সিএনজি ফিলিং স্টেশনে হঠাৎ ভিড়

ফিলিং স্টেশনে গাড়ি ও সিএনজির পাশাপাশি দীর্ঘ লাইন -যাযাদিরাজধানীর সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলোতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাড়িয়ে থেকে গ্যাস নিচ্ছে সিএনজিচালিত গাড়িগুলো। প্রতিটি স্টেশনেই গতকাল হঠাৎ করে বেড়ে গেছে সিএনজি গাড়ির ভিড়। এ ভিড়ের সঠিক কোনো ব্যাখ্যা খুজে পাওয়া যাচ্ছে না। জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ার পর থেকে এ অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। তবে দু’একদিন পর পরই প্রচ- ভিড় বেড়ে যায়।

জানা গেছে, সিএনজি স্টেশন ও রূপানত্দরিত গাড়ির অনুপাত বেড়ে যাওয়ায় ফিলিং স্টেশনগুলোতে দীর্ঘ লাইন বাড়ছে। কয়েক দফায় তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় সিএনজিতে গাড়ি রূপানত্দরের হিড়িক পড়েছে। বর্তমানে ছোট বড় মিলিয়ে ৫৪টি রূপানত্দর কারখানা থেকে দিনে ২০০টির বেশি গাড়ি সিএনজিতে রূপানত্দর হয়ে রাসত্দায় নামছে। সে অনুপাতে বাড়ছে না স্টেশনের সংখ্যা। গত অক্টোবরে ঢাকায় সিএনজি স্টেশনের সংখ্যা ছিল ৯৫টি। গত সাত মাসে এর সঙ্গে মাত্র ৯টি যোগ হয়ে এখন দাড়িয়েছে ১০৪টিতে। অথচ এখন প্রতি মাসে ছয় হাজারের বেশি গাড়ি রাসত্দায় নামছে সিএনজিতে রূপানত্দরিত হয়ে।

এদিকে সিএনজি সেক্টরের নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা রূপানত্দরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কম্পানি লিমিটেড (আরপিজিসিএল) প্রথম ঢাকায় যে চারটি স্টেশন করেছিল তার তিনটিই বন্ধ হয়ে আছে। জানা গেছে, কোনো এলাকায় একটি পাম্প বন্ধ থাকলে কিংবা গ্যাসের প্রেসার কম থাকলে পাশের পাম্পগুলোতে ভিড় লেগে যায়। তবে বিভিন্ন সিএনজি স্টেশন কতর্ৃপৰ কিংবা গাড়িচালকরা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না কেন মাঝে মধ্যেই অসহনীয় ভিড় হয়।

গতকাল বিকালে মিরপুর টেকনিকাল মোড়ে ডেনসো ফিলিং স্টেশনে সরকারি পরিবহন পুলের গাড়িচালক আবদুল কুদ্দুস বলেন, আড়াই ঘণ্টা ধরে লাইনে থেকে পাম্পের কাছে এসেছি। দুপুরে খেতেও পারিনি। কাল পাম্পে ভিড় ছিল না। আজ ভিড়ও বেড়েছে খুব, আমারও গ্যাস শেষ। গ্যাস না নিলে গাড়ি বন্ধ থাকবে।

গাবতলী থেকে টেকনিকাল মোড় পর্যনত্দ চারটি সিএনজি স্টেশনের সব ক’টিতেই কাল ছিল প্রচ- ভিড়। অপেৰমাণ গাড়ির দীর্ঘ লাইনে রাসত্দায় জ্যাম লেগে যায়। একই অবস্থা দেখা গেছে দারম্নস সালাম রোডের এবিএন সিএনজি স্টেশন, আসাদ গেটের সোনার বাংলা সিএনজি স্টেশন, এফডিসি সংলগ্ন মিডওয়ে কিংবা তেজগাওয়ের সুপার সিএনজি স্টেশনে। ভিড় সামলাতে সিএনজি স্টেশনগুলো ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকছে।

আরপিজিসিএলের এক সিনিয়র প্রকৌশলী যায়যায়দিনকে বলেন, অনেক কারণ মিলে বর্তমান অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ঢাকায় বরাদ্দ দেয়া সরকারি জমির অর্ধেকের মধ্যেও যদি সিএনজি স্টেশন হতো তাহলে এ সঙ্কট থাকতো না।

সূত্রঃ http://www.jaijaidin.com/details.php?nid=7240

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: