বিএনপিতে রদবদল আসন্ন

দেশত্যাগের পূর্বেই বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া মহাসচিব আবদুল মান্নান ভূঁইয়াকে অপসারণসহ দলের নেতৃত্বে বড় ধরনের পরিবর্তন আনবেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে। মান্নান ভূঁইয়ার স্থলে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের দায়িত্ব নিতে পারেন ব্রিগেডিয়ার (অব.) হান্নান শাহ।

এদিকে খালেদা জিয়া রোববারের মধ্যে দেশত্যাগ নাও করতে পারেন বলে আভাস পাওয়া গেছে। তার সৌদি আরব গমন আরও ২/৩ দিন পেছাতে পারে। দেশত্যাগের আগে তিনি জাতীয় নির্বাহী কমিটিও ভেঙে দিতে পারেন। হান্নান শাহ গত রাতে চ্যানেল ওয়ানকে প্রদত্ত এক সাক্ষাৎকারে বিএনপিতে বড় ধরনের পরিবর্তনের ইঙ্গিত দেন। চ্যানেল ওয়ানে হঠাৎ তার সাক্ষাৎকার প্রদান এবং তার মুখ দিয়ে পরিবর্তনের আভাস দেয়ার বিষয়টিকে অনেকে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন। একটি মহল বলছে, বেগম খালেদা জিয়া গত রাতেই এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন। দলের একটি লেটার হেডও তিনি গতকাল সংগ্রহ করেছেন বলে জানা গেছে।

‘শারীরিক অসুস্থতার কথা বলে আবদুল মান্নান ভূঁইয়াকে সরিয়ে দেয়ার কথা বলা হলেও রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল তা সঠিক নয় বলে মনে করেন। তারা বলছেন, আবদুল মান্নান ভূঁইয়াসহ সাবেক অনেক মন্ত্রী ও এমপি পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে এবং বিএনপিতে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠাসহ জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণের পক্ষে অবস্থান নেয়ায় বেগম খালেদা জিয়া তাদের দল থেকে সরিয়ে ‘বিশ্বাসভাজনদের’ সমন্বয়ে দল গঠন করে তার নেতৃত্ব বহাল রাখার পক্ষে পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। রাতে এ ব্যাপারে মান্নান ভূঁইয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। তবে তার সঙ্গে রাতে কথা হয়েছে এ তথ্য জানিয়ে বিএনপির একজন সাবেক মন্ত্রী যুগান্তরকে জানান, গত রাতে মহাসচিব পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান কিংবা অপসারণের কোন চিঠি তিনি পাননি। সাবেক এই মন্ত্রী জানান, শহীদ জিয়ার আদর্শে বিশ্বাসী দলের নিবেদিত নেতাকর্মীরা পরিবারতন্ত্রের হাত থেকে বিএনপিকে মুক্ত করে পুনর্গঠনের লক্ষ্যে নিজেদের মধ্যে কথাবার্তা বলছেন। ঘরোয়া রাজনীতির ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে এ লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

চ্যানেল ওয়ানকে প্রদত্ত সাক্ষাৎকারে হান্নান শাহ আরও বলেন, বেগম খালেদা জিয়া দলের পরীক্ষিত ও নিষ্ঠাবান নেতাদের নেতৃত্বে দলের বিভিন্ন স্তরের কমিটি পুনর্গঠনের উদ্যোগ নেবেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মহাসচিব পদে পরিবর্তন আসবে। কারণ বর্তমান মহাসচিব আবদুল মান্নান ভূঁইয়া অসুস্থ। তিনি বর্তমান প্রেক্ষাপটে দায়িত্ব পালনে অসমর্থ হচ্ছেন। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তাকে মহাসচিবের দায়িত্ব দিলে তিনি নেবেন। বেগম জিয়ার বিদেশ যাওয়া সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বেগম জিয়া দোষী হলে তার বিচার এই দেশেই প্রচলিত আইনে হওয়া উচিত। Source:দৈনিক যুগান্তর
Date:2007-04-21

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: