দুদকে তিন মহাপরিচালক : আরও ৩০০ তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হবে

দুর্নীতি দমন কমিশনে তিনজন মহাপরিচালক নিয়োগ করা হয়েছে। তারা হলেন- স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব  সৈয়দ মুস্তাফিজুর রহমান, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব এজেডএম সফিকুল আলম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব বেগম রওশন আরা বেগম।
এছাড়া দুর্নীতির ঘটনা অনুসন্ধান, দুর্নীতির মামলা তদন্ত ও দুর্নীতি প্রতিরোধমূলক কাজ ত্বরান্বিত করতে আরও ৩০০ তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ দেবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বর্তমানে সারাদেশে দুর্নীতির তদন্ত ও অনুসন্ধান কাজের জন্য মাত্র ৯০ জন কর্মকর্তা নিয়োজিত রয়েছেন। এই ৯০ জনের মধ্যে ৩৬ জন উপ-পরিচালক ও ৫৪ জন সহকারী পরিচালক। দুদকের নিয়ম অনুযায়ী উপ-পরিচালকরা বরাবরই মাঠ পর্যায়ে তদন্ত কাজের চেয়ে তদন্ত কাজ সমন্বয়কের কাজ করে থাকেন। আর মাঠ পর্যায়ে তদন্ত কাজ পরিচালনা করেন ইন্সপেক্টর পদ থেকে সদ্য পদোন্নতি পাওয়া সহকারী পরিচালক। তাদের মধ্যে আবার ২০ জন কর্মকর্তাকে যৌথ বাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত দুর্নীতিবিরোধী টাস্কফোর্সের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। প্রত্যেক তদন্ত কর্মকর্তার ওপর বড় ধরনের একাধিক দুর্নীতির মামলার তদন্তের দায়িত্ব পড়েছে।
এদিকে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আগামী সপ্তাহে সন্দেহভাজন দুর্নীতিবাজদের নতুন তালিকা প্রকাশ করবে।

হুয়া দু ও ফসকেটের সাক্ষাৎ
এডিবি’র কান্ট্রি ডিরেক্টর হুয়া দু ও বাংলাদেশে নিয়োজিত অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনার ডগলাস ফসকেট বুধবার দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান হাসান মশহুদ চৌধুরীসহ দুদকের দুই কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে দুদকের কাজে সর্বাত্মক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন। বিকালে হুয়া দু’র নেতৃত্বে এডিবির প্রতিনিধি দল সেগুনবাগিচায় দুদকের কার্যালয়ে যায়। তারা দুদক চেয়ারম্যানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেন। দুদক থেকে বের হয়ে হুয়া দু বলেন, এডিবি দুদক প্রতিষ্ঠার প্রথম থেকে এই সংস্থাকে বিভিন্ন ভাবে সহায়তা দিয়ে আসছে। এডিবি চায় দুদক যেন স্বাধীনভাবে কাজ করে। বর্তমানে দুদক দুর্নীতিবিরোধী যে শক্ত ভূমিকা রেখে যাচ্ছে তাতে এডিবি খুশি। তিনি বলেন, দুদকের আইনগত কাঠামোসহ দুর্বল দিকগুলো চিহ্নিত করে ভবিষ্যতে এ ব্যাপারে আর্থিক সহায়তাও দেবে এডিবি। এছাড়া দুদকের অর্গানোগ্রাম প্রণয়নেও প্রয়োজনীয় সহায়তা দেয়া হবে।

এর আগে দুপুরে অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনার ডগলাস ফসকেট দুদকের চেয়ারম্যানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎ শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তার দেশের সরকার দুদককে কারিগরি সহায়তা দিতে প্রস্তুত। তিনি বলেন, দুদকের দুর্বল দিকগুলো নিয়েও এর চেয়ারম্যানের সঙ্গে তার আলোচনা হয়েছে।
চেয়ারম্যান হাসান মশহুদ চৌধুরী বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা না বললেও দুদক থেকে বের হওয়ার পথে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, দুর্নীতি প্রতিরোধ ও তদন্তকারী কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের বিষয়ে এডিবি’র সহায়তা চাওয়া হয়েছে। Source:দৈনিক যুগান্তর
Date:2007-03-15

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: