বিডিআর আনসারের ন্যায্যমূল্যের দোকান জমে উঠেছে

বিডিআর ও আনসার পরিচালিত ন্যায্যমূল্যের দোকানগুলো ধীরে ধীরে জমে উঠতে শুরু করেছে। ‘অপারেশন ডালভাত’ ও ‘অপারেশন নিত্যপণ্য’ শিরোনামে পরিচালিত এসব দোকান থেকে লাইন দিয়ে মালামাল কিনছেন বিভিন্ন পর্যায়ের লোকজন। আনসার-বিডিআর’র কর্মসূচি সাফল্য পাওয়ার প্রেক্ষাপটে ন্যায্যমূল্যে বিক্রির জন্য বেশকিছু বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও আউটলেট খুলে বসেছে চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায়। এর ফলে সাধারণ বাজারগুলোয়ও দ্রব্যমূল্য কমতে শুরু করেছে। সহনীয় হয়ে আসছে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য। যদিও চালের বাজারে এখনো ইতিবাচক প্রভাব পড়েনি। বরং সব ধরনের চালের দাম দিন দিন বেড়েই চলেছে।

নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় মাসখানেক আগে বাজার নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব পড়ে বিডিআর’র ওপর। তারা পাইকারি ও খুচরা বাজারের মধ্যকার ব্যাপক ব্যবধান কমিয়ে এনে মধ্যস্বত্বভোগীদের হাত থেকে সাধারণ ভোক্তাদের রক্ষা করতে উদ্যোগী হয়। গ্রহণ করে অপারেশন ডাল ভাত-২০০৭ নামক বিশেষ কর্মসূচি। এ কর্মসূচির আওতায় ১৬ মার্চ শুরু হয় রাজধানীর ১৭টি সপটে খোলাবাজারে ন্যায্যমূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী বিক্রির কার্যক্রম। প্রাথমিকভাবে আলু, পেঁয়াজ, রসুন, মশুরের ডাল ও আদা বিক্রি করা হয় এসব দোকানে। ক্রমান্বয়ে দোকানের সংখ্যা বাড়িয়ে ২০টি করা হয়। পণ্যের তালিকায় যুক্ত করা হয় চালসহ আরো কয়েকটি পণ্য। বিডিআর সদস্যরাই ন্যায্যমূল্যে এসব পণ্য বিক্রি করছেন। এই ডাল-ভাত কর্মসূচিরই আওতায় ২৩ মার্চ থেকে রাজধানীর ২৫টি মাঠে বিনা ভাড়া ও বিনা চাঁদায় টাটকা শাকসবজি বিক্রির আয়োজন করে বিডিআর। ঢাকা সিটি করপোরেশনের সহযোগিতায় বিডিআর জোয়ানদের সরাসরি তত্ত্বাবধানে প্রতি শুক্র, সোম ও বুধবার পরিচালিত হচ্ছে এসব সবজিবাজার। তবে বিডিআর ও সিটি করপোরেশন বাজারের আয়োজন করলেও এসব বাজারে মালামাল বিক্রি করছেন সরাসরি উৎপাদনকারী কৃষক।

এদিকে আনসার সদস্যরা গত শুক্রবার রাজধানীর ছয়টি স্থানে ন্যায্যমূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি শুরু করেছেন। ‘অপারেশন নিত্যপণ্য’ কর্মসূচির আওতায় এসব মালামাল বিক্রি করা হচ্ছে তিনটি ভ্রাম্যমাণ গাড়িতে করে। প্রাথমিকভাবে আটা, লবণ, মসুর ডাল ও ছোলা বিক্রি করা হচ্ছে এসব বাজারে। আনসার পরিচালিত বাজারগুলো বসেছে রাজধানীর খিলগাঁওয়ের আসনার-ভিডিপি মাঠ, টিঅ্যান্ডটি কলোনি মাঠ, মধুবাগ মাঠ, মুগদা সরকারি হাসপাতাল মাঠ ও টিঅ্যান্ডটি কলোনির মাঝের মাঠে। ভ্রাম্যমাণ গাড়িগুলো মালামাল বিক্রি করছে সিপাহীবাগ বাজার, মালিবাগ বাজার ও খিলগাঁও তালতলা বাজার এলাকায়। ২৫ টাকায় আটা, ১০ ও ১২ টাকায় লবণ, ৪৮ ও ৬৩ টাকায় মসুর ডাল এবং ৫৫ টাকায় ছোলা বিক্রি হচ্ছে আনসারের বাজারগুলোয়। এসব বাজারে পর্যায়ক্রমে নতুন নতুন পণ্য বিক্রির উদ্যোগ নেয়া হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

বিডিআর’র উদ্যোগে যে ২০টি আউটলেটে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে, সেগুলো হলো- মিরপুর ১০ নম্বর এলাকায় নূরীয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসা, মিরপুর ১২ নম্বর এলাকায় পল্লবী কমিউনিটি সেন্টার, কচুক্ষেত এলাকায় ক্যান্টনমেন্ট মডেল স্কুল, আগারগাঁও এলাকায় শেরে বাংলানগর কমিউনিটি সেন্টার, মোহামমদপুর এলাকায় কৃষিমার্কেট ও সলিমুল্লাহ রোড ক্রীড়া কমপ্লেক্সে পানির ট্যাংক মাঠ, খিলগাঁও এলাকায় পল্লীমা সংসদ, গুলশান এলাকায় গুলশান কমিউনিটি সেন্টার ও তিতুমীর কলেজ, উত্তরা এলাকায় ৭ নম্বর রোডে উত্তরা উচ্চবিদ্যালয়, কমলাপুর এলাকায় টিটিপাড়া বাস টার্মিনাল, সংসদ ভবন এলাকায় টিঅ্যান্ডটি মাঠ, ধানমন্ডি এলাকায় ধানমন্ডি ক্লাব মাঠ, আজিমপুর এলাকায় আজিমপুর কলোনি কমিউনিটি সেন্টার, বকশিবাজার এলাকায় আলিয়া মাদ্রাসা মাঠ এবং হাজারীবাগ এলাকায় তাজমহল শিশুপার্ক। এসব দোকানে ১৪ টাকা কেজি দরে আলু, ২১ টাকায় পেঁয়াজ, ২২ টাকায় আদা, ৪০ টাকায় রসুন, ৬৩ টাকায় দেশী মসুর ডাল এবং ৪৮ টাকায় আমদানি করা মসুর ডাল কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে।

প্রতি শুক্র, সোম ও বুধবার যে ২৫টি স্থানে শাকসবজির বাজার বসছে, সেগুলো হলো- ছোট কাটরা এলাকার দেয়াল ঘেরা মাঠ, ঢাকেশ্বরী মন্দিরের সামনের খোলা মাঠ, যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তায় শহীদ জিয়া গার্লস কলেজ সংলগ্ন মাঠ, দনিয়া কলেজ সংলগ্ন মাঠ, কমলাপুর পুরাতন বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন রাস্তার একাংশ, দক্ষিণ শাহজাহানপুরের আমতলা রেলওয়ে কলোনি মাঠ, খিলগাঁও ফ্লাইওভারের উত্তর-পূর্ব পাশে অবস্থিত জোড়াপুকুর খেলার মাঠ, রামপুরা টিভি ভবনসংলগ্ন বনশ্রী আবাসিক এলাকা, তেজগাঁও সাতরাস্তা নবতরঙ্গ ক্লাব সংলগ্ন প্রাইমারি স্কুল মাঠ, শাহজাদপুর মোড়ে ফুটপাথের ওপর ফাঁকা জায়গা, উত্তরা রাজউক কলেজ সংলগ্ন মাঠ, পল্লবী ২ নম্বর ওয়ার্ড কমিউনিটি সেন্টারসংলগ্ন ঈদগাহ মাঠ, সরকারি বাঙলা কলেজ সংলগ্ন ফুটপাথ, মিরপুর স্টেডিয়ামের পাশের মাঠ, মিরপুর ১ নম্বর ঈদগাহ মাঠ, শ্যামলী ঈদগাহ মাঠ, আগারগাঁও এলজিইডি ভবন সংলগ্ন মাঠ, মোহামমদপুর আল্লাহ করিম মসজিদের পাশের মাঠ, মোহামমদপুর বেড়িবাঁধের বুড়িগঙ্গা ফিলিং স্টেশনের পাশের মাঠ, রায়েরবাজার বধ্যভূমি সংলগ্ন মাঠ, লালমাটিয়া আড়ংয়ের উত্তর পাশের মাঠ, কামরাঙ্গীরচর হাসপাতালের জন্য নির্ধারিত স্থান, আজিমপুর ছাপড়া মসজিদসংলগ্ন স্টাফ কোয়ার্টার মাঠ এবং ঝিগাতলা পিডব্লিও কলোনি মাঠ। Source:দৈনিক নয়া দিগন্ত
Date:2007-03-27

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: