মৌলবাদ ও সন্ত্রাসবাদের মদদদাতাদের নির্মূল করতে হবে -শেখ হাসিনা

দারিদ্র্য ও সন্ত্রাসমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে সর্বসত্দরে দুর্নীতি নির্মূল এবং শিক্ষার উন্নয়নের বিকল্প নেই বলে উল্লেখ করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ পুনরায় রাষ্ট্র ৰমতায় অধিষ্ঠিত হলে নারী-পুরম্নষ সকলের জন্য সরকারি কলেজে ডিগ্রি পর্যনত্দ বিনামূল্যে পড়ার সুযোগ সৃষ্টি করবে। গরীব ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বিশেষ বৃত্তি চালু করা হবে। ৩ এপ্রিল ফ্লোরিডার জ্যাকসন ভিলে ক্ল্যা কাউন্টিতে মিডলবার্গ হাই স্কুলে ‘বাংলাদেশ-আমেরিকা সংস্কৃতি বিনিময়’ কর্মসূচীর অংশ হিসেবে আয়োজিত বর্ণাঢ্য এক অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে হাই রিপাবলিকান পার্টির নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান (রম্নলস এন্ড এ্যাথিক্স) চার্লস নেলসন, ক্ল্যা কাউন্টি রিপাবলিকান পার্টির চেয়ারম্যান ড্যানরেল ই নিউ, ক্ল্যা কাউন্টির কমিশনার চেরিজ স্টুয়ার্ট, স্থানীয় বিদ্যালয়সমূহের সুপারিন্টেন্ডেন্ট, প্রিন্সিপাল এবং পুলিশ প্রশাসনের ঊধর্্বতন কর্মকর্তা, লেখক, শিল্পী, সাহিত্যিক, সাংবাদিক-কলামিস্ট পেশাজীবীরা আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

হাইস্কুলের সহস্রাধিক ছাত্র-ছাত্রী ৪ গ্রম্নপে বিভক্ত হয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে উপস্থিত সুধীবৃন্দের সামনে বাংলাদেশের সামগ্রিক পরিস্থিতি এবং নারী নেতৃত্ব ইত্যাদি নিয়ে মতবিনিময় করেন। এর আগে শেখ হাসিনাকে স্কুল প্রাঙ্গণে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানানো হয়। সে সময় তার সঙ্গে ছিলেন দুই নাতনী আলিজা ও আমরীন, জামাতা খন্দকার মাশরম্নর হোসেন মিতু এবং শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী আওয়ামী লীগের আনত্দর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ।

শেখ হাসিনার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন, তাঁর বাবা বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন, সবশেষে দেশের জন্য আত্মাহুতি, আমেরিকার সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কোন্নয়নে শেখ হাসিনার ভূমিকা, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ৫ বছর দায়িত্ব পালনকালে বিভিন্ন ৰেত্রে গৌরবময় অর্জন, আনত্দর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনারারী ডক্টরেট ডিগ্রি প্রাপ্তি ইত্যাদি সবিসত্দারে উপস্থাপন করেন পুরো অনুষ্ঠানের পরিচালক স্থানীয় একটি হাইস্কুলের শিৰিকা মার্সি নেলসন। সাড়ে ৩ ঘন্টার এ অনুষ্ঠানে এমন কোন বিষয় নেই যা নিয়ে প্রশ্নের সম্মুখীন হননি শেখ হাসিনা।

ছাত্র-ছাত্রীরা নানা প্রশ্নের মাধ্যমে মূলতঃ বাংলাদেশ সম্পর্কেই জানতে সচেষ্ট হয়েছে।

শেখ হাসিনা সে সব প্রশ্নের জবাবে হাজার বছরের ঐতিহ্যে সমৃদ্ধ বাঙালির সংস্কৃতির কথা, বাঙালি সমাজের কথা, পারিবারিক মূল্যবোধের কথা, মুক্তিযুদ্ধের সুশৃঙ্খল একটি বাহিনীর বিরম্নদ্ধে নিরস্ত্র বাঙালির ঝাঁপিয়ে পড়ার ইতিহাস এবং অবশেষে স্বাধীনতা অর্জনের কথা, দারিদ্র্যমুক্তি এবং শিৰার হার বৃদ্ধির কথা, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সময় তিনি কীভাবে বেঁচে গেলেন সে কথাও বাদ যায়নি।

শেখ হাসিনা বলেছেন, ১৯৯৬ থেকে ৫ বছর প্রধানমন্ত্রী থাকাবস্থায় তিনি দারিদ্র্য বিমোচনে কী কী পদৰেপ নিয়েছিলেন, কীভাবে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করেছিলেন বাংলাদেশকে। শেখ হাসিনা তাঁর বক্তব্যে অধিক গুরম্নত্ব দিয়েছেন জাতীয় ও আনত্দর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের বিরম্নদ্ধে চলমান যুদ্ধে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষের অভূতপূর্ব সমর্থনের কথা।

সূত্রঃ http://www.ittefaq.com/get.php?d=07/04/05/w/n_ztmumt

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: