শেখ হাসিনার গ্রেফতারি পরোয়ানার কার্যক্রম স্থগিত

গতকাল সোমবার সিএমএম আদালত সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ২৮ অক্টোবর ’০৬ পল্টন হত্যা মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানার কার্যক্রম স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয়। গত রবিবার সিএমএম আদালত থেকে পল্টন হত্যা মামলায় শেখ হাসিনা, মোহাম্মদ নাসিম ও আবদুল মালেকের বিরুদ্ধে হুলিয়া জারির নির্দেশ দেয়। এই হত্যা মামলার বাদি জামায়াতে ইসলামী। ২৮ অক্টোবর পল্টন মোড়ে সংঘর্ষে ৫ শিবির কর্মী নিহত হয়। ঐ সংঘর্ষে ১৪ দলের কর্মী এবং ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা রাসেল আহমেদ খান নিহত হয়। শিবির কর্মী হত্যাকাণ্ডে জামায়াতের পক্ষ থেকে পল্টন থানায় মামলা দায়ের করা হয়। এই মামলার এজাহারে শেখ হাসিনার নাম ছিল না। রাসেল আহমেদ হত্যাকাণ্ডে একই দিনে একই থানায় ওয়ার্কার্স পার্টির পক্ষ থেকে জামায়াতের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। গত রবিবার একই আদালত পল্টনের ঘটনায় দুইটি হত্যা মামলার মধ্যে জামায়াতের মামলায় শেখ হাসিনাসহ তিনজনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি এবং ওয়ার্কার্স পার্টির মামলাটি নিষ্পত্তির জন্য মহানগর দায়রা জজ আদালতে প্রেরণের নির্দেশ দেয়।

আমাদের কোর্ট রিপোর্টার জানান, গত বছরের ২৮ অক্টোবর রাজধানীর পল্টন মোড়ে লীগ-বৈঠা দিয়ে ৫ শিবির কর্মীকে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগে দায়েরকৃত মামলাটি অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। জামায়াত কর্তৃক দায়েরকৃত এ মামলায় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা, সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল, মোহাম্মদ নাসিম, জাসদ (ইনু) সভাপতি হাসানুল হক ইনু, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননসহ ৪৬ জন নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে গত ১১ এপ্রিল সিএমএম কোর্টে চার্জশিট দাখিল করা হয়। মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি’র উপ-পরিদর্শক ইনামুল হকের আবেদনের প্রেক্ষিতে মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট মীর আলী রেজা গতকাল সোমবার এ তদন্তের আদেশ দেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে তার আবেদনে বলেন, মামলাটির অজ্ঞাতনামা আসামিদের নাম-ঠিকানা যাচাই-বাছাই ও আরো সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য অধিকতর তদন্তের প্রয়োজন। অধিকতর তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত পলাতক আসামিদের নামে ইস্যুকৃত গ্রেফতারি পরোয়ানার কার্যক্রম স্থগিত রাখারও আবেদন করা হয়। তদন্তকারী কর্মকর্তার আবেদন আদালত মঞ্জুর করেন। আগামী ২৮ মে ধার্যকৃত তারিখে অধিকতর তদন্তের প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করার জন্য তদন্তকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশ প্রদান করা হয়। উল্লেখ্য, চার্জশিটভুক্ত ‘পলাতক’ আসামি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা, প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম (বর্তমানে কারাগারে) এবং আবদুল মালেকের নাম অধিকতর তদন্তে বাদ যাওয়ার বিধান নেই। বরং নতুন আসামির নাম অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। অতিরিক্ত সাক্ষ্য প্রমাণ থাকলে তাদের নাম সম্পূরক চার্জশিটে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার বিধান রয়েছে। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-04-24

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: