ছবিযুক্ত ভোটার লিস্ট ও আইডি কার্ড প্রকল্প তৈরির কাজ শুরু হচ্ছে ৩ মে

ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা ও নাগরিক পরিচয়পত্র তৈরির সমন্বিত প্রকল্প প্রণয়নের কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন। মে মাসের প্রথম কার্যদিবস থেকেই দেশী-বিদেশী বিশেষজ্ঞ পরামর্শকরা নির্বাচন কমিশনের এ প্রকল্প তৈরির কাজ শুরু করবেন। আগামী দুই মাসের মধ্যে প্রকল্প প্রণয়ন এবং আন্তর্জাতিক টেন্ডারের মাধ্যমে আগামী চার মাসের মধ্যে সরঞ্জাম ক্রয় ও আমদানি করা সম্ভব হবে বলে কমিশন আশা করছে।

ভোটার তালিকার পাশাপাশি নাগরিক পরিচয়পত্র তৈরি ও ই-গভর্নেন্স চালুর লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে একটি সমন্বিত প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ১৮মাসের মধ্যে ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা প্রণয়নের কাজ শেষ হবে। এই প্রকল্প প্রণয়নের জন্য ইতোমধ্যে পাঁচজন দেশী-বিদেশী বিশেষজ্ঞ পরামর্শক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এদের মধ্যে দেশী বিশেষজ্ঞ ড. লুৎফর রহমান ও আজিজুল হক গতকাল রবিবার সকালে নির্বাচন কমিশনে পৌঁছান। এছাড়া একজন সুইডিশ ও অপর একজন অষ্ট্রেলিয়ান বিশেষজ্ঞ খুব তাড়াতাড়ি কমিশনের সঙ্গে যোগ দেবেন। অপর বিশেষজ্ঞ যে-কোন সময়ে এই দলের সঙ্গে যুক্ত হবেন বলে জানা গেছে। দুই বিশেষজ্ঞ গতকাল কমিশনে এসে কমিশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। আজ সকাল এগারোটায় কমিশনারদের সঙ্গে দেখা করে তাদের কাজ শুরু করার বিষয়টি চূড়ান্ত করবেন বলে জানা গেছে। এসময় কমিশনের ভাবনা এবং বিশেষজ্ঞদের কর্মপরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা হবে।

ভোটার তালিকা তৈরির প্রকল্প প্রণয়নের কাজ শুরুর কথা জানিয়ে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবঃ) এম সাখাওয়াত হোসেন গতকাল সাংবাদিকদের বলেছেন, বার বার যাতে ১১ জানুয়ারীর সৃষ্টি না হয় সেদিকে খেয়াল রেখেই কমিশন ভোটার তালিকা তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে। যে তালিকা বছরের পর বছর ব্যবহার করা যাবে। তিনি বলেন, ডাটাবেজ তৈরি করা হবে। এরপর তালিকায় সংযোজন-বিয়োজন করা যাবে। প্রত্যেক নির্বাচনের আগে এজন্য অর্থ ব্যয় করতে হবে না।

ভোটার তালিকা তৈরিতে সময় বেশী লাগানো হচ্ছে এই অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, আমরা যেভাবে ভোটার তালিকা করতে চাচ্ছি সেইভাবে যদি কম সময়ে অন্য কেউ করে দিতে পারে তাহলে আমরা স্বাগত জানাবো। সেই প্রস্তাব গ্রহণ করবো। কিন্তু কমিশন ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা তৈরির সিদ্ধান্ত কোনভাবেই পরিবর্তন করবে না।

সমন্বিত প্রকল্প বাস্তবায়নের আগে পরীক্ষামূলক প্রকল্প গ্রহণের কথা উল্লেখ করে নির্বাচন কমিশনার বলেন, মে মাসের মধ্যে পাইলট প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। এখনো স্থান নির্ধারণ না করা হলেও শহরের কামরাঙ্গীরচর বা মোহাম্মদপুরের কোন একটা এলাকায় এই কাজ শুরু হবে। আর গ্রামের স্থান এখনো নির্ধারণ করা হয়নি।

ভোটার তালিকা তৈরির জন্য নির্ধারিত ১৮ মাস মে থেকে শুরু হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, কমিশন ইতোমধ্যে অনেক কাজ এগিয়ে নিয়েছে এবং দ্রুত কাজটি করার চেষ্টা করছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য সরকার বাজেট দিতেও প্রস্তুত। তারপরও কমিশন বৈদেশিক সহায়তার চেষ্টা করছে। ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য থেকে আশ্বাস পাওয়া গেছে। Source:দৈনিক ইত্তেফাক
Date:2007-04-30

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: