পাঠ্যপুস্তকে মুক্তিযুদ্ধের বিকৃত ইতিহাস সংশোধন করা হবে

আগামী শিক্ষাবর্ষে পাঠ্যপুস-কে ইতিহাস বিকৃতি থাকবে না। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনচিত্র সঠিকভাবে তুলে ধরে পাঠ্যপুস-কের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি সংশোধন করা হবে। সরকার এ বিষয়ে ইতিমধ্যেই উদ্যোগ নিয়েছে। বিগত বিএনপি জোট সরকারের আমলে পাঠ্যপুস-কে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে যেসব পরিবর্তন আনা হয় এরই মধ্যে সেগুলো চিহ্নিত করা হয়েছে। শিক্ষা উপদেষ্টা আইয়ুব কাদরী মঙ্গলবার সাংবাদিকদের সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাৎকালে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, অতীতে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সময় সময় পরিবর্তন হতে দেখা গেছে। তাই সরকার সঠিক ইতিহাস পাঠ্যপুস-কে অন-ভর্ুক্তির জন্য কাজ করছে। তিনি বলেন, পাঠ্যবইয়ে জাতির জনকের নাম থেকে ‘বঙ্গবন্ধু’ শব্দটি বাদ দেয়া হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও স্বাধীনতার ঘোষণা ও এর তারিখ নিয়ে বিতর্কিত উপস্থাপনা রয়েছে। জাতীয় নেতাদের পরিচয়ের ব্যাপারে বৈষম্য রয়েছে। এসব চিহ্নিত করা সম্পন্ন হয়েছে। তিনি বলেন, বিকৃত ইতিহাস সংশোধন করে সঠিক ও নিভর্ুল করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ ব্যাপারে পুরোদমে কাজ চলছে।
মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, পাঠ্যপুস-কের ভুল ও বিকৃত ইতিহাস চিহ্নিত করতে একটি কমিটি কাজ করেছে। কমিটি তৃতীয় থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন- সনি্নবেশিত বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ওপর বানোয়াট, বিকৃত ও অসত্য ইতিহাস এবং তথ্য ইতিমধ্যেই চিহ্নিত করে ফেলেছে। আগামী ২০০৮ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যপুস-ক থেকে তা তুলে দিয়ে সঠিক তথ্য ও ইতিহাস অন-র্ভুক্ত করা হবে। এর মধ্যে চলতি বছর ছাত্রছাত্রীদের বিকৃত ইতিহাস পাঠদানে বিরত রাখার বিষয়টিও চিন-াভাবনা করা হচ্ছে।
প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স-র পর্যন- পাঠ্যপুস-কে বিগত জোট সরকারের আমলে বিকৃত ইতিহাস অন-র্ভুক্তির ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে। বিশেষ করে বাংলা, ইতিহাস, সমাজ, পৌরনীতি এবং সামাজিক বিজ্ঞানের বইগুলোতে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভূমিকা, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ, এই দুই নেতাসহ হোসেন শহীদ সোহরাওয়াদর্ী এবং শেরেবাংলা একে ফজলুল হকের জীবনী আলোচনা সঠিকভাবে করা হয়নি। একই সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধে পাকবাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার-আলবদর-আলশামস বাহিনীর নিষ্ঠুরতাও পাঠ্যপুস-কে স্থান পায়নি। সূত্র মতে, ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আচার অনুষ্ঠানের প্রতিফলন থাকবে পাঠ্যবইয়ে। মুক্তিযুদ্ধে যার যতটুকু অবদান তা পাঠ্যবইয়ে অন-ভর্ুক্ত করা হবে। এছাড়াও বিতর্কিত ও রাজনৈতিক পক্ষপাতদুষ্ট লেখকদের লেখা বাদ দেয়া হবে।
বিগত জোট সরকারের আমলে পাঠ্যপুস-কে ইতিহাস বিকৃতির ইসু্যটি শিক্ষক-অভিভাবক, শিক্ষাথর্ী, সুশীল সমাজ ও রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক সমালোচিত ছিল। এ নিয়ে বিভিন্ন সভা-সমাবেশে দাবি উঠেছিল পাঠ্যপুস-কে সঠিক তথ্য উপস্থাপনের। কিন\’ তৎকালীন সরকার বিষয়টি উড়িয়ে দিয়ে বিতর্ক জিইয়ে রাখে। কোন কোন ক্ষেত্রে বিকৃত ইতিহাসকে সঠিক বলে প্রচার করা হয়।
মঙ্গলবার মতবিনিময়কালে শিক্ষা উপদেষ্টা সাংবাদিকদের সঙ্গে ইতিহাস বিকৃতি ছাড়াও প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন- বিভিন্ন বিষয় নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করেন। শিক্ষা উপদেষ্টা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নির্বাচিত ও মনোনীত প্রতিনিধিদের গণহারে সরিয়ে দেয়ার ঘটনা এবং সরকারি কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালনের ঘটনার সমালোচনা করেন। এর ভুল প্রয়োগ হয়েছে বলে তিনি জানান।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষা উপদেষ্টা বলেন, বর্তমানে চারটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ১৯৭৩ সালের আইন দিয়ে চলছে। অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় নিজস্ব স্বতন্ত্র আইন দিয়ে চলছে। তিনি বলেন, আইনে সমস্যা যা না আছে, আইনের প্রয়োগকারীরা তার চেয়ে বেশি সমস্যা সৃষ্টি করছেন এবং ভুল প্রয়োগ করছেন। সরকার এজন্য একটি ‘আমব্রেলা আইন’ দিয়ে সব বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার চিন-াভাবনা করছে। অভিন্ন নিয়োগ ও আর্থিক নীতিমালা দিয়ে সব বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার লক্ষ্যে আইন বাস-বায়নের কাজ চলছে। তিনি বলেন, কতিপয় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও উপাচার্যের বিরুদ্ধে ইউজিসি তদন- করতে গিয়ে ফৌজদারি অপরাধের মতো গুরুতর অভিযোগ পেয়েছে। দুনর্ীতি দমন কমিশনকে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অনেক কেস সুপারিশ করে পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, শিক্ষকদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ বিশ্বাস করাই কষ্টকর হয়ে পড়েছে। অভিযোগগুলো গুরুতর। তিনি বলেন, কতিপয় প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম স্বচ্ছ করা ছাড়াও পড়ার মান যাতে উন্নত করা যায় সে লক্ষ্যে অ্যাক্রিডিটেশন কাউন্সিল গঠন করা হচ্ছে। এক মাসের মধ্যে তা বাস-বায়ন হবে। প্রস-াবিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০৫ পর্যবেক্ষণ করে দেখা হচ্ছে। এটাও দ্রুত বাস-বায়ন করা হবে। আর বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশে শাখা এবং অনুমোদনবিহীন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যে কয়েকটিকে শোকজ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।
শিক্ষা উপদেষ্টা বলেন, বিগত সরকারের শেষদিকে কওমি মাদ্রাসার শিক্ষাথর্ীদের সার্টিফিকেট প্রদান এবং ভিন্ন বোর্ড গঠনের প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়। বিষয়টি তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন। স্থগিতকৃত একমুখী শিক্ষা ব্যবস্থা সম্পর্কে তিনি বলেন, এর স্কুলভিত্তিক মূল্যায়ন পদ্ধতি বাস-বায়িত হয়েছে ষষ্ঠ-নবম শ্রেণী পর্যন-। এখনই তা পাবলিক পরীক্ষায় বাস-বায়নের চিন-া সরকারের নেই।
প্রাথমিক শিক্ষা নিয়ে চলমান পিইডিপি-২ প্রকল্প সম্পর্কে বলেন, এর মিডটার্ম রিভিউ রিপোর্ট মে মাসে দেয়ার কথা থাকলেও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ছুটি ও প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন কারণে পিছিয়ে গেছে। আগামী অক্টোবরে রিপোর্ট প্রকাশ পাবে বলে তিনি জানান। উপদেষ্টা বলেন, বেসরকারি স্কুল-কলেজে সুষ্ঠুভাবে মেধাবী শিক্ষক নিয়োগের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত এনটিআরসি শক্তিশালীকরণ চলছে।
উপবৃত্তি প্রকল্পের বিভিন্ন অনিয়মের ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে আইয়ুব কাদরী বলেন, কিছুটা গলদ চলছে। এতবড় প্রোগ্রামে কিছুটা সমস্যা থাকতে পারে। পুরোপুরি ‘রেকটিফাই’ (শুদ্ধিকরণ) সম্ভব নয়।
রাজধানীসহ সারাদেশের বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ভর্তি দুনর্ীতি, শিক্ষকদের কোচিংয়ের নামে শিক্ষাথর্ী-অভিভাবক হয়রানি ও ফেল করিয়ে দেয়া, অধ্যক্ষ-গভর্নিং বডির সমস্যাসহ বিভিন্ন বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে উপদেষ্টা বলেন, এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় কাজ করছে। তবে কোন কোন ক্ষেত্রে অ্যাকশন নেয়ার পরও অবস্থা আগের চেয়ে খারাপ হওয়ার অভিযোগ তাদের কাছে এসেছে। তিনি বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে ঢাকার কয়েকটি বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
এক প্রশ্নের জবাবে উপদেষ্টা বলেন, বর্তমানে সাক্ষরতার হার ৬২ ভাগ। এর মধ্যে পনেরোধর্্ব বয়সীদের ৫৫ ভাগ এবং সাতোধর্্ব বয়সী ৬২ ভাগ সাক্ষরতা রয়েছে। তিনি বলেন, অন্যান্য সংস্থার মতো সরকার পাবলিক সার্ভিস কমিশনও পুনর্গঠনের চিন-াভাবনা করছে। সরকারি কলেজের প্রভাষকদের পদোন্নতি পিএসসির মাধ্যমে এবং আত্তীকরণের মাধ্যমে নিযুক্তদের অভ্যন-রীণ বিরোধ ও আদালতের ইনজাংশনের কারণে স্থগিত রয়েছে। মামলা প্রত্যাহার এবং নিজেরা মিলে না এলে এ সমস্যার সমাধান হবে না বলে তিনি জানান।
সূত্রঃ http://jugantor.com/online/news.php?id=57353&sys=1

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: