সমস্ত সংস্কার শেষ করেই নির্বাচন দিন : এরশাদ

সমস্ত সংস্কার কাজ সম্পন্ন করেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি জানিয়েছে জাতীয় পার্টি (জাপা)। একই সঙ্গে নির্বাচনের আগে ভোটার আইডি কার্ড ও ছবিসহ একটি সুষ্ঠু ভোটার তালিকা প্রণয়নেরও দাবি জানিয়েছে তারা। গতকাল সোমবার ৭ সদস্যের একটি জাপা প্রতিনিধিদল প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ড. এ টি এম শামসুল হুদার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এ দাবি জানায়। এসব কাজ সম্পন্ন করতে যতোটুকু সময় লাগে ততোদিন পরেই নির্বাচন দিতে হবে বলে প্রতিনিধিদলের নেতা পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সাংবাদিকদের কাছে মন্তব্য করেন।
উল্লেখ্য, এর আগে গত রোববার বিএনপি এবং ২৮ ফেব্রচ্ছারি আওয়ামী লীগ প্রতিনিধিদল পুনর্গঠিত নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেও এই প্রথম কোনো পার্টি প্রধান ও একজন সাবেক রাষ্ট্রপতি নিজেই কমিশনে গিয়ে সিইসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন এবং বৈঠকে তার দলের পক্ষে নেতৃত্ব দেন। এছাড়া আওয়ামী
লীগ ও বিএনপি নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিয়ে তার মধ্যে আগামী সংসদ নির্বাচনের দাবি তুললেও জাপা হেঁটেছে তার সম্পূর্ণ উল্টো পথে।
বৈঠক শেষে জাপা চেয়ারম্যান এরশাদ উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, প্রয়োজনীয় আইন সংস্কার, ভোটার আইডি কার্ড ও ছবিসহ একটি সুষ্ঠু ভোটার তালিকা প্রণয়ন, প্রশাসনে রদবদল এবং দুর্নীতির মাধ্যমে যারা কালোটাকার মালিক হয়েছেন তাদের বির”দ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের পরই নির্বাচন হওয়া উচিত। এ ছাড়া আইন প্রণয়ন করে দুর্নীতিবাজ ও কালোটাকার মালিকদের নির্বাচন থেকে দূরে রাখার ব্যবস্থা করতে হবে। নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সৌজন্য বৈঠকে জাপা এসব দাবি তুলেছে বলেও এরশাদ জানান।
এক প্রশ্নের জবাবে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও মহাঐক্যজোট নেতা এরশাদ বলেন, সংস্কারসহ প্রয়োজনীয় কাজগুলো শেষ করে নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ প্রস’ত হলেই তবে নির্বাচন চাইবো আমরা। প্রয়োজনীয় কাজ করতে যদি ২ বছর লাগে সেক্ষেত্রে আপনার দলের ভূমিকা কী হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার মনে হয় না যে এসব কাজ শেষ করতে ২ বছর লাগবে। মহাজোট জুন মাসের মধ্যে নির্বাচন দাবি করেছে, কিন’ আপনি টাইম ফ্রেম দিচ্ছেন না, অথচ জাপাতো মহাজোটেরই অংশ-এ ব্যাপারে আপনার বক্তব্য কী স্ববিরোধী নয়? এ প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, আওয়ামী লীগ আমাদের সঙ্গে আলোচনা না করেই এই দাবি তুলেছে। আর ইসি প্রস’ত না হলে নির্বাচন চেয়ে তো লাভ নেই।
সংসদ নির্বাচনের আগে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠানের ধারণা পোষণ করে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, আমরা উপজেলা নির্বাচনের প্রস’তি হিসেবে পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ শুর” করেছি। তবে কমিশন এ ব্যাপারে কিছু বলেনি। এ ছাড়া সংসদ ও উপজেলা নির্বাচন একই সময়ে হতে পারে বলেও ইঙ্গিত দেন তিনি।
দুর্নীতিবাজদের নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করতে আইন প্রণয়ন করা হলে আপনার দলের অনেকেই নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। এমনকি আপনার বিরুদ্ধেও দুর্নীতির মামলা রয়েছে, এ বিষয়ের ওপর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে এরশাদ বলেন, আমি দুর্নীতিবাজ নই। আমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির কোনো প্রমাণ নেই। কারা দুর্নীতিবাজ এখন তো আপনারা তা দেখতেই পাচ্ছেন।
সিইসির কক্ষে বিকেল পৌনে ৪টা থেকে ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে সিইসি ড. শামসুল হুদা ছাড়াও অপর ২ নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ ছহুল হোসেইন ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন এবং ভারপ্রাপ্ত ইসি সচিব হুমায়ুন কবির উপস্থিত ছিলেন। জাপা প্রতিনিধিদলে আরো ছিলেন প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, জিয়াউদ্দিন বাবলু, মহাসচিব এ বি এম র”হুল আমিন হাওলাদার প্রমুখ। Source:ভোরের কাগজ
Date:2007-03-06

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: