বিদেশের ব্যাংকে হাজার হাজার কোটি টাকা

চারদলীয় জোটসহ বিগত সরকারগুলোর আমলে মন্ত্রী, এমপি, আমলা, রাজনৈতিক নেতা, ব্যবসায়ীসহ সহস্রাধিক ব্যক্তির বিদেশের ব্যাংকে হাজার হাজার কোটি টাকা থাকার তথ্য পাওয়া গেছে। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব তারেক রহমান ও তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু আলোচিত ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের বিদেশের ব্যাংকে হাজার হাজার কোটি টাকা পাচার কিংবা রাখার তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে বিভিন্ন সংস্থা চারদলীয় জোট সরকারসহ বিগত সরকারগুলোর আমলে অনেক মন্ত্রী, এমপি, শীর্ষ রাজনীতিক, আমলা ও ব্যবসায়ীদের হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশের ব্যাংকে থাকার তথ্য পায়। গতকাল বুধবার পর্যন্ত এদের সংখ্যা সহস্রাধিক হলেও এই সংখ্যা দ্বিগুণ হবে বলে ঐ সকল সংস্থা সূত্রে জানা যায়।

বিদেশের ব্যাংকে টাকা লেনদেন করা সহজ ও জমা রাখা নিরাপদ বলে মন্ত্রী, এমপি, আমলা ও শীর্ষ রাজনীতিবিদরা ক্ষমতায় থাকাকালে দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত কোটি কোটি টাকার লেনদেন সাধারণত বিদেশেই করেছেন। ব্যবসায়ীদের মধ্যে একটি গ্রুপ যে সরকার ক্ষমতায় আসতো, সেই সরকারের দুর্নীতিবাজ মন্ত্রী, এমপি ও আমলাদের সঙ্গে দলীয় লোক সেজে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। ব্যবসায়ীদের এই টাকার ভাগ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, আমলা ছাড়াও প্রভাবশালী এমপি ও সরকার দলীয় রাজনীতিবিদদের পকেটে গেছে। মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও অধীনস্থ দফতরসমূহের কোটি কোটি টাকার টেন্ডার, কেনাকাটা, নিয়োগ-বদলি, বাণিজ্যের ভাগ মন্ত্রী, আমলাসহ দলীয় এমপি-রাজনীতিবিদদের না দেয়া পর্যন্ত ঐ কাজের ফাইল নড়তো না। জড়িত ঐ সকল মন্ত্রী, এমপি, আমলা, শীর্ষ রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীরা দুর্নীতির টাকা বুঝে পাওয়ার জন্য ঘন ঘন বিদেশে যাওয়ার তথ্য এসেছে ঐ সকল সংস্থার কাছে।

বিদেশের ব্যাংকে রক্ষিত হাজার হাজার কোটি টাকা দেশে ফিরিয়ে আনা বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে জাতিসংঘের সদর দরতরের সঙ্গে দুর্নীতি বিরোধী সনদে বাংলাদেশ স্বাক্ষর করতে যাচ্ছে। জাতিসংঘের সহায়তায় বিদেশের ব্যাংক থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা দেশে ফেরত আনা হবে বলে ঐসব সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তারা প্রতিজ্ঞা করেছেন। কর্মকর্তারা এ ব্যাপারে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। দেশবাসীর দাবি, দুর্নীতিবাজদের হাজার হাজার কোটি টাকা দেশে ফিরিয়ে আনা হোক।

তারেক রহমানের পরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও চারদলীয় জোট সরকারের ক্ষমতাধর এক মন্ত্রীর বিদেশের ব্যাংকে শত শত কোটি টাকা থাকার তথ্য পাওয়া যাচ্ছে বলে সূত্র জানিয়েছে। এই মন্ত্রী বর্তমানে দুর্নীতি দমন কমিশন কর্তৃক সন্দেহভাজন শীর্ষ দুর্নীতিবাজদের একজন। তিনি বর্তমানে জেলহাজতে রয়েছেন। তার একান্ত সচিব একজন দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা হিসেবে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নিকট পরিচিত। কোন কোন ক্ষেত্রে একান্ত সচিব মন্ত্রীর চেয়েও ক্ষমতার বেশি অপব্যবহার করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এমপিদের মধ্যে তারেক রহমানের ঘনিষ্ঠ বন্ধু এম এ এইচ সেলিম ওরফে সিলভার সেলিমের বিদেশের ব্যাংকে টাকা থাকার তথ্য পাওয়া যায়। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে বিদেশে জনশক্তি রপ্তানির ব্যবসায় একক আধিপত্য বিস্তার করেছিলেন সিলভার সেলিম। এতে কোটি কোটি টাকা তিনি হাতিয়ে নেন। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে মন্ত্রী, এমপি, আমলা, ব্যবসায়ী ও শীর্ষ রাজনীতিবিদ ছাড়াও বিএনপির ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতা ৫৬ নম্বর ওয়ার্ড কমিশনার চৌধুরী আলমের বিদেশের ব্যাংকে কয়েক শত কোটি টাকা থাকার তথ্য পাওয়া যায়। তিনি জোট সরকার ক্ষমতা ছাড়ার কয়েক মাস পূর্বে মাত্র ৭ দিনের জন্য মালয়েশিয়া গিয়েছিলেন। মালয়েশিয়ায় চৌধুরী আলমের যাওয়ার পিছনে রয়েছে বিদেশের ব্যাংকে টাকা রাখার বিষয় বলে সূত্র জানায়। একটি সংস্থা বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। চৌধুরী আলম অশিক্ষিত নেতা হলেও শীর্ষ দুর্নীতিবাজদের তালিকার একজন। দুর্নীতি দমন কমিশনের তালিকাভুক্ত দুর্নীতিবাজদেরও একজন তিনি।

আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে এক প্রতিমন্ত্রীর বিদেশের ব্যাংকে টাকা থাকার তথ্য আসছে। তিনি দুদকের ঘোষিত শীর্ষ দুর্নীতিবাজদের একজন। এছাড়া আওয়ামী লীগ সরকারের আরও বেশ কিছু সংখ্যক মন্ত্রী, শীর্ষ রাজনীতিবিদ, এমপি, আমলা ও ব্যবসায়ী এবং এর আগে বিএনপি ও এরশাদ সরকারের আমলে কিছু সংখ্যক মন্ত্রী, এমপি, আমলা, রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীর বিদেশী ব্যাংকে দুর্নীতির মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা রাখার তথ্য বের হয়ে আসছে। সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া শুরুর আগে বিষয়টি যাচাই বাছাই করে দেখছে বলে জানা যায়। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-04-05

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: