হাওয়া ভবনে খালেদা জিয়া ও তারেকের রুম ভেঙে তল্লাশি

দুর্নীতির আখড়া হিসেবে খ্যাত হাওয়া ভবনে বৃহস্পতিবার রাতে যৌথ বাহিনী ৬ ঘণ্টা তল্লাশি করে কম্পিউটারের ২২টি সিডি, ২টি হার্ডডিস্ক, কয়েকটি ব্যাংকের চেকবই, কিছু কাগজপত্র ও ২০ কপি ছবি জব্দ করেছে। রাত ১২টা থেকে ভোর সাড়ে ৬টা পর্যন্ত তল্লাশি চালানো হয়। এ সময় হাওয়া ভবনে তারেক রহমানের গোপনীয় নম্বর দিয়ে লক করা কক্ষের দরজা ভেঙে ফেলা হয়। যৌথ বাহিনী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কক্ষেও তল্লাশি চালায়। সূত্র জানায়, হাওয়া ভবনের অভ্যন-রে প্রতিটি দরজা অত্যাধুনিক ইলেকট্রনিক সিস্টেমের। নির্দিষ্ট পাসওয়ার্ড ছাড়া দরজা খোলা যায় না। এ কারণে তল্লাশি চালাতে সাড়ে ৬ ঘণ্টা সময় লাগে। তল্লাশির পুরো সময় হাওয়া ভবনের আশপাশের সব রাস্তা যৌথ বাহিনী ঘিরে রাখে।

সূত্র জানায়, রাত ১২টার দিকে যৌথ বাহিনী বনানীর ১১ নম্বর রোডের ৫৩ নম্বর হাওয়া ভবন ঘিরে ফেলে। এ সময় হাওয়া ভবনে বিএনপি নেতাকর্মীদের কেউ ছিলেন না। এর আগে গত ৯ মার্চ গুলশান থানা পুলিশ তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা চাঁদাবাজির মামলার আলামত সংগ্রহ করতে হাওয়া ভবনে এক দফা তল্লাশি চালায়। রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করার পর হাওয়া ভবনে বিএনপির পক্ষ থেকে তালা ঝুলিয়ে দেয়া হয়। যৌথ বাহিনী দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। প্রথমে নিচতলার কয়েকটি কক্ষে তল্লাশি চালায়। পরে দোতলায় বেগম খালেদা জিয়ার কক্ষের দরজা ভেঙে তল্লাশি চালানো হয়। তার কক্ষ থেকে একটি কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক ও কয়েকটি ফাইল জব্দ করা হয়।
এসব ফাইলে সদ্য স্তগিত নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন নিতে কে কত টাকা দিয়েছেন তার হিসাব রয়েছে বলে জানা গেছে। এরপর তারেক রহমানের কক্ষের সঙ্গে হাওয়া ভবনের কর্মকর্তা বকুল ও তারেকের ব্যক্তিগত সহকারী মিয়া নূরউদ্দিন অপুর কক্ষে তল্লাশি চালানো হয়। তারেকের কক্ষের দরজা ইলেকট্রনিক সিস্টেমের। গোপনীয় নম্বর (পাসওয়ার্ড) দিয়ে দরজা বন্ধ থাকায় গত ৯ মার্চ তল্লাশির সময় পুলিশ ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি। এবার যৌথ বাহিনী দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে তল্লাশি চালায়। এ কক্ষ থেকেও ফাইলপত্র ও তারেকের ব্যবহূত কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক জব্দ করা হয়। হাওয়া ভবনের একটি সূত্র জানায়, জব্দকৃত ফাইলের মধ্যে কর্নেল (অব.) অলি সম্পর্কে কিছু কাগজপত্র, পুলিশের এসআই এবং শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ সংক্রান্ত নথি ও ২টি পাসপোর্ট রয়েছে। সূত্র জানায়, এছাড়া ওই কক্ষে কয়েক বোতল বিদেশী মদও ছিল। দামি আসবাবপত্র ও শোপিস দিয়ে কক্ষটি সজ্জিত। যৌথ বাহিনী তারেক রহমানের টেবিলের ড্রয়ার ভেঙে কয়েকটি সিডি ও ব্যাংকের চেকবই জব্দ করে। এসব সিডিতে তারেক রহমান গত পাঁচ বছরে যাদের সঙ্গে ওঠাবসা করেছেন তার সচিত্র তথ্য রয়েছে। পরে যৌথ বাহিনী নিচতলা থেকে তিনতলা পর্যন- প্রতিটি কক্ষে তল্লাশি চালায়। সূত্র জানায়, ১৩ জন আনসার সদস্য পালাক্রমে হাওয়া ভবনে ডিউটি করে। বৃহস্পতিবার রাতে তিনজন আনসার সদস্য হাওয়া ভবনের পাহারায় ছিল। যৌথ বাহিনী তাদের দরজা খুলতে বললে তারা জানায়, তাদের ডিউটি ভবনের বাইরে। ভেতরে প্রবেশের চাবি তাদের কাছে দেয়া হয়নি। পরে ভবনের দরজা ভেঙে তল্লাশি চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ ঘটনায় গুলশান থানায় এসআই খবির আহমেদ একটি জিডি করেছেন। জিডি নম্বর-১৯৩০। পুলিশ জানায়, যৌথ বাহিনী তল্লাশি চালিয়ে হাওয়া ভবন থেকে ২২টি সিডি, পুরনো কাগজপত্র, কম্পিউটারের ২টি হার্ডডিস্ক ও কিছু নথিপত্র জব্দ করেছে। গতকাল দুপুরে হাওয়া ভবনের ভেতরে ও বাইরে কাউকেই দেখা যায়নি। তবে আশপাশে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস’ার সদস্যদের উপসি’তি দেখা গেছে।
হাওয়া ভবনের নিরাপত্তা কর্মী আবদুল বাতেন জানান, যৌথ বাহিনী মধ্যরাতে এসে হাওয়া ভবনে অবস্তান নেয়। ভোর পর্যন্ত অভিযান চলে। আনসার সদস্যদের উপসি’তিতে কিছু সিডি ও ফাইলপত্র নিয়ে গেছে তারা। Source:দৈনিক যুগান্তর
Date:2007-03-24

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: