ছবিসহ ভোটার তালিকা ও জাতীয় আইডি কার্ডের কাজ শুরম্ন হচ্ছে আগষ্টে

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য ছবিযুক্ত ভোটার তালিকার পাশাপাশি জাতীয় পরিচয়পত্রও তৈরী করা হবে। সংস্কার শেষে আগামী আগষ্টে ভোটার তালিকা ও জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরীর কাজ শুরম্ন করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আলাদাভাবে ভোটার আইডি কার্ড তৈরী করা হবে না। ন্যাশনাল আইডি কার্ডই ভোটার আইডির বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা হবে। প্রাথমিকভাবে শুধু ভোটার হওয়ার যোগ্য ১৮ বছরের বেশী বয়সী নাগরিকদের পরিচয়পত্র দেয়া হবে। কমিশন সরকারের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে এ কাজ করবে।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ড. এটিএম শামসুল হুদা এ প্রসঙ্গে বলেন, এ কাজের জন্য আনত্দর্জাতিক দরপত্র আহবান করা হবে। ন্যাশনাল আইডি কার্ড হলে আর ভোটার আইডি কার্ড দরকার পড়বে না। ন্যাশনাল আইডির কাজ অনেক ব্যাপক। এটা দিয়ে ভোটার আইডির কাজও করা যাবে। তিনি বলেন, এর প্রাথমিক প্রক্রিয়া শুরম্ন হয়ে গেছে। তবে মাঠ পর্যায়ের কাজ শুরম্ন হতে আরো ৪-৫ মাস দেরি হবে। প্রকল্প তৈরী, পরামর্শক ও লোকবল নিয়োগ, তাদের প্রশিৰণসহ সব কাজ শেষ করতে এ সময় লাগবে। তিনি বলেন, এটা কমপৰে তিনশ থেকে সাড়ে তিনশ কোটি টাকার কাজ, তাই স্থানীয় দরপত্রে এ কাজ হবে না।

সিইসি বলেন, ছবিসহ ভোটার তালিকা ও ন্যাশনাল আইডি কাজ একসাথে শুরম্ন হবে। একই কাজের জন্য সরকার তো দুইবার অর্থ ব্যয় করতে পারে না।

এ প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনার মুহাম্মদ ছহুল হোসাইন ইত্তেফাককে বলেন, বিশেষজ্ঞদের মত অনুযায়ী ন্যাশনাল আইডির জন্য ১৮টি তথ্য লাগবে। কেউ কেউ বলেছে ২৮টি তথ্য লাগবে। অন্যদিকে ভোটার তালিকার জন্য লাগবে ৫টি তথ্য। আমরা এ উদ্যোগকে এক যাত্রায় তিন ফল হিসেবে বিবেচনা করছি। অর্থাৎ ভোটারের কাছে একবার গিয়েই ছবি, ভোটার তথ্য ও ন্যাশনাল আইডির তথ্য সংগ্রহ করা হবে।

সূত্র জানায়, নির্বাচন কমিশন শিগগিরই এ বিষয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে জয়েন্ট ভেঞ্চারে প্রকল্প শেষ করার প্রসত্দাব দেবে। সরকার রাজি হলে ভোটার তালিকার অংশের খরচ দিবে কমিশন এবং বাকি অর্থ সরকার বহন করবে।

বর্তমানে ভোটার তালিকা অধ্যাদেশ ও বিধিতে ছবিযুক্ত ভোটার তালিকার কোন বিধান নেই। এছাড়া অধ্যাদেশে ভোটার আইডি কার্ড দেয়ার কথা বলা হয়েছে। ফলে ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা ও জাতীয় পরিচয়পত্র করতে আইনগত বাধা দূর করতে কমিশন প্রয়োজনীয় আইন পরিবর্তন ও সংযোজন করবে।

লেমিনেট করা এ পরিচয়পত্রে ভোটারের ছবি, নাম-দসত্দখত বা বৃদ্ধাঙ্গুলের ছাপ, ভোটার তালিকা অনুযায়ী ক্রমিক নম্বর থাকবে। এতে কমিশনের ৰমতাপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তার দসত্দখত ও সিলমোহর থাকবে।

সূত্রঃ http://www.ittefaq.com/get.php?d=07/03/22/w/n_ztquur

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: