দুই নেত্রীর ব্যাংক হিসাব চেয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক

সাবেক দুই প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও শেখ হাসিনার ব্যাংক হিসাব বিবরণী জানতে চেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বুধবার এই দুই নেত্রীর ব্যাংক হিসাব বিবরণী জানতে চেয়ে সকল বাণিজ্যিক ব্যাংককে টেলিফোনে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়ার ব্যাংক হিসাব বিবরণী গতকালের মধ্যে এবং শেখ হাসিনার ব্যাংক হিসাব বিবরণী আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার মধ্যে জানাতে বলা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক এবং বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। এদিকে সকল বাণিজ্যিক ব্যাংকের নিকট বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব তারেক রহমান ও স্ত্রী, কন্যার ব্যাংক হিসাব বিবরণ জানতে চেয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এছাড়া আরো ১৮ জন সাবেক মন্ত্রী, এমপি, ব্যবসায়ীসহ তাদের স্ত্রী, পুত্র, কন্যাসহ নিকটাত্মীয়দের ব্যাংক হিসাব বিবরণীও জানতে চেয়েছে এনবিআর। চলমান দুর্র্নীতি বিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে সংশ্লিষ্টদের এসব তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বুধবার সকালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ব্যাংক হিসাব বিবরণী জানতে চাওয়া হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের নিকট। এরপর বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মহাব্যবস্থাপক পদমর্যাদার কর্মকর্তারা টেলিফোনে মৌখিকভাবে বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংককে বেগম খালেদা জিয়ার সর্বশেষ লেনদেন পর্যন্ত ব্যাংক হিসাব জানাতে নির্দেশ দেন। বিকাল পৌনে চারটা পর্যন্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংকে পাঠানো বেশ কয়েকটি ব্যাংকের তথ্য থেকে একটি দেশী ব্যাংকে বেগম খালেদা জিয়ার হিসাব বিবরণী পাওয়া গেছে বলে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা পুরো বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করলেও তার নাম প্রকাশ করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এদিকে দুপুরের পর একই প্রক্রিয়ায় সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সর্বশেষ লেনদেন পর্যন্ত ব্যাংক হিসাব বিবরণী জানতে চাওয়া হয় সকল বাণিজ্যিক ব্যাংকের নিকট। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার মধ্যে তা জানাতে বলা হয়েছে। বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংক সূত্রে এসব খবরের সত্যতা নিশ্চিত করা গেছে।

এদিকে এনবিআরের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সেল (সিআইসি) সকল বাণিজ্যিক ব্যাংকের নিকট বেগম খালেদা জিয়ার পুত্র ও বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব তারেক রহমান এবং তার স্ত্রী জোবাইদা রহমান ও কন্যা জাইমা জারনাজ রহমানের একক বা যৌথ নামে পরিচালিত ব্যাংক হিসাব বিবরণী জানতে চেয়েছে। এসব ব্যাংক হিসাবের মধ্যে রয়েছে চলতি হিসাব, সঞ্চয়ী হিসাব, মেয়াদী আমানত হিসাব, ঋণ হিসাব (হাইপো/প্লেজ), এফসিএ (ফরেন কারেন্সি একাউন্ট), ক্রেডিট কার্ড হিসাব। এছাড়া আরো ১৮ জন সাবেক মন্ত্রী, এমপি, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী এবং তাদের স্ত্রী, পুত্র-কন্যাসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের ব্যাংক হিসাব জানতে চেয়েছে এনবিআর। এসব রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীরা হলেন ব্যারিষ্টার আমিনুল হক, শাহজাহান সিরাজ, বরকত উল্লাহ বুলু, জিয়াউল হক জিয়া, ওবায়দুল কাদের, এমএএইচ সেলিম, শামীম ইস্কান্দার, মনোয়ার হোসেন ডিপজল, এটিএম সরওয়ার হোসেন, মির্জা একরামুল হোসাইন ওরফে মির্জা খোকন, আতিকুল্লা খান মাসুদ, মুন্সী আনোয়ারুল ইসলাম (এম আনোয়ারুল ইসলাম), সৈয়দ আবুল হোসেন, আলহাজ্ব শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, হাবিবুর রহমান মোল্লা, লিয়াকত আলী শিকদার, তাজিন শাহনাজ ও বেগম জেবুননেছা। এনবিআরের সিআইসি থেকে গত ১৯ এপ্রিল পাঠানো তালিকায় মোট ৭৭ জনের ব্যাংক হিসাব জানতে চাওয়া হয়েছে। আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮৪-এর ১১৩ (এফ) ধারাবলে এনবিআর এসব ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব বিবরণী জানতে চেয়েছে। তথ্য তলব করার ক্ষমতা শীর্ষক ১১৩ (এফ) ধারা অনুসারে উপকর কমিশনার, পরিদর্শী যুগ্ম কমিশনার, সিআইসি’র মহাপরিচালক বা বোর্ড বা কমিশনার কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা কোন ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব বিবরণী চাইতে পারেন। এনবিআরের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকতা জানান, অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষর স্বার্থে এসব ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব বিবরণী জানতে চাওয়া হয়েছে। এসব ব্যাংক হিসাব বিবরণী পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্টদের বাৎসরিক রিটার্নে দেয়া হিসাব বিবরণীর সাথে মিলিয়ে দেখা হবে তারা আয়কর ফাঁকি দিয়েছেন কিনা। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-04-26

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: