য ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানান৷ তিনি সরকারের বিভিন্ন মহলের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেয়ারও আশ্বাস দেন৷
দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্প প্রতিষ্ঠান পিএইচপি গ্রুপের চেয়ারম্যান সুফী মিজানুর রহমান বলেন, আমরা এতোদিন তিলকে তাল, তালকে জাল এবং জালকে ভেজাল বানিয়ে ব্যবসা করেছি৷ গুদামে অভিযান চালিয়ে সরকার আমাদের ওয়েক আপ কল দিয়েছে৷
বৈঠকে বক্তব্য রাখেন চেম্বার নেতা এম এ লতিফ, মাহবুব আলম, টি কে গ্রুপের এমডি আবুল কালাম, মোঃ শফি, আবদুল মালেক, এস এ গ্রুপের এমডি শাহাবুদ্দিন আলম প্রমুখ৷
সূত্রঃ যাযাদি, 01-03-07

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: