বাড়ি বাড়ি না গিয়ে ছবিযুক্ত ভোটার তালিকার কাজ হবে ক্যাম্পে

বাড়ি বাড়ি গিয়ে, না ক্যাম্পে ছবিযুক্ত ভোটার তালিকার কাজ সারা হবে সে বিষয়ে নির্বাচন কমিশন দুই-এক দিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে। তবে এ দুই পদ্ধতির মধ্যে কমিশনের আলোচনায় ক্যাম্প স্থাপনের বিষয়টি গুরুত্ব পাচ্ছে। এ ছাড়া সম্পূর্ণ ডিজিটাল, ওএমআর ও সনাতন পদ্ধতি এই তিনটি অপশন নিয়ে কমিশন আলোচনা করছে।
ভোটার তালিকা তৈরির পদ্ধতি ও প্রক্রিয়া নির্ধারণে গতকাল রোববার নির্বাচন কমিশন দিনব্যাপী বৈঠক করেছে। সামরিক সচিব মেজর জেনারেল শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল ও ভোটার তালিকার প্রকল্প তৈরির কাজে নিয়োগকৃত ইএনডিপি’র বিশেষজ্ঞ পরামর্শকদের উপস্থিতিতে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান নির্বাচন কমিশনার-সিইসি ড. এ টি এম শামসুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে নির্বাচন কমিশনার মুহামমদ ছহুল হোসাইন ও অবঃ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম সাখাওয়াত হোসেন, কমিশন সচিব মুহমমদ হুমায়ূন কবিরসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে সামরিক বাহিনী ও বিশেষজ্ঞ পরামর্শকরা তাদের ভোটার তালিকা নিয়ে তাদের প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। এরপর প্রস্তাবনার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা হয়। কোন পদ্ধতিতে করলে কত সময় ও কত ব্যয় হবে তা আলোচনায় প্রাধান্য পায়। কোন পদ্ধতি করলে কী সরঞ্জাম লাগবে সেটাও বৈঠকে উপস্থাপন করা হয়। বৈঠকে ভোটার তালিকার জন্য বাড়ি বাড়ি যাওয়া হবে, না নির্দিষ্ট স্থানে ক্যাম্প করা হবে সে বিষয় নিয়েও আলোচনা হয়। কিন্তু কোনো সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হয়নি। তবে, ছবিযুক্ত তালিকা করতে হলে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নিয়ে বাড়িতে বাড়িতে যাওয়া সম্ভব না বলে বৈঠকে আলোচনা হয়।
বৈঠক শেষে ড. শামসুল হুদা উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, সম্পূর্ণ ডিজিটাল, ওএমআর ও সনাতন পদ্ধতি এই তিনটি অপশন নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। সম্পূর্ণ ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভোটারের ছবি, তথ্য, আঙ্গুলের ছাপ ও স্বাক্ষর থাকবে। সরাসরি কম্পিউটারে এই কাজগুলো করা হবে। ওএমআর (অপটিক্যাল মার্ক রিডার) পদ্ধতিতে প্রথমে ছবি তোলা ও তথ্য সংগ্রহ করা হবে। তারপর স্ক্যানিংয়ের মাধ্যমে ডাটা অন্তর্ভুক্ত করা হবে। আর আগে যেভাবে হয়েছে, সেটাই সনাতন পদ্ধতি।
তিনি বলেন, এ ক্ষেত্রে কোন পদ্ধতিতে করলে কত খরচ হবে, কত সময় লাগবে, এ বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আজকালের মধ্যে এ সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ভোটার তালিকা তৈরির জন্য বাড়িতে বাড়িতে যাওয়া হবে, না ক্যাম্প করা হবে এ ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে, ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নিয়ে বাড়িতে বাড়িতে যাওয়া কঠিন। তিনি বলেন, ক্যাম্প তৈরির সিদ্ধান্ত হলে সারাদেশে ৬ হাজার ৯০০ ভোট কেন্দ্রে এই ক্যাম্প করা যায় কি না সেটাও চিন্তা-ভাবনা চলছে। এসব বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভোটার তালিকা তৈরির পদ্ধতি ও প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হওয়ার পর কী কী সরঞ্জাম লাগবে তা বোঝা যাবে। সিইসি আরো বলেন, কমিশন পূর্বঘোষিত সময়ের মধ্যে ভোটার তালিকার কাজ শেষ করতে পারবে বলে আশাবাদী। বরং এই কাজ আরো আগে শেষ করা যায় কি না তা নিয়ে আলোচনা চলছে। তিনি বলেন, ৮ হাজার লোক নিয়োগ করলে যে সময় লাগবে, ৯ হাজার লোক নিয়োগ করলে তার চেয়ে কম সময় লাগার কথা। কিন্তু সেটা কাজে লাগানো সম্ভব কি না সেটাও ভেবে দেখা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে সেনাবাহিনী ও ইউএনডিপি বিশেষজ্ঞদের পৃথক মতামত নিয়ে কমিশন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে বলে তিনি জানান।

Source:দৈনিক নয়া দিগন্ত
Date:2007-05-14

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: