পল্টন হত্যাঃ শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

২৮ অক্টোবর পল্টন হত্যামামলায় অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে বিচারিক আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে। একই মামলার অপর দুই আসামি আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোহামমদ নাসিম এবং আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল মালেক কিরণের বিরুদ্ধেও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। মামলার অন্য অভিযুক্তরা হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়েছেন। ঘটনার দিন ২৮ অক্টোবর পল্টন এলাকায় জামায়াতের সমাবেশ চলাকালে দলের নেতাকর্মীদের ওপর চালানো হামলায় পাঁচজন নিহত হয়। একই ঘটনায় ওয়ার্কার্স পার্টির একজন নিহত হয়।

গত ১১ এপ্রিল এ হত্যামামলায় আওয়ামী লীগ, জাসদ ও ওয়ার্কার্স পার্টির নেতাকর্মীদের মিলিয়ে ৪৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করা হয়। চার্জশিটে ১১ জনকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। প্রদত্ত চার্জশিটে শেখ হাসিনা, মোহামমদ নাসিম ও কিরণ ওরফে আবদুল মালেককে পলাতক দেখানো হয়েছিল। পলাতক এই তিন অভিযুক্ত যথাসময়ে আদালতে আত্মসর্মপণ না করলে তাদের প্রত্যেকের সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ দেয়া হতে পারে। এই মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে ২৮ মে।

উল্লেখ্য, গত বছর ২৮ অক্টোবর আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে গঠিত মহাজোটের ডাকা অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে জোটের নেতাকর্মীরা জামায়াতে ইসলামীর পাঁচ কর্মীকে লগি-বৈঠা দিয়ে পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে নিহত লাশের ওপর দাঁড়িয়ে উল্লাস প্রকাশ করেছিল।
এ ঘটনায় যারা নির্মমভাবে নিহত হয় তাদের মধ্যে রয়েছেন, মুজাহিদুল ইসলাম, মোঃ জসিম উদ্দিন, গোলাম কিবরিয়া শিপন, মনির হোসেন ও হাবিবুর রহমান। এ বিষয়ে জামায়াতের পল্টন থানার আমীর এ টি এম সিরাজুল হক বাদি হয়ে পল্টন থানায় একটি হত্যামামলা দায়ের করেন।

মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি’র এসআই এ কে এম ইদ্রিস হোসেন তদন্ত শেষে গত ১১ এপ্রিল ৪৩ জনকে আসামি করে ঢাকার সিএমএম আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। এদিকে ওয়ার্কার্স পার্টির কর্মী রাশেদ আহমেদ খানকে হত্যার অভিযোগে জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের আমীর মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীসহ যে ১০ জনের বিরুদ্ধে হত্যামামলা দেয়া হয়েছিল সেটি বিচারের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। মামলাটি খুব শিগগির সিএমএম কাছে বিচারিক আদালতে প্রেরণ করা হবে।
শেখ হাসিনার পক্ষের আইনজীবী বলেন, ওয়ারেন্ট ইস্যু অত্যন্ত দুঃখজনক। আবদুল জলিলসহ ৪৩ জন জামিনে আছেন। সিনিয়র আইনজীবীদের সাথে আলাপ করে এবং কেন্দ্রীয় নেতাদের পরামর্শ অনুযায়ী আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ নেব।

দেশে এলে শেখ হাসিনাকে গ্রেফতার করা হতে পারে কি না জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, করতে পারে। যেহেতু গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে অনেক কিছুই করতে পারে। জামায়াতের পক্ষের আইনজীবী বলেন, বাদি পক্ষের আইনজীবী অভিযোগ করেছেন জামায়াতের মামলা হালকা করতেই ওয়ার্কার্স পার্টি মামলা করেছে। তিনি বলেন, ওরা যে হামলা করেছে সেই হামলায়ই ওদের লোক মারা গেছে। কাজেই এটা একটা কাউন্টার মামলা। মূল মামলা থেকে অব্যাহতি পাওয়ার জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে এ মামলা করেছে তারা। Source:দৈনিক নয়া দিগন্ত
Date:2007-04-23

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: