সার্ক সদস্যদের পরস্পরের বাজারে প্রবেশের অঙ্গীকার

সার্ক সদস্য দেশসমূহের বাজারে প্রবেশের নিশ্চয়তা এবং সমন্বিতভাবে দারিদ্র্য, রোগব্যাধি, প্রাকৃতিক বিপর্যয় ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা করার অঙ্গিকারের মধ্য দিয়ে গতকাল বুধবার সার্ক শীর্ষ সম্মেলন শেষে নয়াদিলস্নী ঘোষণা গৃহীত হয়েছে। দু’দিনব্যাপী সার্ক শীর্ষ সম্মেলন বুধবার নয়াদিলস্নীতে শেষ হয়েছে। ঘোষণায় দৰিণ এশীয় শুল্ক ইউনিয়ন ও দৰিণ এশীয় অর্থনৈতিক ইউনিয়ন গঠনের প্রয়োজনীয়তার উপর গুরম্নত্ব আরোপ করা হয়। চতুর্দশ সার্ক শীর্ষ সম্মেলনের ঘোষণায় মুক্ত বাণিজ্য কর্মসূচির সুষ্ঠু বাসত্দবায়নের উপর গুরম্নত্ব আরোপ করে বলা হয়, মুক্ত বাণিজ্য সংস্থা যাতে পুরোপুরি কাজ করতে পারে সেজন্য সাফটা ‘নিয়মিতভাবে’ অগ্রগতি পর্যালোচনা করবে।

সার্ক নেতারা গুরম্নত্ব দিয়ে বলেন, সাফটার বাসত্দবায়ন গুরম্নত্বপূর্ণ। কেননা এর মাধ্যমেই আঞ্চলিক সহযোগিতার অন্যান্য খাতেও ব্যাপক প্রভাব পড়বে। গতকাল বিকেলে বিজ্ঞান ভবনে অনুষ্ঠিত সমাপনী অধিবেশনে ৩০ দফার নয়াদিলস্নী ঘোষণা গৃহীত হয়। সরকার প্রধান ও রাষ্ট্র প্রধানরা সমন্বিতভাবে দারিদ্র্য, রোগব্যাধি, প্রাকৃতিক বিপর্যয় ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলা করার অঙ্গিকার করেন।

নেতারা ঘোষণায় আবেগপূর্ণভাবে বলেন, “এই অঞ্চলের সমন্বিত সমৃদ্ধি নিশ্চিত করার চ্যালেঞ্জ দৰিণ এশিয়ার দেশগুলোকে একসঙ্গে গ্রহণ করতে হবে।”

সার্ক নেতারা গুরম্নত্ব দিয়ে বলেন, এই অঞ্চলের শানত্দি ও নিরাপত্তার জন্য সন্ত্রাসবাদ হচ্ছে হুমকি। যেখানে, যারা এবং যেভাবেই সহিংসতা চালাক না কেন, তাদের এবং নিরপরাধ মানুষের হত্যার নিন্দা জানান তারা। সন্ত্রাসবাদের সহগামী দুনর্ীতি সম্পর্কে নেতারা বলেন, এটা গুরম্নতর একটি বিষয় এবং তা দমনে জাতীয় অভিজ্ঞতা বিনিময় করার ব্যাপারে তারা একমত হন। তারা সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় সকল আনত্দর্জাতিক ঘোষণা বাসত্দবায়নে তাদের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন। সার্ক সদস্য রাষ্ট্রসমূহ এসব ঘোষণার একেকটি পৰ। তারা সন্ত্রাসবাদ দমন সংক্রানত্দ সার্ক আঞ্চলিক ঘোষণা ও সন্ত্রাসী তৎপরতায় অর্থ সংস্থান প্রতিরোধ ও দমন সংক্রানত্দ আঞ্চলিক ঘোষণার অতিরিক্ত প্রটোকল বাসত্দবায়নেও তাদের সংকল্প পুনর্ব্যক্ত করেন।

দৰিণ এশীয় দেশসমূহ সন্ত্রাসবাদ, নার্কোটিক ও সাইকোট্রপিক দ্রব্যের অপব্যবহার বন্ধ, নারী ও শিশু পাচার এবং অন্যান্য আনত্দঃদেশীয় অপরাধ দমনে বিদ্যমান সার্ক ঘোষণার ধারাসমূহ বাসত্দবায়নের রীতি-পদ্ধতি নিয়ে কাজ করার ব্যাপারেও একমত হয়।

রাষ্ট্র অথবা সরকার প্রধানগণ এসব ব্যবস্থার অধীনে অপরাধ প্রতিরোধ, দমন ও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে সদস্য রাষ্ট্রসমূহের আইন প্রয়োগকারী কতর্ৃপৰসমূহের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তাও পুনর্ব্যক্ত করেন। তারা ফৌজদারি অপরাধ বিষয়ে পারস্পরিক সহযোগিতা সংক্রানত্দ সার্ক ঘোষণার একটি খসড়া প্রণয়নে ভারতের উদ্যোগের প্রশংসা করেন এবং এবছর অক্টোবরে ভারতে অনুষ্ঠেয় সার্ক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীদের দ্বিতীয় বৈঠকে একটি খসড়া ঘোষণার ধারণা পরীৰার জন্য আইন উপদেষ্টাদের একটি বৈঠক অনুষ্ঠানের শ্রীলংকার প্রসত্দাবকে স্বাগত জানান। তারা সকল সদস্য রাষ্ট্র কতর্ৃক সাফটা চুক্তির সময়োচিত অনুমোদনে সনত্দোষ প্রকাশ এবং এর পূর্ণ সম্ভাবনা উপলব্ধির উপর গুরম্নত্ব আরোপ করেন।

রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা বাণিজ্য সহজীকরণ ব্যবস্থা বিশেষ করে মৌলিক শুল্ক পরিভাষা, নথিবদ্ধকরণ ও ক্লিয়ারিং পদ্ধতি প্রমিতকরণের ব্যবস্থা বাসত্দবায়নের গুরম্নত্ব তুলে ধরেন।

শুল্ক ব্যবস্থায় অভিন্ন সুরে গ্রথিত একটি পদ্ধতি চূড়ানত্দ করার ৰেত্রে অধিক বুদ্ধিশক্তিসম্পন্ন চুক্তি করার ব্যাপারে তারা নির্দেশ দান করেন। তারা বলেন, বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে আনত্দঃআঞ্চলিক ব্যবসার প্রবৃদ্ধিতে কারিগরি ও স্বাস্থ্য সুরৰা ব্যবস্থায় অভিন্ন কর্মপন্থা নির্ধারণ ও তার বাসত্দবায়ন জরম্নরি। তারা সার্ক স্ট্যান্ডার্ডসে সমন্বয় বোর্ড প্রতিষ্ঠার প্রশংসা করে বলেন, এই বোর্ড সার্ক আঞ্চলিক স্ট্যান্ডার্ড সংস্থা গড়ার ৰেত্রে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে সৰম হবে। রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা অর্থনৈতিক ইসু্যতে সহযোগিতার ফ্রেমওয়ার্ক চূড়ানত্দ করার জন্য সার্ক অর্থমন্ত্রীদের প্রশংসা করেন এবং উক্ত ৰেত্রে আনত্দঃসরকার বিশেষজ্ঞদের প্রয়াস ফলপ্রসূ হবে বলে সনত্দোষ প্রকাশ করেন।

সূত্রঃ http://www.ittefaq.com/get.php?d=07/04/05/w/n_ztmumm

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: