নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করা সরকারের দায়িত্ব, ইসির নয়-প্রধান নির্বাচন কমিশনার

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ড. এ টি এম শামসুল হুদা বলেছেন, সরকারের রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কর্মকাণ্ডের উপর প্রভাব ফেলে। কিন্তু রাজনৈতিক বিষয়টা ইসির নয় বলে এক্ষেত্রে আমাদের কিছু করার নেই। সিইসি বলেন, শেষ পর্যন্ত রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনার পরিবেশ সৃষ্টি হতেই হবে। আমরা আলোচনার জন্য প্রস্তুত হয়ে আছি। সরকার যখন ঘরোয়া রাজনীতির উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেবেন তখন কমিশন আলোচনা শুরু করবে। এদিকে ঢাকাস্থ বৃটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরী বলেছেন, তার দেশ আশা করে শিগগিরই বাংলাদেশ থেকে জরুরী অবস্থা উঠে যাবে। তিনি গতকাল সিইসি’র সাথে সাক্ষাৎ শেষে বৃটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী মার্গারেট ব্রেকেটের উদ্ধৃতি দিয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

গতকাল মঙ্গলবার কমিশন ত্যাগকালে সিইসি আরো বলেন, কমিশন শুধু নির্বাচনের কারিগরি দিকটিই দেখে। রাজনৈতিক বিষয়টা কমিশনের নয়। এটা সরকারের বিষয়। ঘরোয়া রাজনীতির উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে না নেয়ায় সংস্কার প্রস্তাব নিয়ে রাজনৈতিক দলের সঙ্গে কিভাবে আলোচনা করা হবে এবং দুই নেত্রীকে বাইরে রেখে আলোচনা কতটুকু সফল হবে জানতে চাইলে সিইসি বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করা সরকারের দায়িত্ব। কিভাবে সে পরিবেশ তৈরী করবে সেটাও সরকারের বিষয়। যখন যে সরকার ক্ষমতায় থাকবে তারাই পরিবেশ সৃষ্টি করবে। তারপরেও আমরা সরকারের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি, আরো করবো। আমাদের প্রস্তুতি আছে। পরিবেশ সৃষ্টি হলেই আমরা আলোচনা করবো।

বৃটেন নির্বাচন কমিশনকে

সহায়তা করতে চায়

এদিকে বৃটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর সাক্ষাৎ বিষয়ে সিইসি বলেন, তারা নির্বাচন কমিশনকে সহায়তা করতে চায়। এসব নিয়েই বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। বৃটিশ হাইকমিশনার বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে দেশ থেকে বের করে দেয়া কিংবা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরতে না দেয়ার বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, বিষয়টি পুরোপুরি রাজনৈতিক দল এবং বাংলাদেশের নিজস্ব বিষয় বিদেশীদের নয়।

আনোয়ার চৌধুরী এ প্রসঙ্গে মার্গারেট ব্রেকেটের বিবৃতির সূত্র ধরে আরো বলেন, বৃটেন বর্তমান তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নির্বাচনের পদক্ষেপগুলোকে স্বাগত জানায় এবং এগুলোর সাফল্য কামনা করে। তবে লক্ষ্য রাখতে হবে যেন কোনভাবে ব্যক্তি স্বাধীনতা এবং মানবাধিকার লংঘিত না হয়। বৃটেন সব সময় বাংলাদেশের গণতন্ত্র সুদৃঢ় করতে সমর্থন জানিয়ে আসছে। গত ১৯ এপ্রিল লন্ডনে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র উপদেষ্টা এবং বৃটেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর বৈঠকে এ বিবৃতি দেয়া হয়। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-04-25

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: