বিমান পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হচ্ছে ।। এখন চলছে শুদ্ধি অভিযান

শীঘ্রই পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিতে পরিণত হচ্ছে জাতীয় পতাকাবাহী বিমান সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন। বিমানকে পুনর্গঠনের আওতায় আনা এবং এর বাণিজ্যিক পরিচালনার স্বার্থে সরকার এই পদক্ষেপ গ্রহণ করতে যাচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে লোকসানী ও মাথাভারী সংস্থাটিকে কোম্পানিতে রূপান্তরের মাধ্যমে সম্পূর্ণ একটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে পরিচালনা করতে যাবতীয় উদ্যোগও নেয়া হবে। কেনা হবে নতুন উড়োজাহাজ। পাশাপাশি বিমানের কর্মকর্তা/কর্মচারী কর্তৃক বিজনেস ক্লাসের ব্যবহারও বন্ধ করা হবে। এ বিষয়ে বিগত সরকারের আমলে সিদ্ধানত্ম নেয়া হলেও তা অজ্ঞাত কারণে বাসত্মবায়ন করা যায়নি। বর্তমান সরকার বিমানের সব ধরনের সংস্কার করতে আগ্রহী বলে জানিয়েছে সংশিস্নষ্ট সূত্র। সূত্র জানায়, বাংলাদেশে পরিচালনাকারী বিভিন্ন দেশের বিমান সংস্থার উত্তরোত্তর মুনাফা বাড়লেও জাতীয় পতাকাবাহী বিমান সংস্থাটি লোকসানের ভারে আজ ন্যূব্জ। গত দশ বছরে সংস্থাটির পুঞ্জীভূত লোকসানের পরিমাণ ৫শ’ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। অব্যাহত লোকসানের মুখে অভ্যনত্মরীণ ও আনত্মর্জাতিক কয়েকটি রম্নটে ফ্লাইট পরিচালনাও বন্ধ করতে হয়েছে।

বাংলাদেশ বিমানকে বাণিজ্যিক সংস্থা হিসাবে ঘোষণা দেয়া হলেও সঠিক কোন দিকনির্দেশনা ছিল না। ফলে, বিভিন্ন রম্নটে লোকসান দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা করেছে বিমান। আবার বিমান বহরে অত্যাধুনিক এয়ারক্রাফট সংযোজন না হওয়া, মাথাভারী প্রশাসন প্রভৃতি কারণে প্রতিযোগিতাসড়্গমতা লাভে ব্যর্থ হয় বিমান। এছাড়া, বিমানকে এমন সব এয়ারলাইনের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হচ্ছে- যারা বিমানের জ্বালানি তেলের দামের চেয়ে কম দামে জ্বালানি সংগ্রহ করে থাকে। বিমানের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী অধিকাংশই মধ্যপ্রাচ্যের এয়ারলাইন।

বিমানের বর্তমান পরিস্থিতির অন্যতম অভ্যনত্মরীণ কারণ হচ্ছে-দড়্গ জনশক্তি ও সঠিক ফ্লিট পস্ন্যানিংয়ের অভাব। বাণিজ্যিক সংস্থাটিতে শীর্ষ পদে নিয়োগ দেয়া হয়ে থাকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় অদড়্গদের। এদের কেউ কেউ আবার অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। কোন দায়বদ্ধতা না থাকায় সংস্থার লাভ নিয়ে কোন চিনত্মা এদের থাকে না। পরিচালক, মহাব্যবস্থাপক, পাইলটের পদে পর্যনত্ম চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয়া হয়। এজন্য বিমানের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের মধ্যে ড়্গোভও বিরাজ রয়েছে। সবমিলিয়ে বিমান পরিচালনায় ত্রম্নটি থাকায় সংস্থাটিকে লাভজনক করা সম্ভব হয়নি। বিমানের বহরে একাধিক ধরনের উড়োজাহাজ থাকায় সব উড়োজাহাজের জন্য পৃথক পাইলট রাখতে হচ্ছে। এতে করেও বিমানের অর্থ গচ্চা যাচ্ছে।

অথচ বাংলাদেশেই অন্যান্য এয়ারলাইন্সের ব্যবসা বেড়েছে। কোন কোন বিমান সংস্থা ঢাকা থেকে দৈনিক দুইবার ফ্লাইট পরিচালনা করছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আসলে কার্যকর পরিকল্পনা ও বাণিজ্যিক সুলভ মনোভাব না থাকায় বাংলাদেশ বিমানকে লোকসান গুনতে হচ্ছে। বিমানের রড়্গণাবেড়্গণ খাত থেকে শুরম্ন করে প্রায় সবখাতেই নানারকম দুর্নীতি হয়ে থাকে। রাজনৈতিক ড়্গমতাধর সিন্ডিকেটের কারণেও বিমানের কেনাকাটায় বড়ধরনের দুর্নীতি-অনিয়ম ছিল স্বাভাবিক ঘটনা। বিগত সরকারের আমলে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায়ও কিছু সিদ্ধানত্ম নেয়া হয়েছিল। কিন্তুু সে সবও কার্যকর করা হয়নি। এর মধ্যে ছিল- অত্যধিক হারে তেলখরচ এবং রড়্গণাবেড়্গণ খরচ বিমানের আর্থিক লোকসানের মূল কারণ হওয়ায় ডিসি -১০ উড়োজাহাজ পর্যায়ক্রমে বিমানের ফ্লিট থেকে প্রত্যাহারের ব্যবস্থা, ডিসি-১০ এর পাইলট এবং ইঞ্জিনিয়ারদের বিমানের অভ্যনত্মরীণ কাঠামোতে মানসম্মত ও সুবিধাজনক পদে নিয়োজিত করার ব্যবস্থা এবং ডিসি-১০ উড়োজাহাজ প্রত্যাহার প্রক্রিয়ায় এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ, বুয়েটের প্রতিনিধি, বিমান বাহিনীরি প্রতিনিধি ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধির অনত্মর্ভুক্ত করা। ৩/৪ মাসের মধ্যে এসব সিদ্ধানত্ম বাসত্মবায়ন করতে বলা হলেও তা কার্যকর হয়নি। বিমানের লোকবল যৌক্তিকীকরণের সিদ্ধানত্ম নেয়া হয়েছিল। সেটাও সম্ভব হয়নি।

বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর ইতিমধ্যে সংস্থাটিতে শুদ্ধি অভিযান শুরম্ন করা হয়েছে। একই সঙ্গে বিমানে নতুন এয়ারক্রাফট ক্রয়সহ আরো সংস্কার পদড়্গেপ নেয়া হবে বলে জানিয়েছে একটি সূত্র। বাণিজ্যিক ভিত্তিতে পরিচালনার জন্য এর পরিচালনা বোর্ডে থাকবে সরকারী-বেসরকারী খাতের লোকজন। যাতে সিদ্ধানত্ম নিতে সুবিধা হয়। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-03-01

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: